করোনা মোকাবেলাই সহযোগিতা প্রদান

49

 

চন্দনাইশ
১৪ আসনের সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম চৌধুরী:
গত ৩ এপ্রিল সকালে চট্টগ্রাম- ১৪ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব নজরুল ইসলাম চৌধুরীর পক্ষ থেকে চন্দনাইশে কর্মরত হকারদের মাঝে চন্দনাইশ প্রেসক্লাবের মাধ্যমে নগদ অর্থ বিতরণ করা হয়। এসময় চন্দনাইশ প্রেসক্লাবের সভাপতি মোঃ দেলোয়ার হোসেন, সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ এরশাদ, অর্থ সম্পাদক মো. শাহাদাত হোসেন, যুগ্ম সাংগঠনিক সম্পাদক সৈকত দাশ ইমন, নির্বাহী সদস্য ফয়সাল চৌধুরী, মো. মাইনুদ্দিন, জাহাঙ্গীর আলম চৌধুরী, দোহাজারী সংবাদ বিতানের নুরুল আমিন, গাছবাড়িয়ার মিজানুর রহমান, মানিক কান্তি দাশ, হকার মো. জাফর, লোকমান হাকিম, বাবুল সিকদারসহ নেতৃবৃন্দ।
চন্দনাইশ উপজেলা যুবলীগ :
উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক মুরিদুল আলম মুরাদের নিজস্ব অর্থায়নে বরকল এলাকায় হত দরিদ্র ২’শ পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রি বিতরণ করা হয়। এসময় তিনি প্রতি পরিবারে ১০ কেজি করে চাল কানাইমাদারী, পাঠানদন্ডি, সুচিয়া, বড়ুয়াপাড়াসহ বিভিন্ন এলাকায় ঘরে ঘরে পৌছে দেন। এসময় যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক মুরিদুল আলম মুরাদের সাথে উপস্থিত উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ের নেতৃবন্দ।
হাশিমপুর মাষ্টারবাড়ি একতা সংঘ :
উপজেলার হাশিমপুর মাষ্টারবাড়ি একতা সংঘের উদ্যোগে হাশিমপুর এলাকায় ১’শ পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রি বিতরণ করা হয়। মাষ্টার বাড়ি একতা সংঘের পক্ষ থেকে ৫ কেজি চাল, ১ কেজি পেয়াজ, ১ কেজি চিনি, ২ কেজি আলু, ১ লিটার তেল, ১ কেজি লবণ, ১ কেজি ডালসহ শুকনো খাদ্য সামগ্রি বিতরণ করা হয়। বিতরণকালে সংগঠনের নেতৃবৃন্দের মধ্যে কমরেড আবদুল নবী, সাইফুল ইসলাম শিপন, জামাল উদ্দীন, নুরুল কবির, জাহাঙ্গীর আলম, মোরশেদুল আলম, মো. আরিফ, মাষ্টার বখতিয়ার উদ্দীন, আবু ইউসুফ, আরফাতুর রহমান, আবু সাইদসহ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
মো. কলিম উদ্দিন :
উপজেলার বৈলতলী এলাকার বিশিষ্ট ব্যবসায়ী কলিম উদ্দিনের নিজস্ব তহবিল থেকে উপজেলার বৈলতলী এলাকার হতদরিদ্র জনগোষ্টি, রিকসা চালক, দিনমজুর শ্রেণির ৫’শ পরিবারে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়। এ সময় তার সাথে উপস্থিত ছিলেন সাবেক ইউপি সদস্য মো. সায়েম, দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগ নেতা মো. মামুন, যুবলীগ নেতা নাজির উদ্দিন ভূঁইয়া প্রমুখ। খাদ্য সামগ্রী বিতরণ কালে কলিম উদ্দিন বলেছেন, এলাকার হতদরিদ্র জনগোষ্টির পাশে এ সময়ে এসে তাদের খাদ্য সমস্যা সামধানে বিত্তবানদের এগিয়ে আসতে হবে। সারা দেশে করোনাভাইরাসের কারণে সরকার যানবাহন চলাচল পর্যন্ত বন্ধ করে দিয়েছেন। ফলে সাধারণ মানুষ কর্মাক্ষম হয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে। এ সময় সরকারের পাশাপাশি এলাকার বিত্তবানদের এগিয়ে এসে তাদের পাশে দাঁড়ানো আহবান জানান।
কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেতা :
বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কার্য্যনির্বাহী কমিটির সাবেক কৃষি বিষয়ক উপ-সম্পাদক মীর মো. মহিউদ্দিনের নিজস্ব অর্থায়নে চন্দনাইশের হতদ্ররিদ্র জনগোষ্টির জন্য ১ হাজার পিস সার্জিক্যাল মাস্ক, ১ হাজার পিস হ্যান্ড গ্লাভস উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট হস্তান্তর করেন। গত ৫ এপ্রিল সকালে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইমতিয়াজ হোসেনের কার্যালয়ে কেন্দ্রী আওয়ামী যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ ও সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিলের পক্ষ থেকে এ সামগ্রী বিতরণ করা হয়। এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক মুরিদুল আলম মুরাদ, যুবলীগ নেতা দিদারুল হক দস্তগীর, ফরুক আহমদ, সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, মহানগর ছাত্রলীগ নেতা বোরহান উদ্দিন গিফারী প্রমুখ।
মক্কা আওয়ামী লীগের সভাপতি :
গত ৩ এপ্রিল চন্দনাইশ পৌরসভার বিভিন্ন এলাকায় মক্কা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোজাম্মেল হকের অর্থায়নে ৫’শ পরিবারে খাদ্য সামগ্রি বিতরণ করা হয়। চন্দনাইশ পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ডে হত দরিদ্র জনগোষ্টির মাঝে ৫ কেজি, ২ কেজি আলু, ১ কেজি ডাল, ১ লিঃ সয়াবিন তেল, ১ কেজি পেঁয়াজসহ প্রতি পরিবারে খাদ্য সামগ্রি বিতরণ করা হয়। খাদ্য সামগ্রি বিতরণকালে উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক এসএম মুছা তছলিম, মক্কা আ’লীগের সভাপতি মোজাম্মেল হকের বড় ভাই আবদুল জব্বার, ফেরদৌস ওয়াহিদ, খায়েরুল বশর, যুবলীগ নেতা নাছির উদ্দীন, ইফতেখারুল হক চৌধুরী মাহিন, মুজিবুর রহমান, মাইনুদ্দিন বাচা প্রমুখ।
দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগ নেতা :
বাংলাদেশ ছাত্রলীগ দক্ষিণ জেলা শাখার সহ-সভাপতি মো. মামুনের নিজস্ব অর্থায়নে উপজেলার বৈলতলী এলাকায় বিধবা, হতদরিদ্র, খেটেখাওয়া মানুষের মাঝে চাল,ডালসহ নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়। গত ৫ এপ্রিল সকালে প্রতিটি পরিবারের জন্য ৫ কেজি চাল, ১ লিটার তেল, ২ কেজি আলু, ১ কেজি ডাল, ১ কেজি লবণ, ১টি সাবান বিতরণ করা হয়। এ সকল খাদ্য সামগ্রী দিনমজুর, হতদরিদ্র ও বিধবাদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে পৌছে দেয়া হয়। এ সময় মো. মামুনের সাথে উপস্থিত ছিলেন যুবলীগ নেতা মো. সেলিম উদ্দিন, ছাত্রলীগ নেতা যথাক্রমে হামিদুল ইসলাম, মো. মোক্তার, মো. মহিউদ্দিন, মিনহাজ উদ্দিন, সাবেক ইউপি সদস্য মো. সায়েম প্রমুখ।
