জমি চাষ না করলেই তা খাস হয়ে যাবে না

47

পূর্বদেশ অনলাইন
জমি চাষ না করলেই তা খাস হয়ে যাবে­–এরকম খবরকে গুজব বলে উল্লেখ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ মন্ত্রিপরিষদের বৈঠকে তিনি বলেন, জমি চাষ না করলেই তা খাস হয়ে যাবে না। এটা একটা গুজব। এটা বন্ধ করার নির্দেশনা দিয়েছেন তিনি সোমবার (১৪ নভেম্বর) সকালে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে মন্ত্রিপরিষদের বৈঠক হয়। গত দুই তিনদিন আগে রংপুর থেকে ঘুরে আসার অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরে খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, সেখানে আমরা স্পষ্ট নির্দেশনা দিয়ে দিয়েছি, কারো জমি চাষ করলো না আর আমি খাস করবো—এরকম কোনো পদ্ধতি নেই। খাস করার একটা আলাদা পদ্ধতি রয়েছে।তিনি বলেন, গতকাল অনুষ্ঠিত বিভাগীয় কমিশনারদের সভায় কৃষি অধিদপ্তরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং ভূমিসচিব উপস্থিত ছিলেন। কোনো জমি খাস করার দরকার হলে প্রয়োজনীয় সব ধরনের নিয়ম মেনে করতে হবে বলে জানানো হয়। মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, জমিতে চাষ করে না আর এটা খাস করে ফেলবে—এরকম কোনো বিধান নেই। এমন একটা গুজব চারদিকে ছড়ানোর চেষ্টা করা হচ্ছে। যদি দুই-এক জায়গায় কোথাও কেউ করেও থাকে তাহলে ইতোমধ্যে নির্দেশনা দিয়ে দেওয়া হয়েছে, যেন কেউ এই ধরনের কোনো ব্যবস্থা না নেয়। মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান, ব্যক্তিমালিকানাধীন জমি কেউ চাষ করলো না এক বছর, দুই বছর বা তিন বছর—এতে খাস করার কোনো ব্যবস্থা নেই। এটা একটা গুজব। এটা সবাইকে জানাতে হবে। দুপুর দেড়টার দিকে সচিবালয়ে ব্রিফ্রিং করেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম। সচিব জানান, আগামী বছর তিন কারণে সংকট দেখা দিতে পারে বলে শঙ্কা প্রকাশ করেছে মন্ত্রিপরিষদ। আজকের আলোচনায় শঙ্কা প্রকাশ করা হয়– ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধের প্রভাব, করোনা পরিস্থিতি থেকে উত্তরণ এবং চীনের পণ্য আসা কমে যাওয়ার কারণে ২০২৩ সালে ক্রাইসিস দেখা দিতে পারে। সংকট মোকাবিলায় সবাইকে খাদ্য উৎপাদন বাড়ানোর নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বিভিন্ন শস্যের নতুন নতুন জাত উদ্ভাবনের নির্দেশ দেন। প্রধানমন্ত্রী থার্ড পার্টির কাছে না গিয়ে সরাসরি বিদেশ থেকে খাদ্যপণ্য কেনারও নির্দেশনা দেন।