কবিতা আর কথামালায় সিআরবি রক্ষার আবেদন

5

 

আবৃত্তি হচ্ছে প্রতিবাদের নানন্দিক ভাষা। বাংলাদেশের স্বাধীনতা-গণতান্ত্রিক সংগ্রাম থেকে শুরু করে সকল প্রগতিশীল সংগ্রাম, অধিকার আদায়ের লড়াইয়ে আবৃত্তি হয়ে উঠেছে প্রতিবাদের অন্যতম মাধ্যম। লড়াই-সংগ্রামের পুণ্যভূমি চট্টগ্রামবাসী অধিকার আদায়ের আন্দোলনে সুদীর্ঘকাল থেকে চট্টগ্রামের আবৃত্তি সংগঠনগুলো নেতৃত্ব দিয়ে আসছে। এর ধারাবাহিকতায় এবার চট্টগ্রামের ফুসফুস সিআরবি রক্ষায় তারাও কণ্ঠযুদ্ধে নেমেছেন।
৯ অক্টোবর চট্টগ্রাম সম্মিলিত আবৃত্তি জোট চট্টগ্রামের ফুসফুস সিআরবি রক্ষার আন্দোলনে একাত্মতা প্রকাশ করেছে। আবৃত্তি পরিবেশনার মধ্য দিয়ে সিআরবি রক্ষায় দৃঢ় সংকল্প ব্যক্ত করেছেন আবৃত্তিশিল্পীবৃন্দ।
বক্তারা আরো বলেন, চট্টগ্রামে সাংস্কৃতিক চর্চার প্রাণকেন্দ্র এই সিআরবি। সিআরবি যদি দখল হয়ে যায়, তবে সংস্কৃতি চর্চার ঐতিহ্যবাহী স্থানটি হারিয়ে যাবে। যা কোনভাবেই চট্টগ্রামের সর্বস্তরের মানুষ হতে দেবে না। রেলওয়ে হাসপাতালটিকে নন হ্যারিটেজ এলাকা দেখিয়ে রেলের জায়গা হাতিয়ে নেয়ার গভীর ষড়যন্ত্র চলছে বলেও জানান বক্তারা।
সম্মিলিত আবৃত্তি জোট চট্টগ্রাম এর পরিবেশনার মাধ্যমে সিআরবি রক্ষার আবেদনে আবৃত্তি করেন আলপনা বড়ুয়া, মিশু ভট্টাচার্য্য, শারমিন সুলতানা, ঐশী পাল, অনির্বাণ পাল, স্নিগ্ধা সিকদার, শাকিল আহমদ, জীবন বড়ুয়া, স্নিগ্ধা বড়ুয়া, দীপা দাশ, শামীমা ইয়াসমিন, প্রজ্ঞা পারমিতা সেন গুপ্তা, পৃথুলা চৌধুরী, বোধন আবৃত্তি পরিষদ চট্টগ্রাম, উচ্চারক আবৃত্তি কুঞ্জ, তারুণ্যের উচ্ছ্বাস, দৃষ্টি চট্টগ্রাম, বঙ্গবন্ধু আবৃত্তি পরিষদ চট্টগ্রাম, একুশ আবৃত্তি ও মানবতা কেন্দ্র, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় আবৃত্তি মঞ্চ, অঙ্গন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়, স্বপ্ন যাত্রী, আবৃত্তি আলয় বৈখরী।
সমাবেশে বক্তব্য দেন মফিজুর রহমান, বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ ইউনুস, ড. ইদ্রিস আলী, কবি হোসাইন কবির, বীর মুক্তিযোদ্ধা দেওয়ান মকসুদ, আব্দুল হালিম দোভাষ, মিঠুল দাশ গুপ্ত, ঋত্বিক নয়ন। প্রনব চৌধুরীর সঞ্চালনায় স্বাগত বক্তব্য দেন ফারুক তাহের। উপস্থিত ছিলেন মুজাহিদুল ইসলাম, হুমায়ুন কবির মাসুদ, কবি মিনু মিত্র, সাবের আহমেদ, নারায়ন দাশ, তাপস দে, বিপ্লব কুমার সেন, অনির্বাণ দত্ত, সাজ্জাদ হোসেন জাফর, মজিবুর রহমান বিপ্লব, নুরুল আজম প্রমুখ। বিজ্ঞপ্তি