সালমা আদিল ফাউন্ডেশন :
গত ৪ এপ্রিল সকালে সালমা আদিল ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে চন্দনাইশ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসকদের জন্য ৫০ পিস পিপিই গ্রহণ করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইমতিয়াজ হোসেন। এ সময় মিডিয়া ব্যক্তিত্ব, কংগোর অনারারী কনসাল্টেন জিয়া উদ্দিন আদিল ও সালমা আদিলের পক্ষে পিপিই হস্তান্তর করে গোলাম আজাদ শিশু। অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সহকারি কমিশনার (ভূমি) নিবেদিতা চাকমা, থানা অফিসার ইনচার্জ কেশব চক্রবর্তী, উপজেলা স্বাস্থ্য ও প.প. কর্মকর্তা ডা. শাহিন হাসান চৌধুরী, চন্দনাইশ প্রেস ক্লাবের সভাপতি মো. দেলোয়ার হোসেন।
সন্দ্বীপ :
করোনা পরিস্থিতিতে চট্টগ্রামের সন্দ্বীপ পৌরসভায় ২৫০ পরিবারকে সরকারি ত্রান বিতরণের পাশাপাশি সামাজিক সুরক্ষার ধারনা প্রদান করেছেন, পৌর মেয়র জাফর উল্লাহ টিটু। ২৫০ পরিবারকে পৌরসভা প্রাঙ্গণে নির্দিষ্ট দুরত্বের ব্যবধানে দাঁড় করিয়ে খাদ্য সহায়তা তুলে দেন তিনি। সামাজিক দূরত্বের বিষয়ে ধারণা দেয়ার জন্যই তিনি এই উদ্যোগ নিয়েছেন বলে, জানান মেয়র। গত ৫ এপ্রিল সকালে স›দ্বীপ পৌরসভার সামনে খালি প্রাঙ্গনে তিন ফিট দুরত্বে বৃত্ত এঁকে সেসব বৃত্তে সুবিধাভোগীদের দাঁড় করিয়ে খাদ্য সহায়তা তুলে দেন তিনি। এ সময় করোনার ভয়াবহতা ও সামাজিক দূরত্বের প্রয়োজনীয়তা নিয়েও সুবিধাভোগীদের সতর্ক করেন মেয়র। মেয়র টিটু বলেন, প্রথম দফায় আমরা বেশ কিছু মানুষের ঘরে ঘরে ত্রাণ পৌঁছে দিয়েছি। ত্রান দেয়ার জন্য মানুষের বাড়িতে গিয়ে আমার কিছু বাস্তব অভিজ্ঞতা হয়েছে, ত্রাণ দেয়ার সময় ত্রাণের জন্য বাড়ির ভেতর উঠানে জটলা বেঁধে যায় সাধারন মানুষজনের। যার জন্য সামাজিক দুরত্ব নিশ্চিত করা যায় না। তখন আমার মনে হলো ত্রাণ পৌঁছানোর পাশাপাশি প্রান্তিক পর্যায়ের মানুষের করোনা মোকাবেলায় সচেতন করা জরুরি। এটি যেহেতু গ্রাম এলাকা। এখানে একেক বাড়িতে অনেক লোকজন বাস করে। কোন কোন বাড়িতে শখানেক লোকও বাস করে। নিজের উদ্যোগের কথা ব্যাখ্যা করে তিনি বলেন, ‘এরা বাড়িতে থাকলেও জনসমাগমের সুযোগ কিন্তু শেষ হয়ে যাচ্ছেনা। তাই আমার মনে হলো একই স্থানে অনেক মানুষ থাকলেও সামাজিক দূরত্ব কিভাবে নিশ্চিত করা যায় সে বিষয়ে এদেরকে বার্তা দেয়া যায়। সচেতন করা যায়। সেজন্যই আমি এভাবে পৌর প্রাঙ্গনে সুবিধাভোগীদের ডেকেছি। তাদের ধারণা দেয়ার চেষ্টা করেছি সামাজিক দূরত্ব আসলে কি এবং কিভাবে এটি নিশ্চিত করা যায়। পাশাপাশি এই দূরত্ব কেন প্রয়োজন তাও উনাদের বুঝিয়ে বলেছি। উনারা এই বিষয়ে সচেতন থাকার অঙ্গীকারও করেছেন আমার কাছে।’ উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে দেয়া এই খাদ্য সহায়তা কর্মসূচির আওতায় প্রত্যেকে চাল, ডাল, পিয়াজ, তেল , আলু সহ বেশ কিছু প্রয়োজনীয় সামগ্রী পেয়েছে বলে নিশ্চিত করেন মেয়র।
রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি :
সন্দ্বীপ উপজেলায় বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি চট্টগ্রাম জেলার উদ্যোগে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে জীবাণু নাশক স্প্রে ছিটানো কার্যক্রম অনুষ্ঠিত হয়েছে। গত ৬ এপ্রিল সন্দ্বীপ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর করোনা ওয়ার্ডসহ বিভিন্ন ওয়ার্ডে এবং স›দ্বীপ মেডিকেল সেন্টার, সন্দ্বীপ সেন্ট্রাল পয়েন্ট হাসপাতাল, সন্দ্বীপ ডায়াবেটিস সেন্টারেও এই কার্যক্রম অনুষ্ঠিত হয়। এই সময় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সংলগ্ন ও এনাম নাহার মোড়ের সকল ফার্মেসীর দোকান সহ চলতি পথের বিভিন্ন গাড়িতে জীবাণু নাশক স্প্রে ছিটানো হয়। উক্ত কার্যক্রমে উপস্থিত ছিলেন যুব রেড ক্রিসেন্ট চট্টগ্রাম জেলার ক্রীয়া ও প্রচার প্রকাশনা বিভাগীয় উপ-প্রধান মো. মাহামুদুর রহমান, মুক্তদল সদস্য মো. শাকিল, শোয়াইব হোসাইন সায়িম, মো. নাহিম উদ্দিন, মাহাবুবুল আলম বাপ্পি ও আব্দুল করিম আলো। যুব রেড ক্রিসেন্ট চট্টগ্রাম জেলার ক্রীয়া ও প্রচার প্রকাশনা বিভাগীয় উপ-প্রধান মো. মাহমুদুর রহমান বলেন, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে স›দ্বীপে যুব রেড ক্রিসেন্টে সোসাইটির বিভিন্ন কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে। কোভিড-১৯ প্রতিরোধে যুব রেড ক্রিসেন্ট চট্টগ্রাম কার্যালয়ে একটি কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে। করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত যেকোন সেবা পেতে তাদের হটলাইন নাম্বারে (০১৬৭৫৬২৮৮৪২) যোগাযোগ করার জন্যে বলা হয়েছে।
সীতাকুন্ড :
চট্টগ্রামের সীতাকুন্ডে নোবেল করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) এর প্রাদুর্ভাব এর কারণে কর্মহীন, অস্বচ্ছল, দুঃস্থ ও অসহায় ঘরে থাকা মানুষদের জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মিল্টন রায়ের হাতে সোমবার দুপুরে চেক তুলে দিলেন আরফা ষ্টোরের সত্বাধিকারি আলহাজ গোলাম মোস্তফা শফি। তিনি বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশক্রমে চলমান পরিস্থিতিতে নিন্ম আয়ের মানুষদের জন্য আমি নিজ উদ্যোগে না দিয়ে সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখতে উপজেলা নির্বাহী মহোদয়কে প্রাথমিকভাবে পঞ্চাশ হাজার টাকার চেক হস্তান্তর করেছি। এ সময় উপস্থিত ছিলেন সাংবাদিক জাহেদুল আনোয়ার চৌধুরী, মেসার্স আরফা ষ্টোর পরিচালক নুরুল হায়াত ডালিম ও ব্যবস্থাপক মেহতাব উদ্দীন। মের্সাস আরফা ষ্টোর ব্রিটিশ আমেরিকান ট্যোবাকো ও গ্রামীন ফোন লিমিটেডের পরিবেশক। এ বিষয়ে উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা মিল্টন রায় বলেন, আরফা স্টোরের কর্ণধার শফি সাহেবের মত সমাজের বিত্তশালীরা এই মহুত্বে সরকারের পাশাপাশি এগিয়ে আসলে ঘরে থাকা মানুষরা কেউ অভোক্ত থাকবে না।