আসলে তুমিই ভালো, তুমিই খারাপ

12

 

তুমি কারো কাছে পৃথিবীর সবথেকে ভালো মানুষটা। সেই তুমিই আবার অন্য কারোর কাছে পৃথিবীর সব থেকে ঘৃন্যতম মানুষ। তোমাকে মনে পড়লেই গাল ভরা হাসি আসে মুখে, মন ভালো হয়ে যায়; আবার কেউ তোমাকে ভেবে খুব কষ্ট পায়, কাঁদে। কেউ তোমাকে খুব সরল ভাবে আবার কেউ ভাবে তুমি খুব জটিল, মনে অনেক প্যাঁচ। কেউ ভাবে অহংকারী নাক উঁচু, কেউ ভাবে এক্কেবারে মাটির মানুষ। কেউ ভাবে বিশ্বস্ত, কেউ ভাবে বিশ্বাসঘাতক। কেউ তোমাকে প্রচÐ সম্মান করে আবার কেউ মনে মনে গালাগালি দেয়। কেউ তোমার গুণের প্রশংসায় পঞ্চমুখ আবার কেউ তোমার নিন্দে করে আজন্ম। কেউ তোমায় জড়িয়ে ধরতে চায় নিরাপদ অনুভব করতে, কেউ আবার পিঠে ছুরি মারতে চেয়ে জড়িয়ে ধরে। কেউ তোমার সাথে মিশে যেতে চায় আজীবন আবার কেউ তোমার ত্রিসীমানাতেও ঘেঁষতে চায় না।
অথচ তুমি মানুষটা একটাই। একটাই মন, একটাই ঠিকানা। তাহলে এই ভিন্ন ভিন্ন রূপের জন্ম কেন? এ কেমন ধাঁধা? ভেবে দেখেছো কখনও ?
আসলে তুমিই ভালো, তুমিই খারাপ। তুমিই রোদ, তুমিই ছায়া। তুমিই বন্ধু, তুমিই শত্রু। কয়েনের এই পিঠও তোমার, কয়েনের ওই পিঠও তোমার। হেডও তুমি, টেলও তুমি।
মানুষ তার যোগ্যতা অনুযায়ী তোমাকে পেয়ে এসেছে, পাচ্ছে, ভবিষ্যতেও পাবে।