চুয়েটে আন্তর্জাতিক কনফারেন্স শুরু বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে গবেষণায় গুরুত্ব দিতে হবে : তথ্যমন্ত্রী

6

তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার ডায়নামিক নেতৃত্বে মাত্র কয়েকদিন আগেই আমরা মধ্যবিত্ত দেশের কাতারে নাম লিখিয়েছি। স্বাধীনতা পরবর্তী গত কয়েক দশক ধরে দেশের ভৌত ও অবকাঠামোগত উন্নয়নে পুরকৌশলীরা অবদান রেখে চলেছেন। পুরকৌশলীদের ছাড়া দেশে দ্রæত এসব উন্নয়ন কর্মকাÐ সম্ভবপর হতো না। ইনোভেশন ও গবেষণা কার্যক্রমের মাধ্যমে একটি বিশ্ববিদ্যালয় দেশকে এগিয়ে নিতে অবদান রাখতে পারে। ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ার রূপরেখা নিয়ে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। এই কনফারেন্স হতে প্রাপ্ত আউটপুট দেশকে প্রযুক্তি খাতে এগিয়ে নিতে সহায়তা করবে। তিনি ৪ মার্চ সকাল সাড়ে ১০টায় চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (চুয়েট) এর পুরকৌশল অনুষদের আয়োজনে তিনদিনব্যাপী টেকসই উন্নয়নে পুরকৌশল খাতের অগ্রগতি বিষয়ক ৫ম আন্তর্জাতিক কনফারেন্সের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। করোনা ভাইরাসের কারণে এবার প্রথমবারের মত কনফারেন্সটি ভার্চুয়াল প্ল্যাটফর্মে অনুষ্ঠিত হচ্ছে।
কনফারেন্সে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী বলেন, দেশের অবকাঠামোগত উন্নয়নকে টেকসই করতে প্রকৌশলীদের ভূমিকা অনস্বীকার্য। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকারের মিশনও টেকসই উন্নয়ন। সে লক্ষ্যেই বর্তমান সরকার ডেল্টা প্ল্যান গ্রহণ করেছে। দেশের প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর টেকসই প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করার সুযোগ রয়েছে। ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য টেকসই উন্নয়ন ও টেকসই প্রযুক্তি সুফল বয়ে আনবে। বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় একাডেমিশিয়ান, গবেষক ও ইন্ডাস্ট্রির মাধ্যমে যৌথভাবে কাজ করতে হবে। ২০৪১ সালে আমরা বৈষম্যহীন একটি উন্নত বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছি।
চুয়েটের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বলেন, বাংলাদেশে বর্তমানে চলমান মেগা প্রজেক্ট ও অন্যান্য অবকাঠামোগত উন্নয়ন কর্মকাÐে পুরকৌশলীদের প্রত্যক্ষ অবদান রয়েছে। দেশে এসব উন্নয়নকে টেকসই করতে হলে বিদেশি প্রকৌশলীদের নির্ভরতা কমাতে হবে। চুয়েটের পুরকৌশল বিভাগ ইতোমধ্যে দেশ-বিদেশে তাদের সক্ষমতার প্রমাণ দিয়ে যাচ্ছে। সম্প্রতি একমাত্র পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে চুয়েটের সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ আন্তর্জাতিক অ্যাক্রিডিটেশন অর্জন করেছে।
কনফারেন্স চেয়ার এবং পুরকৌশল বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ড. সুদীপ কুমার পালের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন পুরকৌশল অনুষদের ডীন অধ্যাপক ড. মো. রবিউল আলম। শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন কনফারেন্স সেক্রেটারি অধ্যাপক ড. বিপুল চন্দ্র মÐল। পুরকৌশল বিভাগের সহকারী অধ্যাপক শ্যামল আচার্যের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য দেন রয়্যাল সিমেন্টের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আবুল মনসুর এবং বিএসআরএম’র সেলস অ্যান্ড মার্কেটিং বিভাগের প্রোডাক্ট ম্যানেজমেন্ট ম্যানেজার মো. তাজুল ইসলাম। বিজ্ঞপ্তি