চলে গেলেন আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল

137

বরেণ্য সুরকার, গীতিকার ও সংগীত পরিচালক মুক্তিযোদ্ধা আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল আর নেই (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। সুরের মায়া কাটিয়ে চিরবিদায় নিলেন তিনি।
দীর্ঘ চার দশকের ক্যারিয়ারে দুইশর বেশি চলচ্চিত্রের সংগীত পরিচালনা করে গেছেন তিনি। ‘সব কটা জানালা খুলে দাও না’, ‘ও মাঝি নাও ছাইড়া দে ও মাঝি পাল উড়াইয়া দে’, ‘সুন্দর সুবর্ণ তারুণ্য লাবণ্য’র মত দেশাত্মবোধক গানে তার দেওয়া সুর বাংলাদেশের মানুষের বুকে চিরদিন বাজবে।
গতকাল মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর আফতাবনগরের বাসায় হার্ট অ্যাটাক হলে বুলবুলকে মহাখালীর আয়েশা মেমোরিয়াল হাসপাতালে নেওয়া হয়। কিন্তু সেখানে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন বলে গীতিকার কবীর বকুল জানান।
একুশে পদক পাওয়া এই গানের মানুষটির বয়স হয়েছিল ৬৩ বছর। দীর্ঘদিন ধরে তিনি হৃদযন্ত্রের জটিলতায় ভুগছিলেন।
হার্টে বøক ধরা পড়ায় গতবছর জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটে তার অস্ত্রোপচারও করা হয়েছিল। সে সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার চিকিৎসার দায়িত্ব নেন। হাসপাতালের চিকিৎসকরা শেষ কথা জানিয়ে দেওয়ার পর মঙ্গলবার সকালে পরিবারের সদস্যরা বুলবুলের মরদেহ নিয়ে যান আফতাবনগরের বাসায়। তার মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে দেশের সাংস্কৃতিক অঙ্গনে নেমে আসে শোকের ছায়া।
রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী এই গীতিকার- সুরকারের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছেন।
সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুছ জানান, বুলবুলের মরদেহ মঙ্গলবার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের হিমঘরে রাখা হয়। আজ বেলা ১১টায় তার কফিন নিয়ে যাওয়া হবে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে। সেখানে সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা নিবদনের আগে এই মুক্তিযোদ্ধার প্রতি জানানো হবে রাষ্ট্রীয় সম্মান।
বুলবুলের ছেলে সমীর আহমেদ জানান, বুধবার (আজ) জোহরের পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় মসজিদে তার বাবার জানাজা হবে। আসরের পর মিরপুরে বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে তাকে দাফন করা হবে। খবর বিডিনিউজের
মুক্তিযোদ্ধা বুলবুল : ১৯৫৬ সালের ১ জানুয়ারি জন্ম নেওয়া আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল একাত্তরে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশ নেন মাত্র ১৫ বছর বয়সে। তখন তিনি ঢাকার আজিমপুরের ওয়েস্টটেন্ট হাইস্কুলের ছাত্র।
আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে জামায়াতে ইসালমীর সাবেক আমীর গোলাম আযমের বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধ মামলায় সাক্ষ্য দিতে এসে সেই সময়ের ঘটনাপ্রবাহ তুলে ধরেছিলেন মুক্তিযোদ্ধা বুলবুল।
২৫ মার্চ রাতের গণহত্যা দেখার পর প্রতিরোধের সিদ্ধান্ত নেন বুলবুল ও তার কয়েকজন বন্ধু। প্রথমে বিহারিদের বাসা থেকে অস্ত্র ছিনতাই করে ছোট একটি মুক্তিযোদ্ধা দল গঠন করেন তারা। পরে জিঞ্জিরায় মুক্তিযোদ্ধাদের ঘাঁটি তৈরি করেন।
সেখানে পাকিস্তানি বাহিনীর আক্রমণে টিকতে না পেরে ঢাকায় ফিরে আসেন বুলবুল। জানতে পারেন বড় ভাই ইফতেখার উদ্দিন আহমেদ টুলটুল মুক্তিযোদ্ধাদের গেরিলা দল ক্র্যাক প্লাটুনে যোগ দিয়েছেন। পরে বড় ভাইয়ের কাছ থেকে পাওয়া গ্রেনেড নিয়ে জুলাই মাসের মাঝামাঝি সময়ে নিউ মার্কেটের ১ নম্বর গেটে পাকিস্তানি বাহিনীর লরিতে আক্রমণ করেন বুলবুল ও তার বন্ধু সরোয়ার।
অগাস্টে ভারতের মেলাঘরে গিয়ে এক দফা প্রশিক্ষণ নিয়ে এসে ঢাকার লালবাগ এলাকায় কাজ শুরু করেন বুলবুল ও তার বন্ধু সজীব। তাদের প্লাটুনকে বলা হত ওয়াই (ইয়াং) প্লাটুন। অক্টোবরে রোজার মাসে আবার ভারতে যাওয়ার সময় কুমিল্লা এবং ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মাঝামাঝি তন্তর চেকপোস্টে পাকিস্তানি বাহিনী ও রাজাকারদের হাতে বন্দি হন বুলবুলরা চারজন।
নির্মম নির্যাতনের পর তাদের উলঙ্গ অবস্থায় বাসে করে নিয়ে যাওয়া হয় ব্রাহ্মণবাড়িয়া কারাগারে। সেই জেলখানায় অন্তত ৫৫ জন মুক্তিযোদ্ধাকে বন্দি রেখেছিল পাকিস্তানি বাহিনী।
রোজার ঈদের দিন সন্ধ্যায় ব্রাক্ষণবাড়িয়ায় পুলিশ কর্মকর্তা ছিরু ও তার ছেলেসহ ৩৯ জনকে আলাদা করে জেল থেকে বের করে এনে হত্যা করে পাকিস্তানি সেনারা। তাদের মধ্যে একজন প্রাণে বেঁচে যান।
দুই দিন পর বুলবুলদের চার বন্ধুকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া শান্তি কমিটির অফিস দানা মিয়ার বাড়িতে নিয়ে নির্যাতন চালানো হয়। সেই রাতেই সেখান থেকে পালিয়ে যান বুলবুলরা।
২০১২ সালের অগাস্টে বুলবুল ট্রাইব্যুনালে সাক্ষ্য দেওয়ার পরের বছর খুন হন তার ছোট ভাই আহমেদ মিরাজ। ২০১৩ সালের ৯ মার্চ রাতে কুড়িল ফ্লাইওভারের পাশ থেকে পুলিশ মিরাজের লাশ উদ্ধার করে।
সেই ঘটনার বিচার না পাওয়ায় হতাশা ছিল বুলবুলের মনে। ২০১৮ সালের মে মাসে এক সাক্ষাৎকারে তিনি গিøটজকে বলেছিলেন সে কথা।
ভাইয়ের বিচার পাইনি-ওটা হলো অভিমান। এটা অভিমানের বিষয়। আমি সরকারের নির্দেশেই কিন্তু ট্রাইব্যুনালে দাঁড়িয়েছি। এটা অভিমান ছিল। ..এটা তো আমি বলবই।
গানের ভুবনে চার দশক : ১৯৭৮ সালে ‘মেঘ বিজলি বাদল’ সিনেমায় সংগীত পরিচালনার মাধ্যমে চলচ্চিত্রে কাজ শুরু করেন বুলবুল। এরপর আমৃত্যু তিনি নিজেকে নিয়োজিত রেখেছিলেন সংগীতের সাধনায়।
