ত্রিপক্ষীয় বৈঠক রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে আশার আলো

11

রোহিঙ্গা সঙ্কট সমাধানে আবারও দিগন্তে আশার আলো উঁকি দিচ্ছে। আন্তর্জাতিক পর্যায়ে এ সংকট নিরসনে চীনের সরাসরি অংশগ্রহণের অভিপ্রায় মূলত বাংলাদেশ কিছুটা হলেও স্বস্তির দম ফেলেছে। গত মঙ্গলবার বাংলাদেশের পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন, চীনের উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী লুও জাওহুই এবং মিয়ানমারের আন্তর্জাতিক সহযোগিতা উপমন্ত্রী হাউ দো সুয়ান-এর ত্রিপক্ষীয় বৈঠক পূর্ব দিগন্তজুড়ে আলো ছড়িয়েছে। সবচেয়ে ভালো খবরটি হলো, চীনের মধ্যস্থতায় মিয়ানমারের সঙ্গে বৈঠকের পর চলতি বছরের দ্বিতীয় প্রান্তিকে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরুর আশা প্রকাশ করেছেন পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন। মঙ্গলবার ত্রিপক্ষীয় এই বৈঠক শেষে তিনি সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘এখন অনেক ফ্যাক্টরস আছে, এসবগুলো ফ্যাক্টরস মাথায় রেখে, ইতোপূর্বে যেহেতু দুইটা ডেট দিয়ে আমরা সফল হতে পারিনি, এখন সেগুলো থেকে শিক্ষা নিয়ে কীভাবে সফল হওয়া যায়, সেই চেষ্টাই থাকবে আমাদের। আমরা সিনসিয়ারলি এঙ্গেজড থাকবে। তাঁর ভাষায় ‘ব্যক্তিগতভাবে আমি কশাসলি অপটিমিস্টিক, আমাদের ডিপ্লোমেটিক ভাষায় বলে- আমরা চেষ্টা করে যাব, উইথ অল আওয়ার হার্ট অ্যান্ড সউল।’ পররাষ্ট্র সচিব বলেন, দ্বিপক্ষীয় যে চুক্তি আছে, তা যদি অক্ষরে অক্ষরে পালিত হয়, সেখানে ১০ লাখের বেশি মানুষকে নিয়ে যেতে বছরের পর বছর লেগে যাবে। গত তিন বছরে ৯০ হাজার নতুন বাচ্চাও জন্মগ্রহণ করেছে। ‘সুতরাং এই টোটাল নম্বরটা বাড়তে থাকবে, অনেক জটিলতা আসতে থাকবে। দ্রুত শুরু করাটার বিকল্প নাই।’ রোহিঙ্গা সঙ্কট নিয়ে ত্রিপক্ষীয় বৈঠকের পর আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় নড়েচড়ে উঠেছে। বাংলাদেশ এখন এ নিয়ে প্রতিবেশী ও বন্ধু দেশকে সাথে করে ব্যাপক আলোচনার উদ্যোগ নিচ্ছে বলে গণমাধ্যম সূত্রে জানা যায়। উক্ত আলোচনায় রোহিঙ্গা প্রশ্নে ‘বন্ধু দেশগুলোর’ ভূমিকায় হতাশা পররাষ্ট্রমন্ত্রীর রোহিঙ্গাদের আস্থা ফেরানোর জন্য গ্রামভিত্তিক প্রত্যাবাসন শুরুর প্রস্তাব বৈঠকে দেওয়া হবে বলে সোমবার পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ সাংবাদিকদের জানান। বৈঠকের সিদ্ধান্তের বিষয়ে মাসুদ বিন মোমেন বলেন, ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহের মধ্যে আমাদের ওয়ার্কিং গ্রুপের মিটিংটা হবে এবং সেটার ব্যাপ্তি কিছুটা বাড়বে। ‘আগে আমাদের ডিজি লেভেলের সঙ্গে চীন ও মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূত থাকতেন। এটাকে বড় করে মিয়ানমারের নে পি দোতে ডিজি আছেন এবং বেইজিংয়ে ফরেন মিনিস্ট্রিতে যে যে ডিজি আছেন, উনারাও সংযুক্ত হবেন।’ দুই দেশের ডিজিদের মধ্যে একটা হটলাইন চালু হবে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘যত দ্রুত সম্ভব এটা হবে। যাতে করে যেকোনো ধরনের ছোটোখাটো চ্যালেঞ্জ থাকলে, তারা নিজেরা কথা বলে ঠিক করে নিতে পারবে।’ ছয় দফায় মোট ৮ লাখ জন রোহিঙ্গার তালিকা মিয়ানমারের কাছে হস্তান্তর করেছে বাংলাদেশ সরকার, যার মধ্যে ৪২ হাজারের ভেরিফিকেশন করেছে মিয়ানমার। এ বিষয়ে পররাষ্ট্র সচিব বলেন, ‘ভেরিফিকেশনের যে ইস্যুটা আছে, সেটা যাতে আরও ত্বরান্বিত হয়, সেটা বলেছি। এটা সাইড বাই সাইড চলতে থাকে।’ গ্রাম বা অঞ্চলভিত্তিক প্রত্যাবাসন শুরুর বিষয়ে প্রস্তাব দেওয়ার কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, শেষের দিকে একটা ওয়ার্কিং গ্রুপের মিটিংয়ে পাইলট আকারে (প্রত্যাবাসন) করার কথা ছিল। আমরা সেটার ভিত্তিতে গ্রামভিত্তিক বা এলাকাভিত্তিক ব্যাচ বলি, সেটার আলোকে শুরু হবে। ‘যদিও তাদের দিক থেকে কিছুটা ভিন্নতা হয়ত থাকতে পারে, প্রস্তাবের। তারা বলেছে যে নমনীয়তা দেখাবে। তাদের নিজেদের স্বার্থে নমনীয়তা দেখানো উচিৎ।’ তবে রাখাইনে আন্তর্জাতিক স¤প্রদায়ের গঠনমূলক অংশগ্রহণে চীনের দিক থেকে বক্তব্য এলেও মিয়ানমার এ বিষয়ে কিছু উল্লেখ করেনি। ২০১৭ সালের ২৫ অগাস্ট মিয়ানমারের রাখাইনে সেনা অভিযান শুরুর পর কয়েক মাসের মধ্যে সাত লাখের বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নেয়। আগে থেকে বাংলাদেশে ছিল আরও চার লাখ রোহিঙ্গা। আন্তর্জাতিক চাপের মধ্যে মিয়ানমার সরকার রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে ২০১৭ সালের শেষ দিকে বাংলাদেশের সঙ্গে চুক্তি করলেও সেই প্রত্যাবাসন আজও শুরু হয়নি। ২০১৯ সালে দুই দফা প্রত্যাবাসনের উদ্যোগ নেওয়া হলেও রাখাইন রাজ্যের নিরাপত্তা পরিবেশ নিয়ে শঙ্কার কথা তুলে ধরে ফিরতে রাজি হননি রোহিঙ্গারা। পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন ক’দিন আগেও বলেছিলেন, আলোচনা চালিয়ে গেলেও মিয়ানমারের আন্তরিকতার অভাবে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু হচ্ছে না। প্রত্যাবাসন আটকে থাকার মধ্যে মিয়ানমার ও বাংলাদেশকে নিয়ে সমস্যা সমাধানে উদ্যোগী হওয়ার কথা বলে আসছে দুই দেশের ’ভালো বন্ধু’ চীন। দিনের শেষে বন্ধুত্বের দাবিই যেন সুন্দর ও সুষম হয়-এ প্রত্যাশায়।