আখেরি মোনাজাতে ঐক্য শান্তি ও কল্যাণ কামনা

3

পূর্বদেশ ডেস্ক

গাজীপুরের টঙ্গীর তুরাগ তীরে লাখো মানুষের অংশগ্রহণে আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে বিশ্ব ইজতেমা। মোনাজাতে বিশ্বের মুসলিমদের মধ্যে ঐক্য, শান্তি, কল্যাণ কামনা করা হয়েছে। গতকাল রোববার বেলা ১১টা ১৭ মিনিটে দ্বিতীয় পর্বের ইজতেমার আখেরি মোনাজাত শুরু করেন ভারতের মাওলানা সা’দ কান্ধলভীর বড় ছেলে মাওলানা ইউসুফ বিন সা’দ। প্রায় ২৬ মিনিটের আখেরি মোনাজাত শেষ হয় ১১টা ৪৩ মিনিটে। খবর বিডিনিউজের।
মোনাজাতে বিশ্বের মুসলমানদের হেদায়েত, ঐক্য, শান্তি, সমৃদ্ধি, ইহকাল ও পরকালের নাজাত এবং দ্বীনের দাওয়াত সর্বত্র পৌঁছে দেওয়ার জন্য দোয়া করা হয়। এছাড়া সব ধরনের গুণাহ থেকে মুক্তির জন্য আল্লাহর কাছে নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনা করা হয়।
মোনাজাত শেষে ‘আমিন আমিন’ ধ্বনিতে মুখরিত হয়ে ওঠে টঙ্গীর তুরাগ তীর ও ইজতেমা ময়দানের আশপাশ।
এর আগে বিশ্ব ইজতেমার শেষ দিন রোববার ফজরের পরে হিন্দিতে বয়ান শুরু করেন ভারতের মাওলানা মুফতি মাকসুদ। তা তাৎক্ষণিকভাবে বাংলায় তরজমা করে শোনান মাওলানা আব্দুল্লাহ। তার বয়ানের পরেই হেদায়াতের কথা ও দোয়া পরিচালনা করেন মাওলানা ইউসুফ বিন সাদ।
এর আগে আখেরি মোনাজাতে অংশ নিতে ভোর থেকেই গাড়িতে, হেঁটে, ট্রেনে ইজতেমায় হাজির হতে থাকেন বিভিন্ন জেলা থেকে আসা মানুষ।
কিন্তু ইজতেমা ময়দান আগে থেকেই পরিপূর্ণ থাকায় তারা আশেপাশের সড়ক, ফুটপাথ ও বিভিন্ন বাড়ির ছাদে অবস্থান নিতে থাকেন।
টঙ্গী আখেরি মোনাজাতে অংশ নিতে ব্যর্থ মুসলিমদের জন্য গাজীপুরের চান্দনা-চৌরাস্তার ঈদগাঁ ময়দানে আখেরি মোনাজাত লাইভ করা হয়।
লাইভ আয়োজন করা সাদিয়া কম্পিউটারের অধিকর্তা মো. শরিফুল ইসলাম শরিফ জানান, আগে পুলিশের ওয়াকিটকি ব্যবহার করে এখানে আখেরি মোনাজাতের অংশ নেওয়ার আয়োজন করা হতো। তখন থেকেই যারা ময়দানে অংশ নিতে পারেননি তারা আখেরি মোনাজাতের দিন চান্দনা ঈদগাঁ মাঠে এসে জড়ো হতেন।
এসব মানুষের চাহিদা পূরণে প্রযুক্তির উন্নতিতে আমি আমার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে আখেরি মোনাজাত একটি টেলিভিশন স্টেশন থেকে প্রচারিত লাইভ কানেক্ট করে প্রচারের ব্যবস্থা করেছি।বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্বেও আখেরি মোনাজাত একইভাবে লাইভ করা হয়েছিল।
লাইভ প্রচার করতে চান্দনা-চৌরাস্তার ঈদগাঁ মার্কেটের তারিক মাইক সার্ভিস কয়েকটি মাইকের হর্ন সরবরাহ করেন। তাতে টঙ্গী বিশ্ব ইজতেমা ময়দান থেকে প্রচারিত বয়ান এবং আখেরি মোনাজাত স্পষ্ট শুনতে পান উপস্থিত মানুষরা।
স্থানীয় নলজানি এলাকার মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, শনিবার মধ্যরাত থেকেই গাড়ি চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় আমার মতো অনেকেই ইজতেমা ময়দানে যেতে পারেননি। চন্দনা চৌরাস্তায় এ লাইভ আয়োজন করায় আমরা সরাসরি এখান থেকে বয়ান- মোনাজাত শুনতে ও বুঝতে পারছি।
তাবলিগ জামাতের দুই পক্ষের মধ্যে বিরোধের কারণে এবারও বিশ্ব ইজতেমা অনুষ্ঠিত হচ্ছে আলাদাভাবে। প্রথম পর্বে সাধারণভাবে মাওলানা জুবায়েরের অনুসারী হিসেবে পরিচিত বাংলাদেশের ‘শুরায়ে নিজাম’ পক্ষের ইজতেমা শেষ হয়েছে ৪ ফেব্রুয়ারি।
দ্বিতীয় পর্বে ভারতের সা’দ কান্ধলভীর অনুসারীদের ইজতেমা শুক্রবার শুরু হয়ে। গতকাল তা আখেরি মোনাজাতের মাধ্যমে শেষ হয়।