বেলাল আহমেদের পরিচালনায় ১৯৮৪ সালে নয়নের আলো চলচ্চিত্রের সংগীতায়োজন করেন বুলবুল। ওই সিনেমার জন্য তার লেখা ‘আমার সারাদেহ খেয়োগো মাটি’, ‘আমার বাবার মুখে’, ‘আমার বুকের মধ্যেখানে’, ‘আমি তোমার দুটি চোখের দুটি তারা হয়ে’ গানগুলো সে সময় তুমুল জনপ্রিয়তা পায়।
এর পরের চল্লিশ বছরে মরনের পরে, আম্মাজান, প্রেমের তাজমহল, অন্ধ প্রেম, রাঙ্গা বউ, প্রাণের চেয়ে প্রিয়, পরেনা চোখের পলক, তোমাকে চাই, লাভ স্টোরি, ভুলোনা আমায়, আজ গায়ে হলুদ, লাভ ইন থাইল্যান্ড, আন্দোলন, মন মানে না, জীবন ধারা, সাথি তুমি কার, হুলিয়া, অবুঝ দুটি মন, ল²ীর সংসার, মাতৃভূমি, মাটির ঠিকানাসহ দুইশ শতাধিক চলচ্চিত্রের সংগীত পরিচালনা করেন বুলবুল।
প্রেমের তাজমহল সিনেমার জন্য তিনি ২০০১ সালে এবং হাজার বছর ধরে সিনেমার জন্য ২০০৫ সালে শ্রেষ্ঠ সংগীত পরিচালকের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান।
দেশের সংগীত অঙ্গনে অবদানের জন্য ২০১০ সালে সরকার আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলকে একুশে পদকে ভূষিত করে।
চলচ্চিত্রের জন্য সংগীত আয়োজনের পাশাপাশি দেশের সমকালীন শিল্পীদের নিয়ে আলাদাভাবে কাজ করেছেন বুলবুল। তার কথা আর সুরের গান নিয়ে সাবিনা ইয়াসমিন, রুনা লায়লা, সৈয়দ আবদুল হাদি, এন্ড্রু কিশোর, সামিনা চৌধুরী, খালিদ হাসান মিলু, আগুন, কনক চাঁপাসহ দেশের বহু জনপ্রিয় শিল্পীর অ্যালবাম বের হয়েছে।
‘গান, গান, গান করেই
জীবন পার করলেন’
কেমন ছিলেন সুর¯্রষ্টা আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল? মৃত্যুদিনে সংগীতশিল্পী কনক চাঁপার বয়ানে ফুটে উঠলো গানপাগল সেই মানুষটির অন্তর্জগত।
অসংখ্য কালজয়ী বাংলা গানের সুর¯্রষ্টা ও সংগীত পরিচালক আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল আর আমাদের মাঝে নেই। তার চিরপ্রস্থানে শোকের হাওয়া বইছে সারাদেশে। সংগীতশিল্পী কনক চাঁপা তার কণ্ঠে আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলের অসংখ্য গান ধারণ করেছিলেন। তার সংগীত জীবনে প্রতিষ্ঠার পেছনেও এক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলেন আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল। তার গানেই জীবনের অধিকাংশ পুরস্কার পেয়েছেন তিনি। পেয়েছেন শ্রোতাদের মনে ঠাঁই।
মৃত্যুদিনে তাই আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলকে তিনি স্মরণ করেছেন অমীয় শ্রদ্ধায়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে কনক চাঁপা এ সুর স্রষ্টাকে ‘বাংলার বুলবুল’ বলে আখ্যায়িত করে লিখেছেন, আমাদের আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল আসলে বাংলার বুলবুল। একাধারে তিনি ছিলেন শক্তিমান লেখক, সুরস্রষ্টা, এবং মিউজিক কম্পোজার। গানের জগতে তিনি ছিলেন সব্যসাচী। সারাজীবন তিনি গান নিয়ে গবেষণা করেছেন। আঞ্চলিক সুর থেকে শুরু করে আরব্য পারস্য ভারতীয় স্পেনীয় সুর নিয়ে নাড়াচাড়া করে তার সাথে নিজের ভালবাসা মিশিয়ে সুরের আবহ তৈরি করেছেন।
