দীর্ঘ ২৫ বছরেও সংস্কার হয়নি ডুমখালী ব্রিজ

14

মো.শাহাদাত হোসেন, চন্দনাইশ

চন্দনাইশ উপজেলার জোয়ারা খানখানাবাদ ও চামুদরিয়াবাসীর সংযোগ স্থল ডুমখালী ব্রিজটি নির্মাণ হচ্ছে না ২৫ বছর। দীর্ঘ ২৫ বছর ধরে এলাকার মানুষ পারাপার করছে বাঁশের সাকু দিয়ে। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, পটিয়ার দক্ষিণাংশ ও চন্দনাইশের উত্তর সীমান্তবর্তী চাঁনখালী-বরুমতি খালের মোহনায় খালের উপর ব্রিজটি দীর্ঘ ২৫ বছর পূর্বে ভেঙে যাওয়ার পর থেকে আর কোন সংস্কার করা হয়নি বলে অভিযোগ স্থানীয়দের। হাতিয়াখোলার কলাতলী এলাকায় চাঁনখালী ও বরুমতি খালের মোহনায় জোয়ারা খানখানাবাদ ও চামুদরিয়াবাসীর সংযোগস্থল ডুমখালী ব্রিজটি কি এক অজানা কারণে নির্মাণ হচ্ছে না। এ সকল এলাকার লোকজন পার্শ্ববর্তী জমিতে চাষাবাদ ও চামুদরিয়া বাজারসহ বিভিন্ন এলাকায় যাতায়াতের জন্য ব্রিজটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ব্রিজটি নির্মাণ না হওয়ায় হিলচিয়া, চামুদরিয়া, কলাতলী, খানখানাবাদ এলাকার কয়েক হাজার পরিবারে ৫ সহ¯্রাধিক মানুষ স্বাভাবিকভাবে চলাচল ও জীবন-যাপনে বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। পার্শ্ববর্তী ধানী জমিতে চাষাবাদ করতে গরু ছাগলকে নদীর পানিতে ছেড়ে দিয়ে সাকু দিয়ে পার হয় মানুষ। স্থানীয় আবুল কাসেম (৭০), সামশুল আলম (৬০) বলেন, এ ব্রিজটি নির্মাণ না হওয়ায় কয়েক হাজার মানুষ, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের যাতায়াত সমস্যার কারণে এলাকাটি শিক্ষা ব্যবস্থায় পিছিয়ে পড়ছে। বিশেষ করে মুমুর্ষরোগীদের নিয়ে বিপাকে পড়তে হয় পরিবারের সদস্যদের। স্থানীয় চেয়ারম্যান মো. এহছান একাধিকবার এলাকাটি পরিদর্শন করলেও কাজের কাজ কিছুই হয়নি। তাছাড়া, ব্রিজটি নির্মাণ না হওয়ায় এলাকাবাসী বাঁশ দিয়ে সাকু তৈরি করে কোন রকমে চলাচল করছে। বর্ষা মৌসুমে অনেক সময় বাঁশের সাকুটি পানির ¯্রােতে তলিয়ে যায়। কোন কোন সময় সাকু দিয়ে পার হতে গিয়ে অনেকে খালে পড়ে আহত হওয়ার ঘটনাও রয়েছে।
কিছুদিন পূর্বে মৃত মো. আলীর স্ত্রী নুর নাহার বেগম (৭০) সাকু দিয়ে পার হওয়ার সময় পড়ে গিয়ে গুরুতর আহত হয়ে তার হাত পা ভেঙে যায়। এলাকাবাসীর দাবি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে সাকুবিহীন দেশ ঘোষনা করলেও দীর্ঘ ২৫ বছর ধরে এ এলাকার মানুষ সাকুর উপর নির্ভর করে চলাচল করে আসছে। বিষয়টি অনুধাবন করে খালের উপর ডুমখালী ব্রিজটি নির্মাণের মাধ্যমে এলাকার মানুষের যাতায়তের সুযোগ করে দেয়ার দাবি জানান তারা।