চসিক সিডিএ’র ঝগড়ার মাঝখানে স্ল্যাব নিয়ে ঢুকে গেলেন মনজুর

60

নিজস্ব প্রতিবেদক

নগরজুড়ে খোলা ম্যানহোল, বিপজ্জনক খাল-নালা। মৃত্যু ও মৃত্যুভয় প্রতিদিন। চসিক সিডিএ’র পাল্টাপাল্টি, পারস্পরিক দোষারোপ দেখতে দেখতে যখন নগরবাসী ক্লান্ত ঠিক এ সময় এক ট্রাক স্ল্যাব নিয়ে মাঝখানে ঢুকে গেলেন সাবেক মেয়র মনজুর আলম। কার দায়িত্ব, কে এগোবে সমাধান নিয়ে এমন অবস্থায় মনজুর আলম যেন বুঝিয়ে দিলেন সামান্য কয়টা স্ল্যাবের জন্য এত বড় বড় কথা ও দায় চাপানোর দরকার নেই। কার প্রকল্প কবে শেষ হবে, কবে দুর্ভোগের সমাধান হবে তা নিয়ে দায় চাপানো, দায় এড়ানোর চেয়ে ছোট সমস্যার ছোট সমাধানে যাওয়াই শ্রেয়।
গতকাল বৃহস্পতিবার এক ট্রাক স্ল্যাব নিয়ে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) মেয়রের কার্যালয়ে উপস্থিত হন সাবেক মেয়র এম মনজুর আলম। মেয়র রেজাউল করিম চৌধুরীর সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করে অনাকাক্সিক্ষত ঘটনার জন্য গভীর দুঃখ প্রকাশ করেন এবং জরুরি ভিত্তিতে সমস্ত উন্মুক্ত নালা নর্দমার উপর স্ল্যাপ স্থাপন করার জন্য মেয়রের প্রতি অনুরোধ জানান।
এ সময় মনজুর আলম চট্টগ্রাম এর সকল সেবা সংস্থাকে একযোগে নগর উন্নয়নে কাজ করার জন্য আহব্বান জানান। যাতে করে ভবিষ্যতে নগরবাসীর জানমালের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা যায়। বর্তমান মেয়রের সাথে সাক্ষাতকালে সাবেক মেয়র মোহাম্মদ মনজুর আলমের ব্যক্তিগত প্রতিষ্ঠান মোস্তফা হাকিম গ্রুপের পক্ষ থেকে জরুরি ভিত্তিতে উন্মুক্ত নালা-নর্দমাসমূহে স্থাপনের জন্য এক ট্র্যাক স্ল্যাপ প্রদান করেন এবং ভবিষ্যতেও চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের যে কোনো উন্নয়ন কর্মকান্ডে সার্বিক সহযোগিতা ও পাশে থাকার ইচ্ছা প্রকাশ করেন।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা শহিদুল আলম. মোস্তফা হাকিম গ্রুপের নির্বাহী পরিচালক শামসুদ্দোহা, মেয়রের একান্ত সচিব আবুল হাসেম, প্রধান প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম মানিক, অতিরিক্ত প্রধান হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা হুমায়ন কবির চৌধুরী, তত্ত¡াবধায়ক প্রকৌশলী যান্ত্রিক সুদীপ বসাক, উপ-প্রধান পরিছন্ন কর্মকর্তা মোর্শেদুল আলম প্রমুখ।