চলে গেলেন শাস্ত্রীয় সঙ্গীতশিল্পী অরুণ ভাদুড়ি

50

না ফেরার দেশে চলে গেলেন প্রখ্যাত শাস্ত্রীয় সঙ্গীতশিল্পী অরুণ ভাদুড়ি। সোমবার ভোরে কলকাতার একটি হাসপাতালে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। ফুসফুসের সমস্যা জনিত কারণে তার মৃত্যু হয়েছে। তার বয়স হয়েছিল ৭৫ বছর। ভাদুড়ি পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সঙ্গীত একাডেমির শিক্ষক ছিলেন। স্ত্রী, পুত্র ও পুত্রবধূ রেখে গেলেন গুণী এই সঙ্গীতজ্ঞ। তার মৃত্যুতে গভীর শোকে ছায়া নেমে এসেছে কলকাতার সঙ্গীত ভুবনে। সুগভীর শোক প্রকাশ করেছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ভাদুড়িকে নিয়ে মমতা বলেন, পন্ডিত অরুণ ভাদুড়ির প্রয়াণে আমি গভীর শোক প্রকাশ করছি। অরুণ ভাদুড়িকে রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে ২০১৪ সালে বঙ্গবিভূষণ সম্মান প্রদান করা হয়। তার প্রয়াণে সঙ্গীত জগতের এক অপূরণীয় ক্ষতি হলো। অরুণ ভাদুড়ির মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে সঙ্গীতশিল্পী লোপামুদ্রা মিত্র বলেন, মনটা খুব খারাপ হয়ে গেলো। আজ মনে পড়েছে কতবার বাবার সঙ্গে ঝগড়া করে অরুণদার (মাস্টারমশাই) কাছে চলে গেছি। উনি আমায় শান্ত করেছেন। গান শিখিয়েছেন। বিনিময়ে একটা টাকাও নেননি। আমি যে মঞ্চে অন্য ধারার গান গাইতাম, তাতে মাস্টারমশাইয়ের উৎসাহ ছিল বিরাট। কখনও বলেননি যে তোমার গান শাস্ত্রীয় সঙ্গীতের মধ্যেই সীমাবদ্ধ। বরঞ্চ আমার ভিন্ন প্রয়াসকে সাধুবাদ জানাতেন।