চকরিয়ায় কলাগাছ নিয়ে বিক্ষোভ

4

চকরিয়া প্রতিনিধি

চকরিয়া উপজেলার কাকারা ইউনিয়নে পছন্দের প্রার্থী আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন (নৌকা প্রতীক) বঞ্চিত হওয়ায় তার কর্মী সমর্থকরা সড়কের পাশে কলাগাছ রোপণ করে বিক্ষোভ প্রকাশ করেছে। পরে চট্টগ্রাম কক্সবাজার মহাসড়কের জিদ্দা বাজার এলাকায় মানববন্ধন কর্মসূচি পালনের পাশাপাশি কাকারা ইউনিয়নের দরগা রাস্তার মাথায় প্রতিবাদ সমাবেশ করে তারা।
গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত এসব কর্মসূচি পালন করে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী সাহাব উদ্দিনের কর্মী সমর্থকরা।
জানা গেছে, তৃতীয় ধাপে অনুষ্ঠিতব্য কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার ১০টি ইউনিয়নের নির্বাচন আগামী ২৮ নভেম্বর অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনকে সামনে রেখে কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী বাছাই করে তার তালিকা আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে পাঠায়। তারই প্রেক্ষিতে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন বোর্ড বৈঠক করে চকরিয়া উপজেলার ১০টি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থীর বিষয়টি চ‚ড়ান্ত করে গতকাল মঙ্গলবার বেলা ১২টায় তাদের তালিকা প্রকাশ করে। ওই তালিকায় কাকারা ইউপি থেকে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী সাহাব উদ্দিনের নাম না থাকায় তার কর্মী সমর্থকরা ক্ষোভে এসব কর্মসূচি পালন করে।
বিক্ষোভ সমাবেশে দলীয় মনোনয়ন বঞ্চিত চেয়ারম্যান প্রার্থী সাহাব উদ্দিন বলেন, দীর্ঘ ২৬ বছর ধরে আমি আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে জড়িত। আমার দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে কোন ধরনের কলঙ্কের তিলক পড়েনি। স্বচ্ছ রাজনীতি করে এলাকায় জনপ্রিয় হয়ে উঠায় ইউনিয়ন বাসির দাবীর প্রেক্ষিতে আমি চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন চেয়েছিলাম। কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগ আমার মনোনয়ন যাচাই বাচাই করে আমার নামের তালিকা ১ নম্বরে স্থান দিয়ে কেন্দ্রের কাছে পাঠায়। কিন্ত আমি আজ কালো টাকার কাছে হেরে গিয়ে দলীয় মনোনয়ন বঞ্চিত হয়েছি।
চেয়ারম্যান প্রার্থী সাহাব উদ্দিন আরও বলেন, আমি আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন বঞ্চিত হলেও মানুষের ভালোবাসা থেকে বঞ্চিত হইনি। যার প্রমাণ কোন ঘোষণা ছাড়াই আমার কয়েক হাজার কর্মী সমর্থকরা মঙ্গলবার সন্ধ্যা থেকে সড়কের পাশে কলাগাছ রোপণ করে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালনের পাশাপাশি চট্টগ্রাম কক্সবাজার মহাসড়কের জিদ্দা বাজার এলাকায় মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে। আমি দলীয় মনোনয়ন বঞ্চিত হলেও আমার ইউনিয়নের বাসিন্দাদের ভালবাসা ও সম্মান রক্ষার্থে আগামী ইউপি নির্বাচনে আমি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করে যাব। এ নির্বাচনে জয়ী হয়ে নেত্রীর কাছে প্রমাণ করে দেব কাকারা ইউনিয়নের বাসিন্দাদের কাছে কত জনপ্রিয় নেতা ছিলাম।
সমাবেশ শেষে শতাধিক গাড়ির বহর নিয়ে নেতাকর্মীরা কাকারা ইউনিয়নের সড়ক প্রদক্ষিণ করে বিক্ষোভ প্রকাশ করে।