গাছ কেটে পুকুর ভরাট করে মার্কেট নির্মাণ!

35

সীতাকুন্ড প্রতিনিধি

সীতাকুন্ডে রমজান আলী নামে ছাত্রলীগের বহিষ্কৃত সাবেক এক নেতার বিরুদ্ধে সড়ক ও জনপথের (সওজ) জায়গায় গাছ কাটা ও পুকুর ভরাটের অভিযোগ উঠেছে। এক বছরের মাথায় পুকুর ভরাট করে প্রায় ৩০ কোটি টাকার জায়গা দখল করা হয়েছে। সরকারি জায়গার বড় বড় গাছ কেটে মার্কেটও নির্মাণ করা হচ্ছে। স্থানীয়দের দাবি, সড়ক ও জনপথ বিভাগের কিছু অসাধু কর্মকর্তা ও কর্মচারীর যোগ সাজেসে এ জায়গা দখল হচ্ছে।
দখলকারী রমজান আলী উপজেলার ভাটিয়ারী ইউনিয়নের কদমরসুল সালেহ কার্পেট জাহানাবাদ এলাকার মুন্সী মিয়ার পুত্র। এক বছর আগে সড়ক ও জনপথের জায়গা দখল সংক্রান্ত বিষয়ে বিভিন্ন খবর পত্রিকায় আসার পর তাকে ভাটিয়ারি ইউনিয়ন ছাত্রলীগ থেকে বহিষ্কার করা হয়।
জানা গেছে, ভাটিয়ারির কদমরসুল জাহানাবাদে মহাসড়কের পশ্চিম পাশের সওজ’র প্রায় ৮ একর জায়গা দখল করে কিছু অংশে দোকান-ঘর ও স্ক্র্যাপ জাহাজের লোহার ডিপো বানিয়ে ভাড়া দেন রমজান।
দখলকৃত জায়গার বেশিরভাগ অংশে একটি সরকারি পুকুর ছিল। সম্প্রতি সেখানে একটি বিশাল গেট স্থাপন করে সাধারণ জনগণের চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে রাতের আঁধারে পুকুরটি ভরাট শুরু করে।
দখলকৃত জায়গায় স্ক্র্যাপ জাহাজের কাজে পরিবেশ দূষণের বিরোধিতা করেন স্থানীয়রা। এতে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। স্থানীয় চেয়ারম্যান ও পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছিলেন। এ ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই রমজান আবারও সরকারি পুকুর ভরাট শুরু করে। রাতে পুকুরে মাটি ফেলছে। গত এক সপ্তাহ ধরে পুকুরপাড়ে সরকারিভাবে লাগানো বড় বড় গাছগুলোও কেটে দোকান বানানোর প্রক্রিয়া শুরু করেন। স্থানীয়দের অভিযোগ, গত বছর সরকারি জায়গাটি দখল করেন রমজান। আর এ বছর সেই জায়গার পুকুরটি ভরাট করছেন। দখলদারিত্ব বজায় রাখতে রমজান এখন বেপরোয়া। সরকারি রাস্তায় গেট তৈরি করেন। নিজের ইচ্ছেমতো গেটটি খোলা বা বন্ধ রাখেন। তাই সাধারণ জনগণের চলাচলে মারাত্মক প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হচ্ছে। এতে ক্ষুব্ধ স্থানীয়রা।
তারা বলেন, সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের জায়গা কীভাবে রমজান আলী দখল করার সাহস পায়। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এসব সম্পত্তি উদ্ধার করে তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা না নিলে যেকোন সময় সংঘর্ষের আশঙ্কা রয়েছে।
এ বিষয়ে সওজ বিভাগের চট্টগ্রাম অঞ্চলের বিভাগীয় প্রধান পিন্টু চাকমা বলেন, আমরা বিষয়টি অবগত হয়ে প্রথমে একটি নোটিশ করেছি এবং সওজ বাদী হয়ে অভিযুক্তের বিরুদ্ধে সীতাকুন্ড থানায় একটি জিডি করা হয়েছে।