আলোকিত মানুষই দেশ আলোকিত করবে

6

পার্বত্য চট্টগ্রাম মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে বান্দরবান বিশ্ববিদ্যালয়ের অসচ্ছল ছাত্রছাত্রীদের মাঝে আর্থিক অনুদানের চেক বিতরণ করা হয়েছে। শনিবার সকালে বান্দরবান শিক্ষা ও উন্নয়ন ফাউন্ডেশনের আয়োজনে পার্বত্যমন্ত্রীর বাসভবন প্রাঙ্গণে ছাত্রছাত্রীদের মাঝে এই চেক বিতরণ করা হয়। বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ক্য শৈ হ্লার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন পার্বত্যমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি। অনুষ্ঠানে সিভিল সার্জন ডাঃ অংসুই প্রæ মারমা, পৌরসভার মেয়র মোহাম্মদ ইসলাম বেবী, পার্বত্য জেলা পরিষদ সদস্য লক্ষীপদ দাশ, রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি বান্দরবান ইউনিটের সেক্রেটারি অমল কান্তি দাশ, বান্দরবান বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার ড. নুরুল আবছারসহ বান্দরবান বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।
এদিকে চেক বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে পার্বত্যমন্ত্রী বলেন, মেধাবী ও গরিব শিক্ষার্থীদের শিক্ষা ক্ষেত্রে এগিয়ে যাওয়ার লক্ষ্যে সহযোগিতা হিসেবে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয় এই আর্থিক সহায়তা কার্যক্রমের উদ্যোগ নেয়। উন্নত, সমৃদ্ধ, আধুনিক বাংলাদেশ নির্মাণের জন্যে প্রয়োজন আলোকিত মানুষ, আলোকিত মানুষই বাংলাদেশকে আলোকিত করবে। একটি শিক্ষিত সমাজ গড়ে উঠলে পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলের সম্ভাবনার দিগন্তগুলো আরো উন্মোচিত হবে, এজন্য শিক্ষক, অভিভাবক এবং শিক্ষার্থীদের সন্মিলিত উদ্যোগ প্রয়োজন। অনুষ্ঠানের শেষ পর্যায়ে প্রধান অতিথি বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি বান্দরবান বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৯ জন অসচ্ছল ছাত্রছাত্রীদের প্রতি জনকে ১০ হাজার টাকা করে আর্থিক অনুদানের চেক প্রদান করেন।
এছাড়া বান্দরবানে ক্যান্সার, কিডনি, লিভার সিরোসিস, স্ট্রোকে প্যারালাইজড, জন্মগত হৃদরোগ ও থ্যালাসেমিয়ায় আক্রান্ত রোগীদের এককালীন আর্থিক অনুদানের চেক বিতরণ করা হয়েছে। শনিবার দুপুরে মন্ত্রীর বাসভবন প্রাঙ্গণে পার্বত্য জেলা পরিষদ ও জেলা সমাজসেবা অধিদপ্তরের আয়োজনে পার্বত্যমন্ত্রীর প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এই চেক বিতরণ করেন। এসময় পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ক্য শৈ হ্লা, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো. সাইফুল ইসলাম, পার্বত্য জেলা পরিষদের সদস্য ক্য সা প্রূ, সদস্য তিং তিং ম্যা, সিভিল সার্জন ডাঃ অং সুই প্রূ মারমা, জেলা সমাজসেবা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মিলটন মুহুরী, প্রেসক্লাবের সভাপতি মনিরুল ইসলাম মনুসহ বিভিন্ন জটিল রোগে আক্রান্ত রোগী ও তাদের পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। জেলার বিভিন্ন উপজেলার ক্যান্সার, কিডনি, লিভার সিরোসিস, স্ট্রোকে প্যারালাইজড, জন্মগত হৃদরোগ ও থ্যালাসেমিয়ায় আক্রান্ত ৩০ জনকে ৫০ হাজার টাকা করে মোট ১৫ লক্ষ টাকার আর্থিক অনুদানের চেক বিতরণ করা হয়।