দীঘি ও পুকুর সংরক্ষণে উদ্যোগ চাই : সুজন

219

নগরীর বড় দিঘী ও পুকুর সংরক্ষণের নিমিত্তে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহন করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্র্তৃপক্ষের নিকট আহবান জানিয়েছেন নগরীর বিভিন্ন এলাকায় বিভিন্ন ধরনের নাগরিক সমস্যা চিহ্নিত করন এবং তা থেকে পরিত্রানের লক্ষ্যে কর্মপন্থা নির্ধারনের জন্য জনদূর্ভোগ লাঘবে জনতার ঐক্য চাই শীর্ষক নাগরিক উদ্যোগের প্রধান উপদেষ্টা ও চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি খোরশেদ আলম সুজন। তিনি গত ২২ জানুয়ারী মঙ্গলবার জামালখানস্থ একটি বেসরকারী সংস্থার কার্যালয়ে নাগরিক উদ্যোগের সভায় উপরোক্ত বক্তব্য রাখেন। এ সময় সুজন আরো বলেন, এক সময় আমাদের চট্টগ্রাম নগরী পাহাড় পর্বতে ঘেরা মনোরম সুন্দর পরিবেশ ছিল। নগরীর বিভিন্ন এলাকায় পাড়ায় পাড়ায় বড় দিঘী এবং পুকুর ছিল। কালের বিবর্তনে সেইসব দিঘী এবং পুকুরগুলো বৈধ কিংবা অবৈধ উপায়ে ভরাট করে ফেলা হচ্ছে। এখন নগরীতে কোন দিঘী কিংবা পুকুরের দেখা মিলা সৌভাগ্যের ব্যাপার কিন্তু সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ নির্বিকার। সবাই দেখে ও না দেখার ভান করে আছে। যার কারণে বিভিন্ন এলাকায় আগুনে পুড়ে প্রায়ই জানমালসহ ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি সাধিত হচ্ছে। যে ক্ষতি সহসাই পূরণ হওয়ার নয়। সম্প্রতি পুকুর ভরাটের কারণে নির্মম শিকারে পরিণত হয়েছে নগরীর ভিক্টোরী জুট মিলে। আগুনের লেলিহান শিকায় মূহুর্তের মধ্যেই ভস্মীভূত হয়েছে কোটি কোটি টাকার পণ্য। অথচ একসময় ঐ মিলের ভিতর বড় বড় পুকুর ছিল। ইস্পাহানী গ্রুপের মালিক জুট মিলের শ্রমিকদের নিত্য ব্যবহারের সুবিধার্থে পুকুরগুলো খনন করেছিলেন। কিন্তু অনেকটা রাতারাতি এ পুকুরগুলো ভরাট করে ফেলা হয়েছে। ফলত অগ্নিকান্ডের সময় পানির অভাবে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে ফায়ার সার্ভিস কর্তৃপক্ষকে হিমশিম খেতে হয়েছে। এ অবস্থা থেকে উত্তরণের জন্য অচিরেই নগরীর বিভিন্ন এলাকায় যে সকল দিঘী ও পুকুর ভরাট করা হয়েছে সেগুলো পূনঃখনন এবং অবশিষ্ট দিঘী ও পুকুরকে সংরক্ষণের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট জোর দাবী জানান। হাজী মো. ইলিয়াছের সভাপতিত্বে এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন হাজী হোসেন কোম্পানী, মোরশেদ আলম, হাজী ছালেহ জঙ্গী, অধ্যক্ষ কামরুল হোসেন, হাফেজ মো. ওকার উদ্দিন, সমীর মহাজন লিটন, শেখ মামুন রশিদ, স্বরূপ দত্ত রাজু, জাহাঙ্গীর আলম, ফেরদৌস মাহমুদ আলমগীর, তোফাজ্জল হোসেন ওয়াসিম, মিজানুর রহমান জনি, সুমন দে প্রমুখ। বিজ্ঞপ্তি