দুই ভাই মিলে খুন করল বাবাকে

51

হাটহাজারী প্রতিনিধি

হাটহাজারীতে পারিবারিক কলহের জেরে আপন দুই সন্তানের হাতে খুন হয়েছেন তাদের পিতা। ধারালো দা দিয়ে পিতা মো. শাহা আলমকে (৪৮) কুপিয়ে গুরুতর আহত করেছে দুইপুত্র মো. জাহেদুল ইসলাম ও মো. খোরশেদুল আলম। পরে স্থানীয়রা শাহা আললকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। গতকাল শুক্রবার বিকেলে উপজেলার ৩নং মির্জাপুর ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের আমীন মোহাম্মদ মুন্সীর বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর পুলিশ নিহতের পুত্র মো. জাহেদুল ইসলামকে (১৯) গ্রেপ্তার করেছে।
থানা ও পারিবারিক সূত্র জানায়, দুপুরে জুমার নামাজের পর পিতা মো. শাহা আলম ও মাতা তাহেরা বেগমের মধ্যে পারিবারিক বিরোধের জের ধরে কথা কাটাকাটি হয়। এর মধ্যে দুই ছেলে নামাজ শেষে বাসায় ফিরলে তারাও পিতা-মাতার কথা কাটাকাটিতে হস্তক্ষেপ করে। এতে পিতা মো. শাহা আলম ধারালো দা নিয়ে ছেলেদের উপর চড়াও হলে এক পর্যায়ে মেজ ছেলে ও ছোট ছেলে তাদের পিতাকে ওই দা দিয়ে কুপিয়ে রক্তাক্ত জখম করে। পরে স্থানীয়রা মো. শাহা আলম উদ্ধার করে হাটহাজারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত মেডিকেল অফিসার ডা. তাসলিমা আক্তার সুমি তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
বিষয়টি নিশ্চিত করে ডা. তাসলিমা আক্তার সুমি জানান, অতিরিক্ত রক্ষক্ষরণে শাহা আলমের মৃত্যু হয়েছে। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আনার আগে পথিমধ্যেই তার মৃত্যু হয়। তার শরীরের একাধিক স্থানে ধারালো দা দিয়ে কুপিয়ে রক্তাক্ত জখমের চিহ্ন রয়েছে।
থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। এ ঘটনায় থানার উপ-পরিদর্শক মো. রফিকুল ইসলাম সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে পিতাকে খুনের দায়ে নিহতের মেজ পুত্র মো. জাহেদুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করেছে।
এ ব্যাপারে হাটহাজারী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. রফিকুল ইসলাম জানান, পারিবারিক বিরোধের জের ধরে উপজেলার মির্জাপুরে মো. শাহা আলম নামে এক ব্যক্তিকে তার আপন ছেলেরা দা দিয়ে কুপিয়ে খুন করেছে। এ ঘটনায় নিহতের মেজ ছেলে জাহেদুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এছাড়া অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারের জন্য পুলিশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে এবং ময়না তদন্তের জন্য মরদেহ চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে বলে ওসি জানিয়েছে।