ইলেকট্রিক পরিবহন আমদানিতে শুল্কমুক্ত সুবিধা চায় বারভিডা

27

তেল আমদানিতে বাড়তি বৈদেশিক মুদ্রার অপচয় রোধ এবং পরিবেশবান্ধব গণপরিবহণ ব্যবস্থা গড়ে তুলতে ইলেকট্রিক পরিবহন আমদানিতে শুল্কমুক্ত সুবিধা চেয়েছে বাংলাদেশ রিকন্ডিশন্ড ভেহিক্যালস ইম্পোর্টার্স অ্যান্ড ডিলারস অ্যাসোসিয়েশন (বারভিডা)। পাশাপাশি কার্যকর গণপরিবহন ব্যবস্থায় পাবলিক বাসের আমদানি শুল্ক অন্তত ৯ শতাংশ কমানোর প্রস্তুাব দিয়েছে সংগঠনটি। জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) সঙ্গে প্রাক-বাজেট আলোচনায় বাংলাদেশ রিকন্ডিশন্ড ভেহিক্যালস ইম্পোর্টার্স অ্যান্ড ডিলারস অ্যাসোসিয়েশন (বারভিডা) এমন দাবি উপস্থাপন করে শুল্কছাড়ের বেশ কিছু প্রস্তাব দিয়েছে। বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয় ইলেকট্রিক পরিবহন আমদানিতে শুল্কমুক্ত সুবিধা দাবি জানিয়ে সংগঠনটির সভাপতি হাবিবুল­াহ ডন বলেন, যান্ত্রিক পরিবহনের দূষণ থেকে সবুজ প্রকৃতির নির্মলতাকে রক্ষা করার জন্য দুনিয়াব্যাপী জীবাশ্ম জ্বালানি (ফসিল ফুয়েল) বিহীন মোটরযানের উৎপাদন, প্রযুক্তি ও ব্যবহার নিয়ে গবেষণা দুই দশক আগ থেকেই জোরালো হয়ে উঠেছে। বিপজ্জনক ও দুর্যোগপূর্ণ পরিবেশ থেকে বর্তমান এবং আগামীকে রক্ষা করতে হলে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড এ সংক্রান্ত শুল্ককর কাঠামো ঢেলে সাজাবে এবং দূষণমুক্ত মোটরযান আমদানিকে আন্তরিকভাবে উৎসাহিত করবে বলে আমরা আশা করি। তিনি বলেন, ইতোমধ্যে বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট কর্পোরেশন (বিআরটিসি) বায়ু দূষণ, জনস্বার্থ ও বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয়ের লক্ষ্যে ২৫০ ইউনিট ইলেকট্রিক বাস আমদানির সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করেছে। পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, ফসিল ফুয়েলের চেয়ে ইলেকট্রিক ভেহিক্যালে কমপক্ষে চারগুন বেশি জ্বালানি সাশ্রয় হয়। পরিবহন খাতে জ্বালানি তেল ব্যবহার উল্লেখযোগ্য হারে কমে গেলে অতি দরকারি বৈদেশিক মুদ্রা দিয়ে তেল আমদানি যেমন কমবে, তেমনি সংকটকালে বৈদেশিক মুদ্রার সংরক্ষণ করবে। এমন প্রস্তাবনাকে স্বাগত জানিয়ে এনবিআর চেয়ারম্যান আবু হেনা রহমাতুল মুনিম বলেন, গণপরিবহণের বিবেচনায় এমন প্রস্তাব অত্যন্ত ইতিবাচক।