আজ চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন

14

আজ চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন। কোভিড-১৯ নামক বৈশ্বিক মহামারীর কারণে পূর্ব ঘোষিত চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন স্থগিত হয়। সেই স্থগিত নির্বাচন আজ ২৭ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ইতোপূর্বে নির্বাচন কমিশন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের প্রস্তুতি স্বরূপ ৭৩৫টি ভোট কেন্দ্রে সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে। প্রত্যেক কেন্দ্রে মগ ভোটিংও সম্পন্ন করেছে। ইভিএম মেশিনে সবকটি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ হচ্ছে আজ। সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে দেশের মূল রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বী দু’দলসহ মোট সাতজন মেয়র প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে। ভোট গ্রহণের জন্য প্রিসাইডিং অফিসার সহকারী প্রিসাইডিং অফিসার, পুলিং অফিসার, ইভিএম মেশিন, আনসার, ভিডিপি, পুলিশ, বিজিবিসহ সকল ভোট গ্রহণের জনশক্তি নির্বাচন কমিশন নিয়োগ করেছে। পত্র-পত্রিকার সংবাদে দেখা গেছে বিএনপি দলীয় প্রার্থী নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ করেছে সরকারিদল তথা আওয়ামী লীগ দলের প্রার্থী ও সরকারি দলের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে, তাছাড়া নির্বাচনী প্রচারণা হতে বিএনপি দলীয় নেতাকর্মী ও সমর্থকদের পুলিশি হয়রানি ও গ্রেফতারের অভিযোগও করেছে। স্বতন্ত্র প্রার্থীসহ বাকী প্রতিদ্ব›দ্বী প্রার্থীদের বিষয়ে জনগণ খুব একটা আগ্রহী নয়। তারা নির্বাচনকে সহযোগিতা করছে মাত্র। মূল প্রতিদ্ব›দ্বী প্রার্থী হলো বড় দু’দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপি দলীয় প্রার্থী এম রেজাউল করিম চৌধুরী (নৌকা) এবং ডা. শাহাদাত হোসেন (ধানের শীষ)। সাতজন মেয়র প্রার্থী ছাড়াও প্রতিদ্ব›িদ্বতার মাঠে ছিল ৫৭জন সংরক্ষিত কাউন্সিলর প্রার্থী এবং ১৭২ জন সাধারণ কাউন্সিলর প্রার্থী। সব মিলিয়ে ২৩৬জন প্রার্থীর প্রচারণায় মুখর হয়েছে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন এলাকা।
গতকাল হতে প্রচারণা বন্ধ। আজ সকাল হতে ভোট গ্রহণ শুরু। দেশে নির্বাচননিয়ে নানা জনের নানারকম অভিযোগ শুনা যায়। ভোটের মাধ্যমে গণতান্ত্রিক দেশে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। নির্বাচনে ভোটাররা স্বাধীনভাবে ভোট প্রদান করে থাকে। ভোট দাতাদের স্বাধীনভাবে ভোট প্রদানের পরিবেশ তৈরির দায়িত্ব নির্বাচন কমিশনের। ভোটের কেন্দ্রগুলোর মধ্যে ভোটাররা নিজ নিজ ভোট স্বাধীনভাবে প্রদানের পরিবেশ নিশ্চিত করার জন্য নির্বাচনী কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর লোক নিয়োজিত। তাদের নির্বাচনী কর্মপরিচালনার জন্য নির্বাচন কমিশন উপযুক্ত সম্মানিও দিয়ে থাকে। তাদের সততা, নিষ্টা, দায়বদ্ধতাই পারে একটি সুষ্ঠু স্বাধীন নির্বাচন সম্পন্ন করতে। আমরা আশা করবো সুষ্ঠু স্বাধীন নির্বাচনের মাধ্যমে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র, সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর এবং সাধারণ কাউন্সিলররা নির্বাচিত হোক। প্রত্যেক প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর পুলিং এজেন্টরা স্বাধীন ভাবে নির্বাচনী আইন মেনে কেন্দ্রে অবস্থান করার পরিবেশ বজায় থাকুক এবং ভোটাররা নিজ নিজ ভোটটি পছন্দের প্রার্থীকে দিতে পারুক। এমন প্রত্যাশা সর্বস্তরের নগরবাসীর।