আলোর স্বল্পতায় ৫৭ ওভারেই পরিত্যক্ত দিনের খেলা

5

পূর্বদেশ ক্রীড়া ডেস্ক

মিরপুরে দ্বিতীয় টেস্ট শুরুর আগেই পূর্বাভাস ছিল বৃষ্টির। প্রথম দিন ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদের প্রভাব পড়তেও দেখা গেলো। আলোর স্বল্পতায় প্রথম দিনের তৃতীয় ও শেষ সেশনের খেলা মাঠেই গড়ায়নি। নির্ধারিত সময়ের আগেই পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়েছে দিনের খেলা।
প্রথম সেশনে বাংলাদেশ দুটি উইকেট নিতে পারলেও দ্বিতীয় সেশনে প্রতিরোধ গড়ে খেলেছে পাকিস্তান। বাবর আজম ও আজহার আলীদের কোনও পরীক্ষায় ফেলতে পারেনি বাংলাদেশ। ৯১ রানের জুটিতে প্রতিরোধ গড়েছেন দু’জন। চা পানের বিরতির আগে প্রথম ইনিংসে পাকিস্তানের সংগ্রহ ছিল ২ উইকেটে ১৬১ রান। ততক্ষণে ওভার হয়েছে ৫৭টি। আলোর স্বল্পতায় এর পর আর খেলা মাঠেই গড়ায়নি। দ্বিতীয় দিন খেলা শুরু হবে আধা ঘণ্টা আগে, সকাল সাড়ে ৯টায়। দ্বিতীয় সেশনেই গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টিতে খেলা বন্ধ ছিল ২৫ মিনিট।
অবশ্য বাবর-আজহারের দৃঢ়তায় বেশ ভালো অবস্থানেই আছে পাকিস্তান। প্রায় ঘণ্টাখানেকেরও বেশি সময় পাকিস্তানের দুই ওপেনার নিয়ন্ত্রণ নিয়ে খেলেছিলেন। দৃশ্যপট পাল্টে যায় সাকিব-তাইজুল বোলিংয়ে। বিশেষ করে তাইজুল একাই সফরকারীদের প্রতিরোধ ভেঙেছেন প্রথম সেশনে। তার পর দ্বিতীয় সেশনে বাবর-আজহার মিলেই পুনরায় নিয়ন্ত্রণ নিয়েছেন ইনিংসের।
মেঘলা কন্ডিশনে শুরুতে টস জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় পাকিস্তান। শুরুর দিকে পেসাররা সহায়তা পেয়ে থাকেন। হয়েছেও তাই। শুরুর ওভারে সুইং আর বাউন্সে দুই ওপেনারকে নড়বড়ে করার চেষ্টা করেছেন এবাদত। ভেতরে ঢুকে পড়া চতুর্থ বলে লেগ বিফোরের আবেদনও উঠে। কিন্তু লেগ স্টাম্প মিস করবে দেখে রিভিউ নেননি মুমিনুল।
লেগ বিফোরের আবেদন উঠেছিল এবাদতের তৃতীয় ওভারেও। কিন্তু কোনও সম্ভাবনা না থাকায় রিভিউ নিতে আগ্রহী হননি মুমিনুল।
সুস্থ হয়ে ফেরা সাকিব বল করতে আসেন দশম ওভারে। ঘূর্ণিতে দুই ওপেনারকে কিছুটা ভড়কে দেওয়ার চেষ্টা করেছেন। তার পরেও সতর্ক থেকে হাফসেঞ্চুরি পার্টনারশিপ গড়েন দুই ওপেনার আবিদ আলী ও আব্দুল্লাহ শফিক। প্রায় ঘণ্টাখানেকের বেশি সময় স্থায়ী এই জুটি ভাঙে তাইজুলের কল্যাণে।
১৯তম ওভারে প্রত্যাশিত টার্ন ভেবে ডিফেন্ড করতে চেয়েছিলেন শফিক। কিন্তু বল ব্যাট-প্যাডের ফাঁক গলে আঘাত হানে স্টাম্পে। শফিক বোল্ড হয়ে ফিরেছেন ২৫ রানে। তার বিদায়ে ভাঙে ৫৯ রানের জুটি। ঘূর্ণি বলে আবিদ আলীকেও বোল্ড করেন তাইজুল। ৩৯ রানে ব্যাট করতে থাকা এই ওপেনার অলসভঙ্গিতে কাট করতে গিয়েছিলেন। কানায় লেগে বল আঘাত হানে স্টাম্পে।
২১তম ওভারেও তাইজুলের বলে ক্যাচের আবেদন উঠে আজহার আলীর। অনফিল্ড আম্পায়ার তাতে সাড়া দেননি শুরুতে। রিভিউ নিলে আলট্রাএজে কিছুটা স্পাইক দেখা গেলেও তাতে সন্তুষ্ট ছিলেন না টিভি আম্পায়ার। ফলাফল নট আউট সিদ্ধান্তই বহাল থেকেছে পরে। বাংলাদেশ ১৬তম ওভারেও রিভিউ নিয়েছিল। সাকিবের বলে লেগবিফোরের আবেদন উঠেছিল। শেষ পর্যন্ত নষ্ট হয়েছে সেই রিভিউ। এর ফলে বাংলাদেশের দুটি রিভিউই নষ্ট হয়ে যায় দ্রুত।
সেট ব্যাটসম্যানদের বিদায়ে লাঞ্চ বিরতির আগে সফরকারীদের সংগ্রহ ছিল ২ উইকেটে ৭৮ রান। বিরতির পর শুরুর ধাক্কা কাটিয়ে উঠেন অধিনায়ক বাবর আজম ও আজহার আলী। বাবর দ্রæতগতিতে ব্যাট চালিয়ে ফিফটি তুলে ফেলেছেন। অপরপ্রান্তে আজহার আঁকড়ে ধরে খেলার চেষ্টা করেছেন। দ্বিতীয় সেশনে দুজনে মিলে যোগ করেছেন ৮৩ রান। বাবর ব্যাট করছেন ৬০ রানে, আজহার ৩৬ রানে।
অবশ্য এই প্রতিরোধ ভাঙারও সুযোগ ছিল বাংলাদেশের। ফিফটির আগে ৪৭তম ওভারে সাকিবের বলে ক্যাচের সুযোগ উঠেছিল বাবর আজমের। খালেদ আহমেদ লং অফে ডাইভ দিয়েও বল হাতে জমাতে পারেননি। যা পরে চার হয়ে গেছে।
ফেরার দিনে ১৫ ওভার বল করেছেন সাকিব আল হাসান। ৩৩ রান দিলেও কোনও উইকেট পাননি। তাইজুল ইসলাম ১৭ ওভার বল করে ৪৯ রানে নিয়েছেন ২ উইকেট। মেহেদী হাসান মিরাজও ১২ ওভার করেছেন। ৩১ রান দিয়ে তিনিও উইকেটশূন্য থেকেছেন। পেসারদের মধ্যে এবাদত হোসেন ৯ ওভারে ২৮ ও খালেদ আহমেদ ৪ ওভারে ১৯ রান দিলেও উইকেট পাননি কোনও।