ঈদে মিলাদুন্নবী এবং কিছু শিক্ষা

13

 

সকল দিবসের শ্রেষ্ঠ দিবস ঈদে মিলাদুন্নবী (স.)। প্রত্যেক মাস কোনো না কোনো দিবসের জন্য মহিমান্বিতহয়ে থাকে। যেমন, শাবান মাস শবে বরাতের জন্য, রমযান মাস পবিত্র কুরআন নাযিলের জন্য, জিলহজমাস পবিত্র হজের জন্য। তেমনি রবিউল আউয়াল মহানবীর জন্মের জন্য। এ মাসের বারো তারিখ বিশ্ব নবী হযরত মুহাম্মদ (স.)- এর দুনিয়ায় আগমনের দিন এবং এই তারিখেই তিনি দুনিয়া থেকে বিদায় নেন। তাই ঈদে মিলাদুন্নবী (স.) আজ। তিনি মানবজাতির ত্রাণকর্তা হিসেবে তশরিফ আনেন। ঈদে মিলাদুন্নবীর শিক্ষা হোক মুহাম্মদ (স.)-এর জীবনকে অনুসরণ করা।
মুহাম্মদ (স.) দিয়েছেন বিশ্বকে সভ্যতা ও সংস্কৃতির শিক্ষা। অর্থনীতি, রাষ্ট্রনীতি, সমাজনীতি,পররাষ্ট্রনীতিসহ মানবজীবন পরিচালনার সর্বক্ষেত্রে যে নীতিমালা তিনি দিয়েছেন তা সর্বকালের মানুষের জন্য অনন্য ভাস্বর ও সবচেয়ে বেশি কার্যকর। মুহাম্মদ (স.) মানব সভ্যতার পূর্ণাঙ্গ বিকাশ ঘটান। এমনকি জ্ঞান-বিজ্ঞানের ধারা সংযোজিত হয় তখন থেকে। জ্ঞান-প্রযুক্তির ক্ষেত্রেও তিনি পালন করেন দিক নির্দেশকের ভূমিকা। আধুনিক জ্ঞান-বিজ্ঞানের সাথে নবী মোস্তফা (স.) উপস্থাপিত ইসলামী বিধানের যত মিল রয়েছে তা অন্য কোনো মতাদর্শের সঙ্গে মোটেও নেই। যে কারণে মুসলমানগণ জ্ঞান-বিজ্ঞান ও সংস্কৃতির ক্ষেত্রে প্রায় ৮শ বছর প্রাধান্য বিস্তার করেছিল, দিয়েছিলো নেতৃত্ব।
পরবর্তীতে মুসলিমশাসকদের বিলাসিতা, লোভ-লালসা, অদূরদর্শিতা এবং সর্বোপরি মুহাম্মদ (স.)- এর শিক্ষা থেকে দূরে সরে যাওয়ার কারণে ক্রমান্বয়ে পিছিয়ে পড়ে মুসলমানরা। যতদিন পর্যন্ত মুসলমানরা মহানবী (স.)- এর আদর্শকে ধারণ ও লালন না করবে ততোদিন পর্যন্ত মুসলিম জাতির দুঃখ দুর্দশা ঘুচবে না।
মুহাম্মদ (স.) এর জীবন চরিত্র-সুন্নাহ হলো আল্লাহর কুরআনের বাস্তব দিক। যারা এ সুন্নাহর পুরোপুরি অনুসরণ করবেন, এ সুন্নাহকে বাস্তবায়ন করার কাজে ব্রতী হবেন তাদের জন্যই হবে রাসূলের জন্মদিবস আনন্দের। যারা প্রতিবছর ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.)-কে কেন্দ্র করে নিজের, পরিবারের, সমাজ ও রাষ্ট্রের সার্বিক কাজ-কর্মকে রাসূলের জীবনের সাথে মিলাবেন, সে আয়নায় নিজেদেরকে দেখবেন, নিজেদের দোষ চিহ্নিত করে পরবর্তী বছরের জন্য প্রস্তুতি নেবেন তাদের জন্য হবে এ দিবস ঈদের দিন।
মনে রাখতে হবে, যে ব্যক্তি সুদ খায়, সুদদেয়, সুদি কারবার করে, ঘুষ খায়, ঘুষ দেয়, ঘুষের লেনদেনে জড়িত, যে স্বজনপ্রীতির মাধ্যমে প্রশাসনে দুর্নীতি ঢুকায়, যে ব্যবসা-বাণিজ্যে পরকে ঠকানোর ব্যবস্থা করে, যে মালিক অন্যায়ভাবে তার শ্রমিকদের ঠকায় ও শ্রমের মর্যাদা দেয় না, যে শ্রমিক কাজে ফাঁকি দেয় তার জন্য রাসূলে খোদার জন্মদিন হবে ভয়ের দিন, দুঃখের দিন। তার জন্য এ দিবস কিছুতেই ঈদ বা খুশির হতে পারে