জঙ্গিবাদ বিস্তারে রোহিঙ্গারা হয়ে উঠতে পারে সহজপথ

8

মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা শরণার্থীদের দ্রæত সময়ে নিজের দেশে না ফেরালে তাদের ঘিরে ‘সহজেই’ জঙ্গিবাদের বিস্তার ঘটার আশঙ্কার কথা বলেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। গতকাল শুক্রবার রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমিতে এক অনুষ্ঠানে ঢাকায় ভারতীয় হাই কমিশনার বিক্রম দোরাইস্বামীকে উদ্দেশ করে তিনি বলেন, ‘ভারতীয় হাই কমিশনার এখানে আছেন, তারা আমাদের সহযোগিতা করছেন জানি, আমরা এটুকু বলতে চাই- এই যে ১১ লাখ লোক, এখান থেকেও জঙ্গির উত্থান হতে পারে। এটা ইজি প্লে হতে পারে এই সন্ত্রাসীদের জন্য, আমরা যেটা সবসময় বলে আসছি। কাজেই এ সমস্যাটা যদি শিগগির শেষ না হয়, তাহলে হয়ত আমাদের নতুন ডাইমেশনে জঙ্গির উত্থান হয়েও যেতে পারে।’ খবর বাংলানিউজের
বৌদ্ধ সংখ্যাগরিষ্ঠ মিয়ানমারে নিপীড়নের শিকার হয়ে পালিয়ে আসা ১১ লাখ রোহিঙ্গাকে আশ্রয় ও জরুরি মানবিক সহায়তা দিয়ে আসছে বাংলাদেশ। তবে বিপুল সংখ্যক এই শরণার্থী এখন ‘বোঝা’ হিসেবে দেখছে সরকার।
মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর অভিযানে নির্যাতনের মুখে ২০১৭ সালের আগস্টে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের কথায় উঠে আসে নির্বিচারে হত্যা, ধর্ষণ, জ্বালাও-পোড়াওয়ের ভয়াবহ বিবরণ, যাকে ‘জাতিগত নির্মূল অভিযান’ বলেছে জাতিসংঘ।
আন্তর্জাতিক চাপের মধ্যে মিয়ানমার সরকার রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে ২০১৭ সালের শেষ দিকে বাংলাদেশের সঙ্গে চুক্তি করলেও সেই প্রত্যাবাসন আজও শুরু হয়নি। প্রত্যাবাসন শুরুর জন্য মিয়ানমারকে চাপ দিতে বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান জানিয়ে আসছে।
উদ্বাস্তু জীবনের অনিশ্চয়তা দীর্ঘায়িত হওয়ায় কক্সবাজারের আশ্রয় শিবিরগুলোতে রোহিঙ্গাদের মধ্যে হতাশা বাড়ছে। রাতে ক্যাম্পগুলোতে রাখঢাক ছাড়াই অস্ত্র-মাদকের ব্যবহার গা সওয়া হয়ে গেছে, খুনোখুনির ঘটনাও ঘটছে।
প্রত্যাবাসনের দাবিতে সোচ্চার রোহিঙ্গা নেতা মোহাম্মদ মুহিবুল্লাহ সম্প্রতি খুন হওয়ার পর ক্যাম্পগুলোর নিরাপত্তার বিষয়টি নতুন করে সামনে এসেছে। তাদের অপরাধপ্রবণ হয়ে পড়া নিয়ে কথা হচ্ছে আন্তর্জাতিক পর্যায়েও।
২০০৮ সালে ২৬ নভেম্বর ভারতের মুম্বাইয়ে সন্ত্রাসী হামলার বার্ষিকীতে একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি আয়োজিত অনুষ্ঠানে রোহিঙ্গাদের ঘিরে জঙ্গিবাদ বিস্তারের শঙ্কার কথা তুলে ধরেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কামাল।
ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সভাপতি শাহরিয়ার কবিরের সভাপতিত্বে অন্যদের মধ্যে আপিল বিভাগের সাবেক বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক, নির্মূল কমিটির সহসভাপতি শ্যামলী নাসরিন চৌধুরী, সংসদ সদস্য ও সমাজকর্মী আরমা দত্ত, ইনস্টিটিউট অব কনফ্লিক্ট, ল’ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজের নির্বাহী পরিচালক আবদুর রশীদ অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন।