‘অধিকতর সম্ভাব্যতা’ যাচাইয়ে নতুনভাবে আবেদনের নির্দেশ

15

নিজস্ব প্রতিবেদক

নগরীতে মেট্রোরেল বাস্তবায়নে আগ্রহী চীনের প্রতিষ্ঠান উইহায় ইন্টারন্যাশনাল ইকোনোমিক অ্যান্ড টেকনিক্যাল কো-অপারেটিভ কোম্পানি লিমিটেড ও চায়না রেলওয়ে কনস্ট্রাকশন কোম্পানি লিমিটেডকে আবেদন করার নির্দেশনা এসেছে মেট্রোরেল নিয়ে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে অনুষ্ঠিত বৈঠক থেকে। একই সাথে মেট্রোরেল স্থাপনে অধিকতর সম্ভাব্যতা যাচাইয়ে মন্ত্রণালয় নতুন করে আবেদন করার নির্দেশ দিয়েছে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনকে (চসিক)।
প্রধানমন্ত্রী নির্দেশের পর নগরীতে মেট্রোরেল স্থাপন নিয়ে গতকাল মন্ত্রণালয়ে বৈঠক হয়। এ বৈঠক থেকে ওই দুই নির্দেশনা এসেছে বলে নিশ্চিত করে পূর্বদেশকে চসিকের প্রধান প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম মানিক জানান, আমাদের আগে থেকে মেট্রোরেল নিয়ে প্রাক-সম্ভাব্যতা যাচাই প্রতিবেদন আছে। তার প্রেক্ষিতে আমরা তথ্য-উপাত্ত উপস্থাপন করেছি। সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের জন্য নতুন করে মন্ত্রণালয়ে আবেদন করার নির্দেশনা দিয়েছে।
উল্লেখ্য, ২০১৯ সালে তৎকালীন মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন নগরীতে সর্বপ্রথম মেট্রোরেল স্থাপন করার উদ্যোগ নেন। চসিকের উদ্যোগে মেট্রোরেল নিয়ে ফিজিবিলিটি স্টাডি শেষে ওই বছর ২৬ জুলাই সংবাদ সম্মেলন করা হয়। যেখানে মেট্রোরেলের সম্ভাব্যতা নিয়ে আদ্যোপান্ত তুলে ধরা হয়। ওই সময় বলা হয়, সিটি করপোরেশন এলাকায় এ দ্রæত গণপরিবহন ব্যবস্থা হবে তিনটি লাইনে। যার মোট দৈর্ঘ্য সাড়ে ৫৪ কিলোমিটার। তা বাস্তবায়ন করতে আনুমানিক ৮৪ হাজার ২০২ কোটি ৫ লাখ টাকা ব্যয় হবে। বাসস্থান ইঞ্জিনিয়ার্স অ্যান্ড কনসালটেন্টস লিমিটেড নামে পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের প্রাক-যোগ্যতা সমীক্ষা প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য উঠে এসেছিল।
এ দিকে গত ৪ জানুয়ারি চট্টগ্রামে মেট্রোরেল করার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় এ নির্দেশ দেন তিনি। রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অংশগ্রহণ করেন প্রধানমন্ত্রী। পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান সংবাদ সম্মেলন করে বৈঠকের বিস্তারিত জানান। পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, মেট্রোরেল শুধু ঢাকাতে থাকবে কেন, চট্টগ্রামের জন্যও মেট্রোরেল প্রকল্প নিতে হবে। যেসব শহরের সঙ্গে এয়ারপোর্ট আছে, সেসব শহরে পর্যায়ক্রমে সংযুক্ত করে প্রকল্প নিতে হবে। তিনি বলেন, অন্যান্য শহরগুলোতে মেট্রোরেল করতে না পারলেও মেট্রোরেলের মতো অন্য সার্ভিস চালু করতে হবে।