আজ বিশ্ব মা দিবস

19

পূর্বদেশ ডেস্ক

বিশ্ব মা দিবস আজ। প্রতিবছর মে মাসের দ্বিতীয় রবিবার মা দিবস হিসেবে পালন করা হয়। জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত মানুষের সবশেষ আশ্রয়স্থল মা। শৈশব থেকে আনন্দ-বেদনা-ভয় কিংবা উদ্দীপনা- প্রতিটি মানবিক অনুভূতিতে জড়িয়ে থাকে মায়ের নাম।
মা ও সন্তানের আত্মিক বন্ধন নিয়ে রচিত হয়েছে বহু গান, কবিতা, গল্প, উপন্যাস। সৃষ্টি হয়েছে বহু কালজয়ী শিল্পকর্ম। বিংশ শতাব্দীর শুরুতে যুক্তরাষ্ট্রে প্রথম শুরু হয় মা দিবসের প্রচলন। যদিও প্রাচীন গ্রীক ও রোমানদের মধ্যেও মাকে সম্মান জানাতে বিশেষ দিবসের প্রচলন ছিল বলে জানান ইতিহাসবিদরা।
মা দিবসে নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে শ্রদ্ধা ও ভালবাসা জানানো হয় মমতাময়ী মায়ের প্রতি। মা দিবসের প্রবক্তা আনা জার্ভিস দিবসটির বাণিজ্যিকীকরণের বিরোধিতা করে বলেছিলেন, ‘মাকে কার্ড দিয়ে শুভেচ্ছা জানানোর অর্থ হলো, তাকে দুই কলম লেখার সময় হয় না। চকলেট উপহার দেওয়ার অর্থ হলো, তা নিজেই খেয়ে ফেলা।’
মা, অপূর্ব এক মিষ্টি মধুর শব্দ। এ শব্দের মধ্যে পৃথিবীর সব মায়া-মমতা অকৃত্রিম নিঃস্বার্থ ভালোবাসা। মা, যার ঋণ জন্ম-জন্মান্তরেও শোধ করা যায় না। গোটা নারী জাতিই মাতৃত্বের প্রাণঘাতী অহঙ্কার ধারণ করেই সৃষ্টির পর থেকে সৃষ্টির শেষ অবধি কায়েম থাকবে। কবি বলেছেন- সর্বহারা, সর্বহারা জননী আমার/ তুমি কোনদিন কারও করনি বিচার, কারও দাওনি দোষ,/ ব্যথা বারিধির ক‚লে বসে কাঁদো/ মৌন কন্যা ধরণীর।
মা, শাশ্বত চিরন্তন একটি আশ্রয়ের নাম। এসব বর্ণনা আমরা প্রতিটি মানব সন্তানই জানি। তারপরও নির্দয়ভাবে মাকে নিয়ে ভাগ্যের পরিহাস করে অনেক অকৃতজ্ঞ সন্তান। তাই হয়তো ওই অকৃতজ্ঞদের সচেতন করতেই ‘মা দিবসের’ উদ্ভব হয়।