জেলা পরিষদের টাওয়ার ও চসিকের ২ উন্নয়ন প্রকল্প উদ্বোধন আজ

23

নিজস্ব প্রতিবেদক

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) দুটি প্রকল্প এবং চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের টাওয়ারের নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করা হবে আজ। স্থানীয় সরকার মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম এসবের উদ্বোধন করবেন।
চসিক সূত্র জানিয়েছে, আজ সকাল সাড়ে ১০ টায় নগরীর আমবাগান সড়ক উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন শেষে রাসেল পার্ক সংলগ্ন স্থানে সড়কটির উদ্বোধন এবং বেলা ১১ টায় পূর্ব ষোলশহর ওয়ার্ডে মাইজপাড়াস্থ তাজুল ইসলাম স্কুল প্রাঙ্গণে নগরীর জলাবদ্ধতা নিরসনে বারইপাড়া খাল খনন কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক সূচনা করবেন মন্ত্রী।
চসিক মেয়র মো. রেজাউল করিম চৌধুরী গতকাল সকালে ওই দু’টি স্থান পরিদর্শন করেন এবং উদ্বোধনী অনুষ্ঠান আয়োজনের প্রস্তুতি পর্ব সম্পন্ন হওয়ায় সন্তোষ প্রকাশ করেন। মেয়র বলেন, প্রকল্প দু’টি চট্টগ্রাম নগরবাসীর আশা-আকাক্সক্ষার অন্যতম উপাদান। বারাইপাড়া খাল খনন প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে জলাবদ্ধতা নিরসনে চলমান মেগা প্রকল্পের জন্য যথেষ্ট সহায়ক হবে। নগরীর খালের মধ্যে ৩০টি’র বেশী খাল মেগা প্রকল্পের আওতায় অন্তর্ভূক্ত। অবশিষ্ট খালগুলো পুনরুদ্ধার ও খনন করা সম্ভব হলে নগরীর জলাবদ্ধতা নিরসনের স্থায়ী সমাধান নিশ্চিত হবে।
এদিকে চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের নির্মাণাধীন টাওয়ারের মূলকাজেরও উদ্বোধন করবেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম। আজ শনিবার বিকালে আনুষ্ঠানিকভাবে টাওয়ারের মূল কাজের উদ্বোধন করা হবে। এছাড়া জেলা পরিষদের উদ্যোগে দারিদ্র্য নিরসন ও নারী উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় গরীব, অসহায়, দুঃস্থ প্রশিক্ষণার্থীদের মাঝে আত্মকর্মসংস্থানমূলক সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি থাকবেন তিনি।
চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা শাব্বির ইকবাল জানান, জেলা পরিষদ টাওয়ারের মূল ভবন নির্মাণ কাজের উদ্বোধন এবং দারিদ্র্য নিরসন ও নারী উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় গরীব, অসহায়, দুঃস্থ প্রশিক্ষণার্থীদের মাঝে আত্মকর্মসংস্থানমূলক সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠান শনিবার বিকালে পরিষদের অস্থায়ী কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হবে। এতে প্রধান অতিথি থাকবেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম এবং বিশেষ অতিথি থাকবেন স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ।
উল্লেখ্য, সম্পূর্ণ নিজস্ব অর্থায়নে করা হচ্ছে জেলা পরিষদ টাওয়ারের নির্মাণ কাজ। অনুমোদন পাওয়া ২টি ব্যাচমেন্টসহ ভবনটি হবে ১৮তলা বিশিষ্ট। ভবনের মোট আয়তন হবে (৪৪ সেডিমেল জায়গায়) প্রায় দেড় লক্ষ বর্গফুট। টাওয়ারে কোন দোকান রাখা হয়নি। দুটি পার্কিং ফ্লোর থাকবে, রাখা হয়েছে অডিটোরিয়াম। নিজস্ব ব্যবহার ছাড়াও বিভিন্ন ব্যাংক বা কর্পোরেট অফিসকে ভাড়া দেয়া হবে।
১৮৮৭ সালের ৫ এপ্রিল সৃষ্ট চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের আওতায় ১৪টি উপজেলায় জেলা পরিষদের অধীনে বিভিন্ন ধরনের উন্নয়ন মূলক ও সেবামূলক কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে।