আমি কেবল মায়া চাই

47

 

বেশিরভাগ মানুষ কি অর্থবিত্ত হলে আর মানুষ থাকে না? তাদের নিত্য নতুন নারী/ পুরুষদের সংসর্গ প্রয়োজন হয়, বিভিন্ন ধরনের নেশায় মত্ত থাকতে হয়? ক্লাবে গিয়ে নেশা, জুয়া, নারীতে বুদ থাকতে হয়? এরা কি এসব করে মানুষ হতে আরেকটু উঁচু শ্রেণীতে পরিণত হয়? এদের অনেকেই আবার ধর্মীয় বাণী কপচিয়ে নিজেকে ঈমানদার, বিশুদ্ধ ধার্মিক হিসেবে সবার সামনে নিজেকে উপস্থাপন করে। আচ্ছা, এমন মানুষগুলো নিজের বিবেক নামক আয়নার সামনে নিজের মুখোশ কেমন করে সহ্য করে? আরও এক শ্রেণী আছে সকল ধরনের দুর্নীতি করে মজলিসে বড় বড় ওয়াজ দেন এভাবে- ‘লোভ করা পাপ, পাপে মৃত্যু। লোভ করা যাবে না। সর্বাবস্থায় আলহামদুলিলাহ বলতে হবে।’ অথচ ওনারা পুকুর চুরি করে বসে আছেন।
অর্থবিত্ত হলে মানুষের পরিণতি যদি তেমন হয় তবে আল্লাহ কখনও আমাকে অর্থ বিত্তশালী না করুন, তেমন কারও সহচর্যেও আল্লাহ আমাকে কখনও না রাখুন। মানুষ যা মন থেকে চায় আল্লাহ সে ডাক শুনেন বলে জেনে এসেছি। আমি কেবল মায়া চাই। মায়ার মানুষ মায়া দিয়ে আমার আশেপাশে ঘিরে রাখুক। মানুষের আড়ালে মুখোশধারী কেউ নয়। মুখোশধারীদের জন্য আল্লাহ মুখোশধারীদের নির্ধারণ করে দিন। প্রেম, মায়া, মমতা মুখেশধারীদের জীবনে কখনও আসার নয়। তারা তাদের মতো ভÐদের ডিজার্ভ করে, সত্যিকারের মায়া নয়।