জয়ে শুরু, বড় হারে শেষ বিশ্বকাপ মিশন

29

দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে ২১ রানে জয় পেয়ে বিশ্বকাপ মিশন শুরু করেছিল বাংলাদেশ। কিন্তু টাইগারদের শেষটা হলো বড় হার দিয়ে। ইংল্যান্ড বিশ্বকাপে শুক্রবার লিগ পর্বে নিজেদের শেষ ম্যাচে পাকিস্তানের কাছে ৯৪ রানে হেরেছে মাশরাফি বিন মর্তুজারা দল। ৯ ম্যাচ খেলে ৭ পয়েন্ট নিয়ে সপ্তম অবস্থানে থেকে বিশ্বকাপ মিশন শেষ হলো মাশরাফি-সাকিবদের। এবারের বিশ্বকাপে বাংলাদেশ তিন ম্যাচে জয় পেয়েছে। টাইগাররা হারিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও আফগানিস্তানকে। আর শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচটি পরিত্যক্ত হয়েছিল। অন্যদিকে, পাকিস্তানেরও এটি ছিল শেষ ম্যাচ। ৯ ম্যাচ খেলে ১১ পয়েন্ট নিয়ে তারা পঞ্চম অবস্থানে থেকে বিশ্বকাপ শেষ করল।


এদিন লন্ডনের লর্ডসে অনুষ্ঠিত ম্যাচটিতে পাকিস্তানের দেয়া ৩১৬ রানের জয়ের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে ৪৪.১ ওভারে ২২১ রান করে অলআউট হয় বাংলাদেশ। এবারের বিশ্বকাপে এটি বাংলাদেশের সর্বনিম্ন স্কোর। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৬৪ রান করেন সাকিব আল হাসান। পাকিস্তানের তরুণ পেসার শাহীন শাহ আফ্রিদি ৯.১ ওভারে ৩৫ রান দিয়ে ৬টি উইকেট শিকার করেছেন। এছাড়া শাদব খান ২টি, ওয়াহাব রিয়াজ ১টি ও মোহাম্মদ আমির ১টি করে উইকেট শিকার করেছেন।
ব্যাটিংয়ে নেমে দলীয় ২৬ রানে প্রথম উইকেট হারায় বাংলাদেশ। ইনিংসের ষষ্ঠ ওভারে মোহাম্মদ আমিরের বলে পয়েন্টে ফখর জামানের হাতে ক্যাচ হন সৌম্য সরকার। ২২ বল খেলে ২২ রান করেন তিনি। ১১তম ওভারে শাহীন আফ্রিদির বলে বোল্ড হন তামিম ইকবাল। ২১ বলে তিনি করেন ৮ রান। দলীয় ৭৮ রানে ফিরে যান মুশফিকুর রহিম। ১৮তম ওভারে ওয়াহাব রিয়াজের বলে বোল্ড হন তিনি।
১৯ বলে তার সংগ্রহ ১৬ রান।
এরপর সাকিব-লিটন মিলে ৫৮ রানের জুটি গড়েন। দলীয় ১৩৬ রানে শাহীন আফ্রিদির বলে হারিস সোহেলের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরেন লিটন। ৪০ বল খেলে তিনি করেন ৩২ রান। দলীয় ১৫৪ রানে শাহীনের বলে উইকেটরক্ষকের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান দলের অন্যতম ভরসা সাকিব আল হাসান। ফেরার আগে তিনি করেন ৬৪ রান। এবারের বিশ্বকাপে এটি সাকিবের পঞ্চম হাফ সেঞ্চুরি। শ্রীলঙ্কা ম্যাচ পরিত্যক্ত হওয়ায় সাকিব মোট ৮ ম্যাচ ব্যাট করার সুযোগ পেয়েছেন। এর মধ্যে তিনি পাঁচ ম্যাচে হাফ সেঞ্চুরি ও দুই ম্যাচে সেঞ্চুরি করেছেন। এবারের বিশ্বকাপে বর্তমানে তিনিই সেরা রান সংগ্রহকারী ব্যাটসম্যান।
সাকিব ফেরার পর দলের জয়ের আশা একেবারে ক্ষীণ হয়ে যায়। সাকিব ফেরার পর মাহমুদউল্লাহ ও মোসাদ্দেক মিলে দলকে এগিয়ে নেয়ার চেষ্টা করছিলেন। তারা ৪৩ রানের জুটি গড়তে সক্ষম হন। ৪০তম ওভারে মোসাদ্দেক ফিরে গেলে নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারিয়ে ২২১ রানে অলআউট হয় টাইগাররা।
এদিন প্রথমে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৯ উইকেটে ৩১৫ রান সংগ্রহ করে সরফরাজ আহমেদের দল। পাকিস্তানি ওপেনার ইমাম-উল-হক সেঞ্চুরি করেন। ১০০ রান করে আউট হন তিনি। বিশ্বকাপে এটি তার প্রথম সেঞ্চুরি। আর ওয়ানডেতে সপ্তম। ৯৬ রান করে আউট হন বাবর আজম। ২৬ বলে ৪৩ রান করেন ইমাদ ওয়াসিম। টাইগার পেসার মোস্তাফিজুর রহমান ১০ ওভারে ৭৫ রান দিয়ে ৫টি উইকেট শিকার করেন। এছাড়া মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন ৩টি ও মেহেদী হাসান মিরাজ ১টি করে উইকেট শিকার করেন।
আজ বিশ^কাপ ক্রিকেটের লিগ পর্বের শেষ দু’টি ম্যাচ (ভারত-শ্রীলংকা, অস্ট্রেলিয়া-দ. আফ্রিকা) অনুষ্ঠিত হবে। আগামী ৯ ও ১১ জুলাই সেমিফাইনাল এবং ১৪ জুলাই ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত হবে।