হাজারও গানের স্রষ্টা আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল তিন শতাধিক চলচ্চিত্রের গান তৈরি করেছেন। কালজয়ী অসংখ্য গানের স্রষ্টা তিনি। কেমন ছিলো শিল্পী আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলের অন্তর্জগত? কেমন করে গান তৈরি করতেন তিনি? তাকে কাছ থেকে দেখা কনক চাঁপার বয়ানে পাওয়া গেলো সেসব উত্তর। কনক চাঁপা লিখেছেন-
তার গানে প্রেম, বিরহ, কটাক্ষ, অনুরাগ, দেশপ্রেম, শিশুর সারল্য, সামাজিক নাটকীয়তা, বিদ্রোহ, চাওয়া মাত্রই পাওয়া যেতো। তাই ছবির গানের ফরমায়েশি জগতে তার কদর ছিল আলাদা। তার সবচেয়ে বড় সুবিধা ছিল নিজেই গান লিখতেন, তাই সুর আরও সুন্দর করে বসে যেতো। মনে হত, এই গানের সুর ও কথা একসাথেই জমজ হয়ে জন্ম নিয়েছে! তিনি আসলে একজন স্বভাবকবি ছিলেন। মুখে মুখে গান বানানোর অসম্ভব দক্ষতা তার ছিল। একই সাথে নিজের সৃষ্টিকে অবহেলা করার দারুণ স্পর্ধা ও ছিল। গান রেকর্ড হয়ে গেলে সে লেখা তিনি ছিঁড়ে ফেলতেন। আমরা আপত্তি জানালে বলতেন, আমার গান আমি কেনো সংগ্রহ করবো। গান ভালো হলে কালের প্রবাহেই তা জমা থাকবে।
ব্যক্তিগত জীবনে বোহেমিয়ান টাইপ মানুষটা নিজের জন্য কিছুই করেন নাই। গান, গান, গান করেই জীবন পার করলেন। জীবনের প্রথম দিকে বেহালা গিটার বাজাতেন, মাঝ বয়সে এসে সেগুলোকেই আবার নতুন করে শেখার জন্য কি প্রচেষ্টাই না ছিলো তার! কিন্তু নিজেকে আরও জ্ঞানের গভীরে নিতে নিজেই নিজের শিক্ষক ছিলেন।
শিল্পী হিসেবে কনক চাঁপার উত্থান নব্বই দশকে। এদিকে তারও প্রায় দুই দশক আগে থেকে সংগীতজগতে সদর্পে বিচরণ করছেন। অসংখ্য জনপ্রিয় গানের কণ্ঠশিল্পী কনক চাঁপা জানালেন, তার সংগীতজীবনে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পেছনে আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলের অবদান ছিলো সবচেয়ে বেশি। কনক চাঁপার কণ্ঠ শুনে তিনি নিজেই খুঁজে বের করেছিলেন তাকে-
ভালো কণ্ঠের জন্য তিনি শিল্পী খুঁজে বেড়াতেন আজীবন। আমাকে তিনিই নিজে খুঁজে বের করেছিলেন। ৯২ সালের কথা, একটা অনুষ্ঠানে কণ্ঠশিল্পী শাকিলা আপা বললেন, কনক, বুলবুল ভাই তোকে খুঁজছেন, তাড়াতাড়ি যোগাযোগ কর। এরপর উনিই আবার ফোন দিলেন। পয়লা গান ছিলো ‘সাদা কাগজ এই মনটাকে তোমার হাতে তুলে দিলাম’, মিলু ভাইয়ের সাথে ডুয়েট। সেদিনই বুলবুল ভাই বললেন, ভাবী, ইনশাআল্লাহ অনেক গান হবে, আপনাকে এমন জায়গায় নিয়ে যাবো যে কখনো পিছনে তাকাতে হবে না!
কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে কনক চাঁপা বলেন, সত্যিই সেদিন থেকেই আমার আর অবসর ছিলো না। বুলবুল ভাই মাসে গড়ে প্রায় দশটা ছবি হাতে নিতেন এবং তার বেশির ভাগ গান আমাকে দিয়েই গাওয়াতেন। নিজে অনেক গবেষণা করতেন কিন্তু গানের কন্ঠের ব্যাপারে নির্ভরশীল হতে চাইতেন। এরপর আসলেই আমাকে পেছনে তাকাতে হয়নি। প্রায় প্রতিটি গানই মাইল ফলক হয়ে যাচ্ছিল। তার গানেই প্রায় সব পুরস্কার পাওয়া আমার! তার প্রতি আমার কৃতজ্ঞতার শেষ নেই।
মৃত্যুর আগে শেষ কথপোকথনেও কনক চাঁপার কণ্ঠে নিজের গান শুনতে চেয়েছিলেন বুলবুল। কনক চাঁপা লিখেছেন, ক’দিন আগে তিনি যখন অসুস্থ হলেন, খোঁজ নিতে ফোন দিলাম, তখন গানপাগল মানুষটা সব কথা বাদ দিয়ে বললেন, ভাবী, অনেক সাধনার পরে গানটি ধরেন তো! আমি ভ্যাবাচ্যাকা খেতেই আমার হাজবেন্ড বললেন গাও, আমি আরও বিপদে পড়তেই বুলবুল ভাই, গানটি নিজেই শুরু করলেন। আমি তার সাথে গলা মিলিয়ে পুরো মুখটি গাইলাম! হঠাৎ উনি আমাকে অনেক দোয়া করলেন! আমি হচকচিয়ে গেলাম। এটাই আমার ওনার সাথে শেষ কথা। পরিচয়ের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত ওনার দোয়া পেয়ে গেলাম, সাথে পেলাম অসংখ্য অনবদ্য গান, যা আমার জীবনের শ্রেষ্ঠ অর্জন।
মুক্তিযোদ্ধা আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল অংসখ্য জনপ্রিয় দেশাত্মবোধক গান সৃষ্টি করেছেন। গানের কথায় দেশকে তুলে ধরতে জুড়ি ছিলো না তার। কনকচাঁপার ভাষ্যে, অসম্ভব সাহসী মুক্তিযোদ্ধা সারাজীবন তার গানেও অপার দেশপ্রেম, দ্রোহ, প্রতিবাদ তুলে ধরেছেন। ছবির গানেও তিনি নিজে বায়না করে দেশের গান ঢোকাতেন। আমি বিশ্বাস করি, আমরা পুরো জাতিই ধন্য যে আমাদের একজন ‘আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল’ আছে। আর একটি কথা আমি উচ্চকণ্ঠে বলতে চাই, ‘সব কটা জানালা খুলে দাওনা’ এই গানটি ছাড়া আর যদি কোন গানই সুর না করতেন তাহলেও বাংলাদেশ তাঁর কাছে সমান কৃতজ্ঞ থাকতো।

আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল
যুদ্ধবন্দী থেকে
শীর্ষ সুরকার
বিবিসি বাংলা

১৯৭১ সাল। রোজার মাসের ঘটনা। ১৫-বছর বয়সী কিশোর মুক্তিযোদ্ধা আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল তখন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কারাগারে বন্দী। সাতাশে রমজানের ইফতারের পর তিনি বসেছিলেন, এমন সময় কারাগারের দরজা বেশ আওয়াজ করে খুলে গেল। দরজা খোলার সাথে সাথে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর একজন অফিসার ভেতরে প্রবেশ করলেন। তিনি ছিলেন ক্যাপ্টেন আলী রেজা। ‘সে আমাদের বললো যে কাম আউটসাইড (বাইরে এসো) এবং লাইনআপ (সারিবদ্ধভাবে দাঁড়াও)। লাইনআপ করার পরে তিনি আমাদের আঙ্গুল তুলে তুলে বললেন যে এ কয়জন একদিকে থাকো, এবং এই কয়জন আরেক দিকে থাকো। ৪৩ জন মুক্তিযোদ্ধাকে আলাদা করলো এবং আমরা চারজন আলাদা।’ বিবিসি বাংলার সঙ্গে এক সাক্ষাৎকারে এভাবেই সেদিনের ঘটনা বর্ণনা করছিলেন আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল।
২০১৪ সালের জুন মাসে ‘বিবিসির সাথে গানগল্প’ অনুষ্ঠানে নিজের জীবনের নানা দিক নিয়ে কথা বলেন সুরকার, গীতিকার এবং সঙ্গীত পরিচালক আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল।
আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলের সামনে দাঁড়িয়েছিলেন একজন ব্রিগেডিয়ার, নাম সাদ উল্লাহ।
