কোরিয়ার জালে গোলোৎসব করে কোয়ার্টারে ব্রাজিল

6

ক্রীড়া ডেস্ক

দক্ষিণ কোরিয়াকে ৪-১ গোলের বন্যায় ভাসিয়ে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছে ব্রাজিল। গতকাল বাংলাদেশ সময় দিবাগত রাত ১টায় স্টেডিয়াম ৯৭৪ এ মাঠে নামে দু’দল। ম্যাচে কোনো প্রতিরোধই গড়ে তুলতে পারেনি দক্ষিণ কোরিয়া। একক আধিপত্য বিস্তার করে ৪-১ গোলে জয় পায় সেলেসাওরা।
ম্যাচের শুরু থেকেই লম্বা পাসে আক্রমণ করার চেষ্টা করে ব্রাজিল। প্রথম অ্যাটাক থেকেই গোলের দেখা পায় ব্রাজিল। ম্যাচের ৭ মিনিটে বাম দিক থেকে সাজানো আক্রমণে ওঠে ব্রাজিল। রাফিনহার বাড়ানো বল পায় ডি বক্সের ফাঁকায় দাঁড়িয়ে থাকা ভিনিসিয়াস জুনিয়র। ঠান্ডা মাথায় অসাধারণ শটে বল জালে জড়ান তিনি। তার গোলে ম্যাচের শুরুতেই লিড পায় ব্রাজিল।
ম্যাচে এগিয়ে গিয়ে আরও আক্রমণে ধার বাড়ায় ব্রাজিল। ১৩তম মিনিটে বক্সের মধ্যে রিচার্লিসনকে ফাউল করেন দক্ষিণ কোরিয়ার জুং উ ইয়ং। পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। নেইমারের স্পট কিকে ব্যবধান দ্বিগুন হয়।
ম্যাচের ১৬ মিনিটে ডি বক্সের বাইরে থেকে আচমকা শট করেন হাওয়াং হিচান। তবে তা অসাধারণ শটে দলকে রক্ষা করেন অ্যালিসন বেকার। এরপর নিজদের মধ্যে বলের নিয়ন্ত্রণ রেখে আক্রমণে ওঠার চেষ্টা করে ব্রাজিল। অন্যদিকে কাউন্টার অ্যাটাক নির্ভর ফুটবল খেলতে থাকে দক্ষিণ কোরিয়া।
২৮ মিনিটে কর্নার পায় ব্রাজিল। কর্নার থেকে ফিরতি বলে থিয়াগো সিলভার পাস থেকে বল পেয়ে জালে জড়ান রিচার্লিসন। তার গোলে তিন গোলের লিড পায় ব্রাজিল। এরপর ম্যাচের ৩২ মিনিটে আক্রমণে যায় দক্ষিণ কোরিয়া। বাম দিক থেকে বল নিয়ে ডি বক্সে ঢুকে শট করেন হাওয়াং হিচান। তবে তা আবারও সেভ করেন অ্যালিসন বেকার।
৩৪ মিনিটে ডি বক্সের বাইরে থেকে শট করেন ক্যাসেমিরো। তবে তা চলে যায় পোস্টের বাইর দিয়ে। ম্যাচের ৩৬ মিনিটে আবারও গোলের দেখা পায় ব্রাজিল। কাউন্টার অ্যাটাক থেকে ভিনিসিয়াস জুনিয়রের পাস থেকে বল জালে জড়ান লুকাস পাকুয়েতা। তার গোলে ম্যাচে চার গোলে এগিয়ে যায় ব্রাজিল।
বিরতি থেকে ফিরেই আক্রমণে যায় দক্ষিণ কোরিয়া। ম্যাচের ৪৬ মিনিটে কাউন্টার অ্যাটাক থেকে বল পেয়ে শট করেন হিউং মিন সন। তবে আরও একবার অসাধারণ সেভে নিজেদের জাল অক্ষত রাখেন অ্যালিসন বেকার। ম্যাচের ৫০ মিনিটে বাম দিক থেকে ব্রাজিল আক্রমণে ওঠে। তবে তা কাজে লাগাতে পারেনি তারা।
৪ মিনিট পর সাজানো আক্রমণ থেকে ডি বক্সের ভেতরে বল পেয়ে শট করেন রাফিনহা। তবে তা অসাধারণ সেভ করে দলকে এই যাত্রায় রক্ষা করেন কিম সেঙ্গু। দুই মিনিট পর ডি বক্সের বাইরে থেকে ফ্রি কিক পায় ব্রাজিল। সেখান থেকে রাহিনহার নেওয়া শট মানব দেওয়ালে লেগে চলে যায় পোস্টের বাইর দিয়ে।
৬৮ মিনিটে জোড়ালো শট করেন হাওয়াং হিচান। তবে আবারও ত্রাতা হয়ে আসেন অ্যালিসন বেকার। অসাধারণ সেভে বিপদ মুক্ত করেন তিনি। ৮ মিনিট পর এক গোল শোধ করে দক্ষিণ কোরিয়া। ডি বক্সের বাইরে থেকে জোড়ালো শটে বল জালে জড়ান পাইক সেউং-হো।
ম্যাচের ৮০ মিনিটে আবারও আক্রমণে যায় দক্ষিণ কোরিয়া। ডি বক্সের ভেতর থেকে হাওয়াং হিচানের নেওয়া শট আবারও রুখে দেন অ্যালিসন বেকার। ম্যাচের ৮৫ মিনিটে গোলরক্ষকের ভুলে গোলের সুযোগ পায় ব্রাজিল। তবে গোল করতে ব্যর্থ হয় তারা।
ম্যাচের ৮৯ মিনিটে মার্টিনেল্লির বাড়ানো পাসে উড়ন্ত শট করেন দানি আলভেস। তবে তা ডিফেন্ডারের গায়ে লেগে প্রতিহত হয়। এরপর বেশ কিছু আক্রমণ করেও গোল করতে ব্যর্থ হয় দু’দল। শেষ পর্যন্ত আর কোন গোল না হলে ৪-১ গোলের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে ব্রাজিল। এই জয়ে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করলো পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা। সেইসঙ্গে বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নেয় দক্ষিণ কোরিয়া।