ডেঙ্গুর কাছে হার মানলো এসএসসি পরীক্ষার্থী আলভি

4

নিজস্ব প্রতিবেদক

১৫ বছরের মো. কামরুল হাসান আলভি। আগ্রাবাদ তালেবিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক নাঈমা সুলতানা ও বাঁশখালী আলাওল সরকারি কলেজের শিক্ষক আতাউর রহমানের সন্তান। নগরীর আগ্রাবাদ হাউজিং সোসাইটি এলাকায় তাদের পরিবারের বসবাস। এবার এসএসসি পরীক্ষায় বসার কথা আলভির।গতকাল সোমবার (২০ নভেম্বর ) ফরম পূরণের নির্ধারিত দিনও ছিল। জীবনের কি নিষ্ঠুর বাস্তবতা। প্রাণঘাতী ডেঙ্গু কেড়ে নিল তরতাজা এই কিশোরের প্রাণ। মুহূর্তেই শোকের কালোমেঘ নেমে আসলো এই পরিবারের উপর। গতকাল সোমবার বিকেল ৩টা ৪০ মিনিটে আলভি পরম করুণাময়ের ডাকে সাড়া দেন। ডেঙ্গু আক্রান্ত হওয়ার পর গত ১৩দিন চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিল আলভি। এর মধ্যে ১১দিন ছিল লাইফ সাপোর্টে। হালিশহরস্থ হাউজিং সেটেল্ড স্কুল এন্ড কলেজ এর এই শিক্ষার্থীর নামাজে জানাজা গতকাল সোমবার বাদ মাগরিব স্থানীয় হাউজিং সোসাইটি মসজিদে অনুষ্ঠিত হয় । এরপর তার গ্রামের বাড়ি আনোয়ারায় দ্বিতীয় নামাজে জানাজা শেষে সেখানেই দাফন করা হয়।
নাঈমা আতাউর দম্পতির দুই ছেলের মধ্যে আলভি বড়। তার ছোটভাই ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে নগরীর পার্কভিউ হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন। বর্তমানে সুস্থ আছে।
নামাজে জানাজায় ইমামতি করা মাওলানা আইয়ুব আলী আনসারি মুসল্লিদের উদ্দেশ্যে বলেন, আলভি পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়তো মসজিদেই। তার জানাজা আমাকে পড়াতে হবে, ভাবনা আসেনি কখনো।