ব্রিগেডিয়ার সাদ উল্লাহর কাছে গিয়ে কিশোর বুলবুল জানতে চাইলেন, ‘কেন তাদের আলাদা করা হচ্ছে? তখন সে আমাকে ডেকে নিয়ে মাথায় হাত বুলালো কিছুক্ষণ। বললো যে তোমরা তো সাতদিন পরে ধরা পড়েছিলে। ওদের মৃত্যুদন্ড আজ কার্যকর করবো আর তোমাদেরটা কার্যকর করবো আর তিনদিন পর। সরাসরি বললো। আমি ওনাকে থ্যাংকস দিলাম। ঐ রাতটা আমি আমার জীবন থেকে কখনো ভুলতে পারবো না। অনেক হৃদয় বিদারক একটা বিষয়।’ বলছিলেন আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল।
প্রতি রাতে জেলখানা থেকে তাদের নিয়ে রাজাকার ক্যাম্পে অত্যাচার করা হতো। ওই রাতে রাজাকার ক্যাম্পে নিয়ে যাওয়ার পর আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল এবং তার আরো কয়েকজন সহযোদ্ধা পালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন।
‘আমরা চারজন ঝাঁপিয়ে পড়ে তাদের কাছ থেকে অস্ত্র ছিনতাই করেছি এবং ঐ অবস্থায় আমরা পালিয়ে গেছি।’ জানিয়েছিলেন তিনি।
সংগীত জগতে বুলবুলের উত্থান : ১৯৭০’এর দশকে বাংলাদেশ টেলিভিশনে দেশাত্মবোধক গান দিয়ে সুরকার হিসেবে যাত্রা শুরু করেন আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল। তবে তিনি নিজে কখনো গায়ক হওয়ার ইচ্ছে পোষণ করেননি। অসংখ্য জনপ্রিয় বাংলা গানের গীতিকার ও সুরকার আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল। ‘আমার স্বপ্ন ছিল যে আমি গান লিখবো। যিনি গান গান, তিনি গান গাইবেন। আমি একাধারে গান লিখবো, গান সুর করবো – এমন দুঃস্বপ্ন কখনো দেখিনি।’ এভাবেই নিজের সম্পর্কে বলেছিলেন তিনি।
‘নয়নের আলো’ সিনেমায় সঙ্গীত পরিচালনার মধ্য দিয়ে চলচ্চিত্রে আসেন আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল। ওই সিনেমার ছয়টি গানই তুমুল জনপ্রিয় হয়েছিল। এরপর থেকে আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি তাকে।
কিন্তু নয়নের আলো সিনেমায় সঙ্গীত পরিচালনার কাজ পেতে যথেষ্ট বেগ পেতে হয়েছিল আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলকে।
‘এ ছবিটি পাওয়ার যে প্রচেষ্টা আমার, সে কী বলবো? হিমালয় পর্বতের চূড়ায় উঠা আর এই ছবির কাজ পাওয়া একই কথা।’ জানিয়েছিলেন তিনি।
আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলের হাতের রেখা দেখে একজন জ্যোতিষী মন্তব্য করেছিলেন, এ হাতের মধ্যে সুরকার এবং গীতিকার হওয়ার কোন রেখাই নেই – সাক্ষাৎকারে বলছিলেন তিনি।
কিন্তু জ্যোতিষীর সেই ভবিষ্যতবাণী ভুল প্রমাণ করেছিলেন আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল। পরবর্তীতে তিনি হয়ে ওঠেন অসংখ্য জনপ্রিয় গানের সুরকার ও গীতিকার।
বাংলাদেশের কয়েকশ’ সিনেমায় তিনি সঙ্গীত পরিচালনা করেছেন। আর এসব গান দর্শকদের মাঝে ব্যাপক জনপ্রিয়তাও পেয়েছে। এক সময় তার সুর করা গানগুলো ছিল শ্রোতা-দর্শকদের মুখে-মুখে। তার লেখা এবং সুর করা অনেক জনপ্রিয় গানের শিল্পী ছিলেন রুনা লায়লা, সাবিনা ইয়াসমিন, অ্যান্ড্রু কিশোর, খালিদ হাসান মিলু, কনকচাঁপা এবং সামিনা চৌধুরী।
‘সব কটা জানালা খুলে দাও না’, ‘আমার বাবার মুখে প্রথম যেদিন’, ‘পড়ে না চোখের পলক’, ‘আমার গরুর গাড়িতে বৌ সাজিয়ে’, ‘আম্মাজান আম্মাজান’, ‘ঘুমিয়ে থাকো গো সজনী’, ‘চিঠি লিখেছে বউ আমার’, ‘জাগো বাংলাদেশ জাগো’ – এরকম অসংখ্য জনপ্রিয় বাংলা গানের সুর করেছেন তিনি।