উত্তর জেলা বিএনপির সমাবেশ

43

নগরীর নাসিমন ভবন দলীয় কার্যালয়ের সামনে বিএনপির চেয়ারপার্সন সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে বিএনপির কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে গত ৮ ডিসেম্বর উত্তর জেলা বিএনপির উদ্যোগে উত্তর জেলা বিএনপির সাবেক সহ-সভাপতি এম এ হালিমের সভাপতিত্বে এবং উত্তর জেলা বিএনপির সাবেক যুগ্ম সম্পাদক এড. আবু তাহেরের সঞ্চালনায় সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন চাকসু ভিপি নাজিম উদ্দীন, আলহাজ ছালাউদ্দিন, ইছহাক কাদের চৌধুরী, নুরুল আমিন, আলহাজ নুর মোহাম্মদ, মো. জসিম উদ্দিন সিকদার, আলহাজ সেকান্দর চৌধুরী, সেলিম চেয়ারম্যান, মো. কামাল পাশা, সালাহউদ্দীন চেয়ারম্যান, আতিকুল ইসলাম লতিফী, কাজী সালাউদ্দীন, সরোয়ার উদ্দীন সেলিম, জাবেদ হোসেন, মো. মোরছালিন, শফিউল আলম চৌধুরী, কবির চেয়ারম্যান, এস এম ফারুক, জয়নাল উদ্দীন, দুলাল, বদিউল আল বদরুল, ফারুক মাস্টার, রহমত উল্লাহ, নিজাম উদ্দীন কমিশনার, এড. রেজা নুর সিদ্দিকী উজ্জ্বল, মোছলেম উদ্দিন, জহিরুল ইসলাম জহির, সৈয়দ মো. মহসিন, সৈয়দ ইকবাল, লিয়াকত আলী, শওকত আকবর সোহাগ, নুরুল হুদা সোহেল, গাজী মোহাম্মদ হানিফ, এস এম আজিজ উল্লাহ, জুলফিকার আলী ভুট্টা, কাউসার কমিশনার, মো. শামীম, তাহের মেম্বার, মামুন মেম্বার, মো. নওশাদ, শাহাদাত বাদশা, অমলেন্দু কনক, মিথুন চৌধুরী, নুরুল আবছার, মিজানু রহমান, তাজউদ্দীন, দেলোয়ার হোসেন, ফজলুল করিম, প্রবাল দাশ, নুর উদ্দিন, মো. খোকন, আবিদুর রহমান, নাছির উদ্দীন, মনির উদ্দীন, ইসমাইল প্রমুখ। সভাপতির বক্তব্যে এম এ হালিম বলেন, দেশে আজ গণতন্ত্র নাই। বর্তমান ফ্যাসিবাদী হাসিনা সরকার দেশে বাকশাল কায়েম করছে। বেগম খালেদা জিয়াকে একটি সাজানো মাশলা আজ দুই বছর যাবৎ কারাগারে বন্দি করে রেখেছে। তাঁর সুচিকিৎসা করার সুযোগ দিচ্ছে না। বর্তমান ভোটারবিহীন সরকার, এক দলীয় শাসন কায়েম করে লুটপাট করে খাওয়ার জন্য গ্যাস, বিদ্যুৎ, পেঁয়াজ, চালসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি মানুষের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে। দুদুকের ওপর বন্দুক রেখে কিছু দুর্নীতিবাজদেরকে গ্রেপ্তার করলেও আসল মন্ত্রী, এমপি, সচিবসহ যারা দুর্নীতির মূলহোতা তাদেরকে গ্রেপ্তার করছে না।
সরকার শুধু উন্নয়ন ও জিডিপির কথা বলে বেড়াচ্ছে কিন্তু ল্টুপাট কত হচ্ছে আর জনসাধারণের মাথাপিছু ঋণ কত হচ্ছে ওগুলো বলছে না। তাই দেশের জনসাধারণকে ইচ্ছা করেই আন্দোলনের দিকে ঠেলে দিবেন না। পরিশেষে খালেদা জিয়া ও লায়ন আসলাম চৌধুরীসহ সকল রাজবন্দিদের মুক্তির দাবি জানান। আগামী দিনে খালেদা জিয়র মুক্তি আন্দোলনের যে ডাক আসবে সকল নেতাকর্মীদেরকে কাঁদে কাঁদ মিলিয়ে প্রস্তুতি নেয়ার আহবান জানিয়ে সভা শেষ করেন। বিজ্ঞপ্তি