উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে বাইডেনের প্রথম নিষেধাজ্ঞা

4

 

উত্তর কোরিয়া এক সপ্তাহের মধ্যে দু’টি ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা করার পর যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের প্রশাসন প্রথমবারের মতো দেশটির বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে। পিয়ংইয়ংয়ের অস্ত্র কর্মসূচীর জন্য রাশিয়ার প্রতিষ্ঠান পারসেক এলএলসি চীন ও রাশিয়া থেকে প্রয়োজনীয় রসদ সংগ্রহ করে, এমন অভিযোগ করে এই ফার্মটিসহ রাশিয়ার একজন নাগরিক ও ছয় উত্তর কোরীয়র বিরুদ্ধে বুধবার এ নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে ওয়াশিংটন; জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।
যুক্তরাষ্ট্রের অর্থ মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, উত্তর কোরিয়ার অস্ত্র কর্মসূচীর অগ্রগতি ও অস্ত্র প্রযুক্তির বিস্তার রোধ করাই এ পদক্ষেপের উদ্দেশ্য। যে ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে তাদের মধ্যে পাঁচ জনকে কালো তালিকাভুক্ত করতে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের কাছে প্রস্তাব রেখেছে যুক্তরাষ্ট্র, তবে এটি করতে গেলে নিরাপত্তা পরিষদের উত্তর কোরিয়া বিষয়ক নিষেধাজ্ঞা কমিটির ১৫ সদস্যের সবার সম্মতি লাগবে। গত বছর জানুয়ারিতে দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকে বাইডেন প্রশাসন পিয়ংইয়ংকে তাদের পারমাণবিক বোমা ও ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচী পরিত্যাগ করার জন্য রাজি করাতে সংলাপে বসাতে চাইলেও সফল হয়নি।
তারপরও এ উদ্দেশ্যে যুক্তরাষ্ট্র কূটনৈতিক প্রচেষ্টা চালিয়ে যাবে বলে জানিয়েছেন দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র নেড প্রাইস। যুক্তরাষ্ট্রের অর্থ মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, সেপ্টেম্বর থেকে উত্তর কোরিয়া এ পর্যন্ত যে ছয়টি ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা করেছে সেগুলোকে কেন্দ্র করে এসব নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে, ওই প্রত্যেকটি উৎক্ষেপণই জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের প্রস্তাব লঙ্ঘন করেছে। মন্ত্রণালয়টির আন্ডার সেক্রেটারি ব্রায়ান নেলসন এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন, উত্তর কোরিয়ার সেকেন্ড একাডেমি অব নেচারাল সায়েন্সেসের (এসএএনএস) প্রতিনিধি চো মায়ং শিউন রাশিয়ার ভ্লাদিভস্তকে অবস্থান করে দেশটি থেকে টেলিযোগাযোগ যন্ত্রপাতি কেনার কাজ করেন। তার বিরুদ্ধে ও তার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট রুশ নাগরিক রোমান আনাতোলিয়েভিচ ও রাশিয়ার প্রতিষ্ঠান পারসেক এলএলসির বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে। রাশিয়ার অবস্থানকারী আরেক উত্তর কোরীয় ও ইয়ং হো-র বিরুদ্ধেও নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে।