খালেদা জিয়া হবেন প্রধানমন্ত্রী, না হলে তারেক রহমান

18

ঢাকা প্রতিনিধি

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, বিএনপি ক্ষমতায় গেলে প্রধানমন্ত্রী হবেন দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। যিনি তিনবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। তার অবর্তমানে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান হবেন প্রধানমন্ত্রী।
তিনি বলেন, বিএনপি ক্ষমতায় আসলে তাদের দলের শীর্ষ নেতৃত্বের বিরুদ্ধে মামলা আইনগতভাবে প্রত্যাহার করে নেয়া হবে। এসব মামলাকে তিনি মিথ্যা মামলা হিসেবে বর্ণনা করেন।
ফখরুল বলেন, বিএনপিতে নেতৃত্বের সংকট নেই। বরং আওয়ামী লীগে নেতৃত্বের সংকট রয়েছে। আওয়ামী লীগে শেখ হাসিনা ছাড়া কেউ নেই। শেখ হাসিনা চলে গেলে কি যুদ্ধ হবে তা কেবল তারাই (আওয়ামী লীগ) বলতে পারবে।
বিএনপি ক্ষমতায় এলে কাকে সরকারপ্রধান করবে-গতকাল বুধবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এমন বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় বিএনপি মহাসচিব এসব কথা বলেন।
গতকাল বিকালে গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে মির্জা ফখরুল আরও বলেন, শেখ হাসিনা ক্ষমতায় থাকলে দেশে আর কোনো নির্বাচন হবে না। তাকে সরে যেতে হবে। পরে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন হবে। তখনই না কেবল প্রশ্ন আসবে বিএনপির ক্ষমতায় গেলে কে হবেন প্রধানমন্ত্রী।
ফখরুল বলেন, আমাদের নেত্রী তো আছেনই। আমাদের সাবেক প্রধানমন্ত্রী, যিনি তিনবার প্রধানমন্ত্রী হয়েছেন। বিরোধী দলের নেতা ছিলেন দুইবার। তিনি অবশ্যই প্রধানমন্ত্রী হবেন। তার অবর্তমানে আমাদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপার্সন তারেক রহমান প্রধান প্রধানমন্ত্রী হবেন, যদি আমরা নির্বাচনে জয়লাভ করি। খালেদা জিয়ার অবর্তমানে তারেক রহমানই বিএনপির নেতা। এনিয়ে কোন দ্বিধা কিংবা সংশয় নেই বলে মনে করে বিএনপি।
বিএনপির নেতৃত্বে নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেসব প্রশ্ন তুলেছেন সেগুলোকে ‘শিশুসুলভ’ বলেও বর্ণনা করেন বিএনপি মহাসচিব। রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে খালেদা জিয়া এবং তারেক রহমানের বিরুদ্ধে ‘মিথ্যা মামলা’ দেয়া হয়েছে বলেও মির্জা ফখরুল দাবি করেন। যাকে আপনারা পলাতক বলছেন, তিনি পলাতক নন, তিনি নির্বাসিত। মিথ্যা মামলা দিয়ে তাকে নির্বাসিত করে রাখা হয়েছে।