কাঁচা মরিচের কেজি ৩০০ টাকা!

6

নিজস্ব প্রতিবেদক

দফায় দফায় বেড়েছে কাঁচা মরিচের দাম। কয়েক সপ্তাহের ব্যবধানে নিত্যপ্রয়োজনীয় এই পণ্যটির দাম বেড়েছে দ্বিগুণ। হঠাৎ বৃদ্ধিতে বিপাকে পড়েছেন ক্রেতারা। গতকাল শুক্রবার রেয়াজউদ্দিন বাজারে মরিচের প্রতি বস্তা (৫ কেজি) ১১’শ টাকায় বিক্রি হয়েছে। সে হিসেবে পাইকারিতে প্রতিকেজি মরিচ বিক্রি হচ্ছে ২২০ টাকায়। আর খুচরা বাজারে পণ্যটির কেজিতে দাম ঠেকেছে ৩০০ তে। খুচরা বাজারে ২৫০ গ্রাম কাঁচা মরিচ বিক্রি হচ্ছে ৭৫ টাকায়।
বিক্রেতারা বলছেন, আমদানি কম থাকায় কাঁচামরিচের দাম বেড়ে গেছে। বিক্রেতারা জানান, ভারত থেকে মরিচের আমদানি কমে গেছে। আর বৃষ্টির কারণে অনেক মরিচ নষ্ট হয়েছে। এ কারণে সরবরাহ কমে গেছে। আমরাও বাড়তি টাকায় আড়ত থেকে মরিচ কিনছি।
ক্রেতারা জানান, তিন সপ্তাহ আগেও ১৪০ টাকা কেজিতে মরিচ কিনেছি। গতকাল (বৃহস্পতিবার) রাতে ছিল ২৪০ টাকা। আর আজ ৩০০ টাকা। ভাবতেই অবাক লাগে।
এদিকে সবজির দামও খুব একটা নিয়ন্ত্রণে আসেনি। বাজারে প্রতিকেজি শসা ৬০, বেগুন ৬০ টাকা, ঢেড়শ ৩০, পেঁপে ২৫, করলা ৫০, পটল ৩০, কাঁকরোল ৩০, লাউ ৩৫, চাল কুমড়া ৩০, মিষ্টি কুমড়া ৪০ এবং কচুর লতি, ঝিঙা ও মূলা ৫০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। মাছ-মাংসও বিক্রি হচ্ছে আগের দরেই। মাঝারি আকারের ইলিশ কেজিপ্রতি ১ হাজার টাকা ও বড় আকারের ইলিশ ১২’শ থেকে ১৫’শ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। তাছাড়া প্রতিকেজি রুই-কাতলা ৩৫০, শিং মাছ ৫৫০, পাবদা ৫০০, চিংড়ি ৬৫০, কৈ ২৪০, বোয়াল ৪’শ, সিলভার কার্প ২০০, সমুদ্রের কোরাল ৪০০, মাগুর ৬০০ ও পাঙ্গাস ১৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।
বাজারে প্রতিকেজি ব্রয়লার মুরগি ১৬০ থেকে ১৬৫ টাকা, সোনালী মুরগি ৩০০ ও লেয়ার ২৭০ থেকে ২৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। তাছাড়া প্রতিকেজি গরুর মাংস ৭০০ ও খাসির মাংস ৯০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।