নবীনদের পদচারণায় মুখর কলেজ প্রাঙ্গণ

22

নিজস্ব প্রতিবেদক

নতুন শিক্ষার্থীদের আগমনে মূখর হয়ে উঠেছে কলেজগুলো। স্কুলের গন্ডি পেরিয়ে কলেজ জীবনে পর্দাপন করা উচ্ছ্বাসিত-প্রাণচঞ্চল শিক্ষার্থীদের পদচারণায় মূখর হয়ে উঠে কলেজ প্রাঙ্গণ।
গতকাল রবিবার একযোগে দেশের সব কলেজে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি হওয়া শিক্ষার্থীদের নবীনবরণ অনুষ্ঠিত হয়। এর মাধ্যেমে উচ্চ মাধ্যমিক স্তরে প্রবেশ করেছে শিক্ষার্থীরা।
সকালে নগরীর চট্টগ্রাম সরকারি কলেজ ও হাজী মুহাম্মাদ মহসিন কলেজে গিয়ে দেখা যায়, নতুন শিক্ষার্থীদের অভ্যর্থনা জানাতে দু’পাশে সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়ে আছে কলেজের নিয়মিত শিক্ষার্থীরা। কারো হাতে গোলাপ, কারো হাতে ফাইল, কেউ আবার কলেজের ইতিহাসসম্বলিত লিফলেট নিয়ে পড়ছেন। সবার অপেক্ষা একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি হওয়া। একে একে আসা কলেজের নতুন সদস্যদের হাতে গোলাপ তুলে দিয়ে ক্যাম্পাসে স্বাগত জানায় পুরাতন শিক্ষার্থীরা। এভাবে নতুনদের পদচারণায় মূখর হয়ে উঠে কলেজের ক্যাম্পাস।
চট্টগ্রাম সরকারি কলেজের বিজ্ঞান বিভাগের নবীন শিক্ষার্থী তারিন বলেন, কলেজ জীবনের প্রথমদিন একটু নার্ভাস লাগছে। নতুন ক্যাম্পাস, নতুন নতুন বন্ধুদের সাথে পরিচয় হচ্ছে। একেকজন একেক জায়গায় থেকে এসেছে। সব মিলিয়ে খুবই আনন্দিত।
চট্টগ্রামে সরকারি কলেজে ভর্তি হওয়া এক শিক্ষার্থীর অভিভাবক মনসুরা বেগম বলেন, আমার একমাত্র মেয়ের কলেজ জীবনের প্রথম দিন। মেয়ে একটু নার্ভাস ছিল। তাই মেয়েকে সঙ্গ দিতে মেয়ের সাথে কলেজে আসা। ছোট্ট মেয়েটি এখন স্কুল পেরিয়ে কলেজে উঠেছে এটা অবশ্যই আনন্দের।
মহসিন কলেজ একাদশ বিজ্ঞানের নবীন শিক্ষার্থী তাহমিদ আনাফ বলেন, প্রথম দিন কলেজে এসে ভালোই লাগছে। মনে হচ্ছে হঠাৎ করে বড় হয়ে গেছি। একসময় দলবদ্ধভাবে স্কুলে যেতাম এখন কলেজে আসব ভাবতেই নিজেকে বড় বড় লাগছে। কলেজের আরেক নবীন শিক্ষার্থী ইসমাম হাসানের কাছে নতুন ক্যাম্পাস স্বাভাবিক সময়ের মত হলো। তার মতে, আগে প্রতিদিন স্কুলে যেতাম এখন কলেজে আসব। শুধু ক্যাম্পাসটা ভিন্ন। আমার কাছে ক্লাসের ভিতর থেকে ক্লাসের বাহিরের পরিবেশ ভালো লাগছে। সবুজ ক্যাম্পাস নতুন আঙ্গিনায় খুব আনন্দ লাগছে।
চট্টগ্রাম সরকারি কলেজ মানবিকের শিক্ষার্থী টুটুল বলেন, ঐতিহ্যবাহী চট্টগ্রাম কলেজের ছাত্র হতে পেরে নিজেকে ধন্য মনে করছি। শতবর্ষী ক্যাম্পাসে প্রথমদিনেই স্যারদের আন্তরিকতায় মুগ্ধ। অধ্যক্ষ স্যার একটা কথা বলেছেন- নিজেকে গড়তে হলে পড়তে হবে। স্যারের এই উপদেশ মেনে চলার চেষ্টা করব।
সরকারি সিটি কলেজের শিক্ষার্থী মিরাজুল হাসান বলেন, নিজ কলেজের অরিয়েন্টেশন শেষ করে বন্ধুর ক্যাম্পাসে এসেছি। প্রথমদিন স্যারেরা একটা কথা বলেছেন- ‘সময় নষ্ট করা যাবে না, ইন্টারের সময় খুবই গুরুত্বপূর্ণ সময়, জীবন গঠনের জন্য এসময়কে কোনোভাবে নষ্ট করা যাবে না’। এ উপদেশ মেনে চলার চেষ্টা করব।
চট্টগ্রাম কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক মোহাম্মাদ মোজাহেদুল ইসলাম পূর্বদেশকে বলেন, প্রতি বছরের ন্যায় এবারও আমরা একাদশ শ্রেণির নবীনবরণ সম্পন্ন করেছি। শতবর্ষী এ কলেজের একজন শিক্ষার্থী হওয়া ভাগ্যের ব্যাপার। আমি আশা করছি, এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে সদ্য ভর্তি হওয়া শিক্ষার্থীরা নিজেদের মেধা ও পরিশ্রমকে কাজে লাগিয়ে আগামিতে ভালো ফলাফল করবে।