না। যে মিলাদ মাহফিলে রাসূলের জীবন চরিত্র আলোচনা হয় না, সুদ ঘুষ ও চোরাচালানির পয়সা দিয়ে যেখানে মিষ্টি হালুয়া ক্রয় করা হয়, তাদের এ মাহফিল ও পয়সা ব্যয় রাসূলের সাথে মশকরা করার মতো। যে আলেম সামান্য কিছু পয়সার বিনিময়ে রাসূলের নির্দেশিত সত্যকে গোপন রাখে, অন্যায়ের বিরুদ্ধে কথা বলে না, সামান্য দাওয়াতের জন্য সুদখোর, মদখোর, জুয়াড়ি, বে-নামাজী, খোদাদ্রোহীর সাথে সম্পর্ক রাখে, তাদের ঈদে মিলাদুন্নবী পালন হবে বনি ইসরাইলের স্বার্থান্বেষী দরবারি আলেমদের মতো যাদেরকে কুরআনে কুকুর বলে আখ্যা দেয়া হয়েছে। পবিত্র কুরআনে এরশাদ হয়েছে : তাদেরকে ঐ ব্যক্তির বৃত্তান্ত পড়ে শুনাও যাকে আমি দিয়েছিলাম নিদর্শন। সে তা বর্জন করে (তাকে নিদর্শন মুক্ত পেয়ে) শয়তান তার পেছনে লাগে, আরসে বিপথগামীদের অন্তর্ভুক্ত হয়। আমি ইচ্ছা করলে এসব (নিদর্শন) দ্বারা তাকে উচ্চ মর্যাদায় ভূষিত করতাম। কিন্তু সে দুনিয়ার প্রতি ঝুঁকে পড়ে ও তার প্রবৃত্তির অনুসরণ করে- তার অবস্থা কুকুরের ন্যায়। তার ওপর তুমি বোঝা চাপালেও সে হাঁঁপাতে থাকে আর বোঝা না চাপালেও সে হাঁপায়। যে সমপ্রদায় আমার নিদর্শনকে প্রত্যাখ্যান করে তাদের অবস্থাও এইরূপ। তুমি ঘটনা বলে দাও যাতে তারা চিন্তা করে। (সূরা আরাফ : ১৭৫-১৭৬)
তাই আজকের সমাজে বিদ্যমান সকল অন্যায়, দুর্নীতি, স্বজনপ্রীতি ও জুলুম থেকে মুক্তি পাওয়ার এবং পরিবার, সমাজ ও রাষ্ট্রকে র্শিক থেকে মুক্ত করার জন্য মুসলিম বিশ্বের ঐক্য প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে এক মাত্র পথ হলো আল-কুরআনকে আঁকড়ে ধরা, মুহাম্মদ (সা.)-এর সুন্নাহকে বাস্তবায়নের সর্বাত্মক চেষ্টা করা। তার আদর্শ বিরোধী কোনো দল, জোট-মহাজোট করা যাবে না। প্রিয়নবী মুহাম্মদ (স.) সমস্ত সৃষ্টির প্রতি দয়া করেছেন। তিনি কোনো সৃষ্টির প্রতি অবজ্ঞা অবহেলা দেখান নাই। সমস্ত ধর্মের মানুষকে তিনি মানুষ হিসেবে দেখেছেন। মানবতা আর ভালোবাসা দিয়ে প্রিয় নবী সমাজকে ভালোবেসেছেন। ধর্মের কারণে ইচ্ছে করে বল প্রয়োগ করে তিনি যুদ্ধ বাধাননি। কাফির মুশরিক যুদ্ধ বাধালে সেখানে তিনি প্রতিরোধ করেছেন। তার আদর্শ বিশ্ব মানবতার কল্যাণের জন্য। তিনি সমগ্র বিশ্ববাসীর নবী। রাহমাতুল্লিল আলামীন। তিনি সর্বশ্রেষ্ঠ মহামানব। তার সব কিছুই মানব কল্যাণে নিহিত। নবীর প্রতি সর্বাবস্থায় শ্রদ্ধাও ভালোবাসা রাখতে হবে। কোনো ইবাদত বন্দেগীতে নবীর প্রতি শ্রদ্ধা-ভালোবাসা না থাকলে সে ইবাদত গ্রহণযোগ্য হবে না। আর তাই ঈদে মিলাদুন্নবী (স.) নবীর এ চিরন্তন দাওয়াত পৌঁছানোর এবং তার সাথেভালোবাসা গড়ে তোলার মোক্ষম সময়। আসুন ঘরে ঘরে রাসূলের জীবন চরিত্র আলোচনা ও বাস্তবে তাপালনের উদ্যোগ গ্রহণ করি। ঈদে মিলাদুন্নবী থেকে আমরা যেন কিছু শিখতে পারি এটাই হোক আমাদের প্রত্যাশা।

লেখক : তরুণ কলাম লেখক