আলোচনায় বসতে শিক্ষামন্ত্রীর আহ্বান, সাড়া দিলেন শাবিপ্রবির আন্দোলনরতরা

7

পূর্বদেশ অনলাইন
উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিতে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (শাবিপ্রবি) আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আলোচনায় বসতে আহ্বান জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেলের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ভিডিওকলে যোগাযোগ করে এই আহ্বান জানান মন্ত্রী।
তিনি শিক্ষার্থীদের বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় কীভাবে আরও ভালোভাবে চলবে সেটা নিয়েও কথা বলতে চাই। আপনারা যারা আসবেন জানান। আমি আছি।’
এ আহ্বানে সাড়া দিয়ে শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনায় বসার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। শুক্রবার (২১ জানুয়ারি) বেলা সাড়ে ৩টায় এ সম্মতির কথা জানান তারা।
শিক্ষামন্ত্রী তার আহ্বানে বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে অবশ্যই আলোচনায় বসতে হবে। আপনারা নিজেদের মধ্যে কথা বলে ঠিক করে নেবেন। যারা প্রতিনিধি দলে আসবেন, তারা যেন সবার প্রতিনিধি হন। পরে আবার কেউ যেন না বলেন, এই দলের সঙ্গে কথা বলা আর আমাদের সঙ্গে কথা বলা এক নয়।’
এ সময় প্রতিনিধি হিসেবে কারা আসবেন সেটি জানানোর জন্য শিক্ষার্থীরা কিছুটা সময় চেয়ে নেন। পরে শিক্ষার্থীরা বলেন, ‘শিক্ষামন্ত্রী ম্যামের সঙ্গে আমাদের ফোনে কথা হয়েছে। আমরা আমাদের মধ্যে আলোচনা করে কয়েকজনকে প্রতিনিধি করে খুব শিগগিরই ম্যামের সঙ্গে আলোচনার জন্য পাঠাবো।’
অনশন ভেঙে আলোচনা করবেন কিনা? জবাবে শিক্ষার্থীরা জানান, ‘অনশন না ভেঙেই আলোচনায় বসা হবে। আমরা অনশনকারীদের অনেকবার বোঝানোর চেষ্টা করেছি অনশন ভাঙার জন্য। কিন্তু তারা আমাদের জানিয়েছেন, উপাচার্যের পদত্যাগের আগ পর্যন্ত অনশন চালিয়ে যাবেন।’
দীপু মনি আন্দোলনরতদের উদ্দেশে বলেন, ‘আপনারা কষ্ট করছেন। আমি তো একজন মা। আমার ছোট সন্তানের থেকেও আপনাদের বয়স কম। ফলে বিষয়টি কেবল মন্ত্রী হিসেবে দেখলেই চলছে না। শান্তিপূর্ণ সুষ্ঠু সমাধান করতে হবে।’
উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদের পদত্যাগের দাবিতে শাবিপ্রবির বিভিন্ন বিভাগের ২৪ শিক্ষার্থী উপাচার্যের বাসভবনের সামনে আমরণ অনশনে বসেছেন। ৪৮ ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে তারা অনশন চালিয়ে যাচ্ছেন। এ সময়ের মধ্যে শীতে ও না খেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন অনশনরত বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের পক্ষ থেকে কয়েকবার বসার আহ্বান জানালেও কর্ণপাত করেননি আন্দোলনরতরা।