গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টিতেই ঘরে বাইরে পানি নিচু এলাকায়

12

এম এ হোসাইন

দিনভর গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টিতে গতকাল দুর্ভোগে পড়েন নগরবাসী। এ প্রবণতা আজও অব্যাহত থাকার আভাস রয়েছে। আশ্বিনের শুরুতে এমন বৃষ্টিতে চরম দুর্ভোগে পড়েন ঘর থেকে বের হওয়া মানুষ। নিচু এলাকায় উঠেছে পানি, কিছু সড়কে বন্ধ ছিল গাড়ি চলাচলও।
সকাল থেকে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টিতে নগরীর নিচু এলাকায় জলাবদ্ধতা দেখা দেয়। আগ্রাবাদ সিডিএ আবাসিক, দুই নম্বর গেইট, মুরাদপুর, কাপাসগোলা, বাদুরতলা, হালিশহর, চকবাজার, বাকলিয়া, চান্দগাঁওসহ বিভিন্ন এলাকায় নিচু সড়কগুলোতে রাস্তার উপর পানি উঠে। বৃষ্টির কারণে মুরাদপুর ও দুই নাম্বার গেইট এলাকায় সৃষ্টি হয় যানজট। বৃষ্টির পানিতে তলিয়ে যাওয়া সড়কে ওয়াসার খোঁড়াখুড়িতে সৃষ্ট গর্তে পড়ে বিকল হয়েছে অনেক গাড়ি। পথচারীদেরও পড়তে হয়েছে বিড়ম্বনায়। রবিবার সপ্তাহের প্রথম অফিসের দিন হওয়াতে বৃষ্টির মধ্যেও মানুষকে ঘর থেকে বের হতে হয়েছে। ব্যাংক, হাসপাতাল, অফিসমুখী মানুষকে হাঁটুপানি মাড়িয়ে কিংবা রিকশায় গন্তবে পৌঁছুতে দেখা গেছে।
এদিকে রবিবার বিকাল তিনটা পর্যন্ত পূর্ববর্তী ২৪ ঘণ্টায় ১৫২ দশমিক ৪ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে জানিয়ে পতেঙ্গা প্রধান আবহাওয়া কার্যালয়ের সহকারী আবহাওয়াবিদ ও পূর্বাভাস কর্মকর্তা উজ্জ্বল কান্তি পাল বলেন, আকাশ মেঘলা থেকে অস্থায়ীভাবে মেঘাচ্ছন্ন থাকতে পারে। সেই সাথে অধিকাংশ জায়গায় অস্থায়ী দমকা হওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টি বা বজ্রসহ ভারী বৃষ্টিপাত হতে পারে। চট্টগ্রাম নদী বন্দরের জন্য এক নম্বর সতর্ক সংকেত জারি করা হয়েছে।
আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, চট্টগ্রাম ও পার্শ্ববর্তী এলাকায় আকাশ মেঘলা থেকে মেঘাচ্ছন্ন থাকতে পারে। সে সাথে অধিকাংশ জায়গায় দমকা/ঝড়ো হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি/বজ্রসহ বৃষ্টি পতে পারে। তবে কোথাও কোথাও বিক্ষিপ্তভাবে মাঝারি ধরনের ভারী থেকে ভারী বর্ষণ হতে পারে। রাত ও দিনের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে। বাতাস দক্ষিণ/দক্ষিণ-পশ্চিম দিক থেকে ঘণ্টার ১০-১২ কিলোমিটার বেগে, যা অস্থায়ী দমকা/ঝড়ো হাওয়ার আকারে ৪০-৫০ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পেতে পারে।
গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টিতেও জলাবদ্ধতার জন্য চট্টগ্রাম ওয়াসা ও সিডিএ’র উন্নয়ন কাজকে দায়ী করছেন নগরবাসী। সংস্থাগুলোর সমন্বিত উদ্যোগে এ দুর্ভোগ সহজে নিরসন সম্ভব বলেও মনে করছেন তারা।
মুরাদপুর এলাকার বাসিন্দা আখতারুজ্জামান বলেন, সিডিএ জলাবদ্ধতা নিরসনের কাজ করছে। সবগুলো খাল, নালা খুঁড়ে রেখেছে। কাজের কোনো অগ্রগতি দেখা যাচ্ছে না। ৬ মাসের বেশি সময় ধরে খোলা অবস্থায় আছে। ওয়াসা রাস্তা কাটছে। কাটা রাস্তায় পানি উঠছে, গর্তে হয়ে সেখানে মানুষ পড়ছে। সিটি কর্পোরেশন কোনো কিছুতেই যেন নেই। এসব রাস্তা সংস্কার করা যেন তাদের কাজের মধ্যে পড়ে না। এমন সমন্বয়হীন কাজের জন্য কষ্ট পাচ্ছি আমরা সাধারণ মানুষ।
আজ সোমবারও বৃষ্টির অব্যাহত থাকার আভাস রয়েছে। তবে জোয়ারের উচ্চতা স্বাভাবিক থাকবে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস। আজ কর্ণফুলী নদীতে প্রথম ভাটা শুরু হবে রাত ১২টা ৪০ মিনিটে। উচ্চতা হবে ৪ দশমিক ৬৫ মিটার। দ্বিতীয় ভাটা শুরু হবে দুপুর ১২টা ৪৩ মিনিটে। উচ্চতা হবে ৪ দশমিক ৮৬ মিটার। প্রথম জোয়ার শুরু হবে সকাল ৭টা ৪ মিনিটে। উচ্চতা হবে দশমিক ৫৩ মিটার এবং দ্বিতীয় জোয়ার শুরু হবে সন্ধ্যা ৭টা ২৮ মিনিটে। উচ্চতা হবে দশমিক ৪০ মিটার।