আয় কমলেও স্ত্রীর সম্পদ বেড়েছে লাভুর

18

নিজের আয় কমলেও দেড় বছরের ব্যবধানে স্ত্রীর সম্পদ বেড়েছে চকবাজার ওয়ার্ডের বিএনপি সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থী একেএম সালাউদ্দীন কাউসার লাভুর। গত সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনেও কাউন্সিলর প্রার্থী হয়ে জমা দেয়া হলফনামার সাথে উপ-নির্বাচনে প্রার্থী হয়ে জমা দেয়া হলফনামা পর্যালোচনায় এমন তথ্য মিলেছে।
হলফনামা পর্যালোচনায় দেখা যায়, একেএম সালাউদ্দীন কাউসারের শিক্ষাগত যোগ্যতা বি.কম পাশ। দেড় বছর আগে ছয়টি মামলা থাকলেও বর্তমানে সাতটি মামলা আছে। সবগুলো মামলা বিচারাধীন আছে।
পেশায় ঠিকাদার এই প্রার্থীর নিজের বাড়ি ও দোকান ভাড়ায় বাৎসরিক আয় তিন লক্ষ টাকা। যা দেড় বছর আগে ছিল ৪ লক্ষ ৪৭ হাজার ৯০৯ টাকা। ব্যবসায় ৭ লক্ষ টাকা আয় থাকলেও দেড় বছর আগে তা ছিল ১০ লক্ষ ৫৯ হাজার ৩৩৪ টাকা। অর্থাৎ দেড় বছরে এই প্রার্থীর তুলনামূলক আয় কমেছে।
অস্থাবর সম্পদের মধ্যে নিজ নামে নগদ আছে ১ লক্ষ টাকা, স্ত্রীর নামে ১ লক্ষ টাকা। তবে দেড় বছর আগে স্ত্রীর নামে ছিল ৫০ হাজার টাকা। ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে নিজ নামে জমা আছে ৩ লক্ষ টাকা। দেড় বছর আগে ছিল ১ লক্ষ টাকা। স্ত্রীর নামে সঞ্চয়পত্র আছে ১৫ লক্ষ টাকা, আগে ছিল ৩ লক্ষ টাকা। নিজ নামে একটি প্রাইভেট কার, স্ত্রীর নামে স্বর্ণ আছে ২০ ভরি যার মূল্য ১৪ লক্ষ টাকা। তবে স্ত্রীর নামে দেড় বছর আগে স্বর্ণালঙ্কার ছিল ৪০ হাজার টাকার। স্ত্রীর নামে ৮ লক্ষ টাকার ইলেকট্রনিক ও আসবাবপত্র সামগ্রী আছে। স্থাবর সম্পদের মধ্যে যৌথ মালিকানায় ২০ শতক অকৃষি জমি আছে। যার অর্ধেক মালিক প্রার্থী নিজে। যৌথ মালিকানায় দালান আছে একটি। তবে এই প্রার্থীর একটি বেসরকারি ব্যাংকে ঋণ আছে ৩০ লক্ষ টাকা।