কমলার চেয়ে লেবুর দাম বেশি

25

একটি কমলার চেয়ে বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে একটি লেবু। কমলার হালি যেখানে ৫০ থেকে ৬০ টাকা, সেখানে বড় সাইজের এক হালি লেবুর দাম ১০০ থেকে ১২০ টাকা। অর্থাৎ খুচরা বাজারে একটি লেবু বিক্রি হচ্ছে ২৫ টাকার বেশি এবং প্রতি ডজন লেবু বিক্রি হচ্ছে ৩০০ টাকার উপরে।
এত দামের পরও বাজারে লেবুর প্রচুর চাহিদা রয়েছে। গত কয়েকদিন ধরে নগরীর বেশ কয়েকটি কাঁচাবাজার ঘুরে লেবুর দাম বাড়ার প্রবণতা লক্ষ্য করা গেছে। এর প্রভাব রমজান পর্যন্ত থাকবে বলে দাবি ব্যবসায়ীদের।
ব্যবসায়ীরা জানান, লেবুর মৌসুম না হওয়ায় এখন বাজারে যে পরিমাণ লেবুর চাহিদা রয়েছে সে পরিমাণ উৎপাদন নেই। তাই বর্তমানে দাম বাড়তি। অন্যদিকে করোনাসহ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে লেবু খেতে পরামর্শ দিচ্ছেন চিকিৎসকরা।
সরেজমিন নগরীর রিয়াজউদ্দীন বাজার গিয়ে দেখা গেছে, দেশি লেবু প্রতিটি খুচরায় বিক্রি হচ্ছে ২৫ থেকে ২৭ টাকায়। পাইকারিতে ১০০ পিস কিনলে ১৯ থেকে ২০ টাকা করে পড়ছে প্রতিটি। এক ডজন কিনলে ৩০০ হলেও হালি বিক্রি হচ্ছে ১০০ থেকে ১২০ টাকায়।
বিক্রেতা মো. মহিউদ্দিন জানান, পটিয়ার কমলমুন্সির হাট থেকে হালি ৮০ টাকা পাইকারি দরে কিনে আনছি। তার সাথে পরিবহন ও শ্রমিক খরচ যুক্ত করে প্রতিপিস ২৫ টাকায় বিক্রি করতে হচ্ছে। এর কমে বিক্রি করলে লোকসান হয়ে যাবে।
আজাদ নামে আরেক বিক্রেতা বলেন, আগে প্রতিদিন ১ বস্তা অর্থাৎ ৫০০টি লেবু আনতাম। একটাও থাকত না। আর এখন মাত্র ১০০টি লেবু আনছি। তবুও দিন শেষে দুই-তিনটি অবিক্রিত থেকে যাচ্ছে।
ফলমন্ডি ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. আলমগীর জানান, কমলাতেও প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ‘সি’ রয়েছে। অথচ মানুষ কমলা না কিনে লেবুতে ঝুঁকছে বেশি। কমলার চাহিদা কম থাকায় দামও কম। শুধু শুধু লেবুতে পড়ে না থেকে জনসাধারণকে কমলা কেনার অনুরোধ করছি।
চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেডিকেল অফিসার ডা. শহিদুল আলম বলেন, ভিটামিন ‘সি’ ফ্লু জাতীয় রোগের জন্য যথেষ্ট উপকারী। লেবুতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ‘সি’ রয়েছে। করোনা প্রতিরোধে ভিটামিন ‘সি’ এর কার্যকর ভূমিকা রয়েছে। ব্যবসায়ীরা জানান, যতদিন আবহাওয়া গরম থাকবে ততদিন লেবু’র দামও চড়া থাকবে। তবে ভালভাবে বৃষ্টি আরম্ভ হলে এ দাম অর্ধেকে নেমে আসবে।