কর্ণফুলীতে বিলুপ্ত প্রজাতির তক্ষক উদ্ধার, আটক ১

7

কর্ণফুলী থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে বিরল ও বিলুপ্ত প্রজাতির দুটি তক্ষক উদ্ধার করেছে। এসব বন্যপ্রাণি পাচারের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে আটক করা হয়েছে ঢাকা জেলার কেরানিগঞ্জ থানার বটতলী গ্রামের বাসিন্দা মৃত সিরাজুল হকের পুত্র হাজী মোহাম্মদ মনিরুল হক (৬০) নামের একজনকে। গতকাল মঙ্গলবার ভোররাতে কর্ণফুলী থানা পুলিশ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে তক্ষক দুটি উদ্ধার করে। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে মনিরুলকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এরপর গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় চট্টগ্রাম দক্ষিণ বন বিভাগের পটিয়া রেঞ্জ কর্মকর্তার কাছে হস্তান্তর করা হলে তারা শ্রীমাই বিটের পাহাড়ি জঙ্গলে নিয়ে তক্ষক দু’টি অবমুক্ত করেন।
জানা গেছে, পার্বত্য বান্দরবান থেকে মনিরুল দুইটি তক্ষক নিয়ে ঢাকায় ফিরছিলেন। কর্ণফুলী থানা পুলিশ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে চেক পোস্ট এলাকায় অভিযান চালায়। এ সময় পুলিশ হাতেনাতে বিরলপ্রজাতির দুইটি তক্ষক উদ্ধার করে। প্রাণি দুটির ওজন ১৫০ গ্রামের বেশি। মনিরুলের দাবি- তিনি বান্দরবানে একজনের কাছ থেকে টাকা পেতেন। ওই ব্যক্তি তাকে টাকার পরিবর্তে তক্ষক দুটি দিয়েছেন।
সিএমপির সহকারি পুলিশ কমিশনার (কর্ণফুলি জোন) মোহাম্মদ ইয়াসিন আরাফাত জানান, বান্দরবান পাহাড়ি এলাকা থেকে তক্ষক দুটি পাচারের সময় উদ্ধার করা হয়েছে। কর্ণফুলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহিনা সুলতানা জানান, তক্ষক উদ্ধারের ঘটনায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারের মাধ্যমে একজনকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। পরে বন্যপ্রাণিটি অবমুক্ত করার জন্য বন বিভাগকে দেওয়া হয়েছে।
দক্ষিণ বন বিভাগের পটিয়া রেঞ্জ কর্মকর্তা মিজানুর রহমান জানিয়েছেন, বিরল প্রজাতির বন্যপ্রাণি তক্ষক উদ্ধারের পর ম্যাজিস্ট্রেটের নির্দেশে গহীন পাহাড়ে অবমুক্ত করা হয়েছে।