নগর আ.লীগের সাথে কেন্দ্রীয় নেতাদের মতবিনিময় কমিটিতে জায়গা হবে না বিতর্কিত ও বিদ্রোহীদের

87

সম্মেলনসহ গুচ্ছ কর্মসূচি নিয়েই আগামী ছয় মাস রাজনীতির মাঠে সরব থাকবে নগর আওয়ামী লীগ। আগামী মাস থেকেই সদস্য সংগ্রহ অভিযানের মধ্য দিয়ে ব্যস্ততা শুরু হবে। শোকের মাস আগস্টেও নগরীর ওয়ার্ড, থানায় পালিত হবে কর্মসূচি। সেপ্টেম্বর ও অক্টোবর মাসে ইউনিট এবং ওয়ার্ড কমিটির সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। নভেম্বরে থানা কমিটির সম্মেলন শেষে ডিসেম্বরেই নগর আওয়ামী লীগের কমিটি করার সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছে দিয়েছেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল নেতারা। নগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি, সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য ও কার্যকরী সদস্যদের সাথে কেন্দ্রীয় নেতাদের মধ্যে অনুষ্ঠিত দুইদিনব্যাপী মতবিনিময় সভার শেষদিনে গতকাল সোমবার এ সিদ্ধান্তের কথা জানানো হয়। এছাড়াও আওয়ামী লীগের আগামী কমিটিতে যাতে বিতর্কিত ও নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর বিরোধীতা করেছে এমন বিদ্রোহীদের কেউ অংশ নিতে না পারে সেদিকে নজর রাখতেও নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।
সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ বলেন, বিদ্রোহীদেরকে কোনও কমিটিতে রাখা যাবে না। বিগত নির্বাচনে যে সকল প্রার্থী দল সমর্থিত প্রার্থীর বিপক্ষে নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন তাদেরকে কোনও কমিটিতেই রাখা যাবে না। যুদ্ধাপরাধী, অনৈতিক কর্মকাÐের অভিযোগে বিতর্কিত কোনও ব্যক্তিকেও সংগঠনের অন্তর্ভুক্ত করা যাবে না। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ বিশাল সংগঠন। তৃণমূল কর্মীদের ত্যাগ, তিতিক্ষার বিনিময়ে দলের আজকের এই অর্জন। কাজেই দলের ঐতিহ্যকে বিবেচনায় রেখে সদস্য সংগ্রহ অভিযান চালাতে হবে।
তিনি আরও বলেন, জুলাই থেকে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন প্রক্রিয়া শুরু হবে। জুলাই মাসে সংগঠনের সদস্য সংগ্রহ চলবে। আগস্ট শোকের মাস। এই মাসে নগরীর সকল ওয়ার্ড, থানা পর্যায় থেকে মহানগর কমিটি সবাই শোকের মাসের কর্মসূচি পালন করবে। সেপ্টেম্বর এবং অক্টোবর মাসে ইউনিট ও ওয়ার্ড কমিটির সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। পরের মাস নভেম্বরে অনুষ্ঠিত হবে থানা কমিটির সম্মেলন। পরে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনার সাথে আলোচনা সাপেক্ষে তার পরামর্শে মহানগর কমিটির সম্মেলনের তারিখ নির্ধারণ করা হবে। অর্থাৎ চলতি বছরের মধ্যে মহানগরের আওতাধীন সকল ইউনিট, ওয়ার্ড, থানা কমিটিসহ মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন সম্পন্ন করা হবে।
চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দীন চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক সাবেক মেয়র আ.জ.ম নাছির উদ্দীনের সঞ্চালনায় সভায় কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হুইপ আবু সাঈদ মাহমুদ আল স্বপন, শফিউল আলম নাদেল, উপপ্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, অর্থ ও পরিকল্পনা সম্পাদক ওয়াসিকা আয়েশা খান, শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহীবুল হাসান চৌধুরী নওফেলসহ সংশ্লিষ্ট নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।