ঈদের রাতে আগুনে পুড়ে ছাই বসতঘর, ক্ষতি ৫০ লাখ টাকা

119

সন্দ্বীপ প্রতিনিধি,
ঈদের আনন্দ শেষ করে ক্লান্ত হয়ে ঘুমাচ্ছিলেন সৌদি প্রবাসি মোবারকের স্ত্রী শাহেনা। তার ঘরের পাশে ৮০বছররের বৃদ্ধা আজীজা খাতুনের ঘর। আজীজা খাতুন ঈদের দিন বিকালে আত্নীয়ের বাড়িতে যান। ঘরে ছিল না কেউ। হঠাৎ ঈদের দিবাগত রাত ৩টায় বৃদ্ধার ঘরে আগুনের লেলিহান শিখা দেখে ঘুম ভেঙ্গে যায় প্রবাসী মোবারকের স্ত্রী শাহেনার। আগুন নিভাতে চিৎকার শুরু করেন তিনি। প্রতিবেশীরা খবর দেয় দমকল বাহিনীকে। কিন্তু দমকল বাহিনী পৌঁছার পূর্বেই আগুনে ছাই হয়ে যায় বৃদ্ধা আজিজার টিনের ঘর, আগুনের শিখায় তছনছ হয়ে যায় প্রবাসী মোবারেকের আধা পাকা ঘর। মঙ্গলবার রাতে এ অগ্নিকান্ডটি ঘটে সন্দ্বীপ উপজেলার হারামিয়া ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ডের কালু মিছার বাড়ীতে। আগুনের সূত্রপাত সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া য়ায়নি।ক্ষতিগ্রস্তরা জানান- নগদ টাকা,স্বর্ণালংকার সহ আগুনে তাদের দু’পরিবারের ক্ষতির পরিমান প্রায় পঞ্চাশ লাখ টাকা। প্রত্যক্ষদর্শী সুমন জানান, ফায়ার সার্ভিস এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। ফায়ার সার্ভিস আগুন নিয়ন্ত্রণে ভূমিকা না রাখলে বাড়ির বাকী ৮টি ঘর পুড়ে ছাই হয়ে যেত। সন্দ্বীপ ফায়ার স্টেশন ইনচার্জ কিরকিটি রঞ্জন বড়ুয়া জানান, আগুন লাগার আধা ঘন্টা পর খবর পেয়ে আমরা যাত্রা শুরু করি, রাস্তা সংকীর্ণতার কারনে ঘটনাস্থলে পৌঁছতে আমাদের কিছুটা সমস্যা হলেও দ্রুত ফায়ার সার্ভিস সেখানে পৌঁছে। বুধবার সকালে স্থানীয় সংসদ সদস্য মাহফুজুর রহমান মিতা, উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মাষ্টার শাহজাহান বিএ, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সম্রাট খীসা,ভাইস চেয়ারম্যান মাঈন উদ্দিন মিশন, সন্দ্বীপ প্রেস ক্লাব সভাপতি মোঃ রহিম উল্যা এবং  হারামিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ জসিম উদ্দিন ঘটনাস্থলে যান। এ সময় সন্দ্বীপ উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ক্ষতিগ্রস্তদের জরুরী খাদ্য সহায়তা প্রদান করা হয়।