উন্নয়ন প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর উদ্বোধন বান্দরবানে ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে উন্নয়ন হচ্ছে : পার্বত্যমন্ত্রী

20

বান্দরবান প্রতিনিধি
…………………..

বান্দরবানে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড ও স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) বাস্তবায়নে বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর এবং উদ্বোধন করা হয়েছে। গত রবিবার দিনব্যাপী সদর উপজেলার বিভিন্ন স্থানে প্রধান অতিথি হিসেবে এসব উন্নয়ন প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর উদ্বোধন করেন পার্বত্যমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি। উন্নয়ন প্রকল্পের মধ্যে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) বাস্তবায়নে বান্দরবান সদর উপজেলার কুহালং ইউনিয়নের চেমীডলু পাড়া থেকে কুহালং ইউনিয়ন পর্যন্ত সড়কের কার্পেটিং কাজ, কুহালং ইউনিয়নে কৃষক সেবা কেন্দ্র, চেমীমূখ আনুমিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় নির্মাণ কাজ, হলুদিয়া ভাগ্যকুল-টংকাবতী-ভায়া চিম্বুক আর এন্ড এইচ সড়ক এবং কেবি সড়ক হতে বান্দরবান বিশ্ববিদ্যালয় সড়ক কাপেটিং কাজের ভিত্তিপ্রস্তরের উদ্বোধন করেন। জানা যায়, মোট ৫টি প্রকল্পে ২৭ কোটি ৬৩ লক্ষ ৮৮ হাজার ৫শ টাকা ব্যয় করা হবে এবং এ কাজ গুলো আগামী ২০২২ সালের মধ্যে সমাপ্ত হবে। এছাড়া পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড বান্দরবান ইউনিটের বাস্তবায়নে জেলা শহরের উজানীপাড়া রাজগুরু মহা বৌদ্ধ বিহার প্রাঙ্গণে ১ কোটি টাকা ব্যয়ে বৌদ্ধ ধর্মালম্বীদের জন্য পালিটোল ভবণের নির্মাণ কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের উদ্বোধন করেন পার্বত্যন্ত্রী। পার্বত্য জেলা পরিষদের পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের ৫২ জন তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণী কর্মচারীদের নিয়োগ পত্র বিতরণ করেন। এদিকে বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে পার্বত্যমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি বলেন, পার্বত্য জেলা এখন আগের মত নেই। পার্বত্য জেলার প্রতিটি পয়েন্টে এখন উন্নয়ন কাজ চলমান রয়েছে এবং এই কাজগুলো সঠিকভাবে বাস্তবায়ন হলে পার্বত্য এলাকার আর্থসামাজিক অবস্থার আরো উন্নয়ন ঘটবে। মন্ত্রী আরো বলেন, বর্তমান সরকারের আমলে বান্দরবানের প্রতিটি মন্দির, মসজিদ, গীর্জা ও বিহারের ব্যাপক উন্নয়ন কাজ চলমান রয়েছে এবং দুর্গম এলাকার মানুষ যাতে ধর্মীয় শিক্ষায় শিক্ষিত হতে পারে তার জন্য নির্মাণ করা হচ্ছে অসংখ্য ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান। পার্বত্যমন্ত্রী বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সরকারের সুযোগ্য প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরে আজ পার্বত্য এলাকার আনাচে কানাচে মানুষ নিজ নিজ ধর্মীয় বিভিন্ন উৎসব সুন্দর ও সফল ভাবে করতে পারছে, পাশাপাশি ধর্মীয় শিক্ষা ও নৈতিক শিক্ষার উন্নয়নের জন্য বিভিন্ন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ অব্যাহত রয়েছে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আবদুল কুদ্দুস, সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রতন কুমার অধিকারী, পৌর মেয়র মোহাম্মদ ইসলাম বেবী, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান একেএম জাহাঙ্গীর, পার্বত্য জেলা পরিষদের সদস্য লক্ষীপদ দাশ, স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) এর নির্বাহী প্রকৌশলী মো. জিল্লুর রহমান, সিনিয়র সহকারী প্রকৌশলী মো. জামাল উদ্দিন, পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের প্রকল্প পরিচালক মো. আব্দুল আজিজ, নির্বাহী প্রকৌশলী আবু বিন মো. ইয়াছির আরাফাত, রেডক্রিসেন্ট সোসাইটি বান্দরবান ইউনিটের সেক্রেটারি অমল কান্তি দাশ, সুয়ালক ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান উক্যনু মারমাসহ স্থানীয় জনপ্রতিনিধিগন উপস্থিত ছিলেন।