অক্সিজেন প্ল্যান্ট মালিকদের আন্দোলন প্রত্যাহার

36

সীতাকুন্ড প্রতিনিধি

শিল্প উদ্যোক্তাকে কোমরে দড়ি বেঁধে আদালতে হাজির করার ঘটনায় নিন্দা, প্রতিবাদ সভা শেষে অনির্দিষ্টকালের জন্য অক্সিজেন প্ল্যান্ট বন্ধ ঘোষণা করেছিল বাংলাদেশ শিপ ব্রেকার্স অ্যান্ড রিসাইক্লার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিএসবিআরএ)।
গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক আবুল বাসার মোহাম্মদ ফখরুজ্জামানের সাথে ব্যবসায়ী নেবৃবৃন্দের (অক্সিজেন প্ল্যান্ট মালিক) বৈঠক শেষে আন্দোলন কর্মসূচি প্রত্যাহার করেন তারা। এ সময় ব্যবসায়ী নেতারা বলেন, সীমা অক্সিজেন প্ল্যান্টের পরিচালক পারভেজ উদ্দিন সান্টুর কোমরে দড়ি বেঁধে আদালতে হাজির করার প্রতিবাদে সীতাকুন্ডের সব অক্সিজেন কারখানা শুক্রবার অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধের ডাক দিয়েছিলাম। ঘোষণার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ব্যবসায়ীদের বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে দেখে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক আমাদেরকে সার্কিট হাউজে দাওয়াত দিয়ে বৈঠকের আয়োজন করেন। বৈঠক পরবর্তী আমরা জেলা প্রশাসক মহোদয়ের আশ্বাসে সকল আন্দোলন প্রত্যাহার করেছি।জেলা প্রশাসক সাংবাদিকদেরকে বলেন, আগামীকাল (আজ) থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য অক্সিজেন প্ল্যান্ট বন্ধ রাখার ঘোষণা দিয়েছিলেন ব্যবসায়ীরা। পরে বিষয়টি আমি জানতে পারি এবং তাৎক্ষণিক তাদের সঙ্গে কথা বলতে সন্ধ্যায় সার্কিট হাউজে বৈঠকে মিলিত হই। ব্যবসায়ীরাও সাড়া দিয়েছেন। আমাদের ফলপ্রসূ আলোচনা হয়েছে। তিনি বলেন, সীমা অক্সিজেন প্ল্যান্ট দুর্ঘটনার পর এক মালিককে আটক করা হয়। আটকের পর তাকে কোমরে দড়ি বেঁধে আদালতে নিয়ে যায়। এটি অনাকাক্সিক্ষত ঘটনা। আমরা তাদের সঙ্গে কথা বলেছি। তারা আন্দোলন প্রত্যাহার করেছেন।
এ সময় চট্টগ্রাম ইন্ডাস্ট্রিয়াল পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সোলাইমান বলেন, ঘটনাটি শোনার পরই আমি এসআইকে শোকজ করে ডিসি মহোদয়কে অবগত করি। এরপর একটি তদন্ত কমিটি গঠন করি। তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনের ভিত্তিতে আমরা অভিযুক্ত এসআইকে ক্লোজড করি। এছাড়া আমাদের বিভাগীয় তদন্ত চলমান রয়েছে। কোমরে দড়ি বাঁধার বিষয়টি খুবই দুঃখজনক।
বাংলাদেশ শিপ ব্রেকার্স অ্যান্ড রিসাইক্লার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিএসবিআরএ) সহ-সভাপতি ও পিএইচপি গ্রুপের পরিচালক জহিরুল ইসলাম রিংকু বলেন, ওইদিন আসলে ব্যবসায়ীদের হেয় করা হয়েছে। যেভাবে কোর্টে নেওয়া হয়েছে, আমরা এর প্রতিবাদ জানিয়েছি। ডিসি মহোদয়ের অনুরোধে প্রতিটি শ্রমিককে তিন ঘণ্টার মধ্যে ১০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দিয়েছে সীমা অক্সিজেন প্ল্যান্ট মালিক পক্ষ। এটি নজিরবিহীন। আমরা যে আন্দোলনের ডাক দিয়েছিলাম, সেটি ডিসি মহোদয়ের আশ^াসে প্রত্যাহার করেছি। সীমা অক্সিজেন প্ল্যান্ট বন্ধ রয়েছে। প্রশাসনের সহযোগিতায় এটিও শিগ্গিরই চালু হবে। এখন থেকে আমাদের সকল অক্সিজেন প্ল্যান্ট চালু থাকবে।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মাসুদ কামাল, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) রাকিব হাসান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শাহাদাত হোসেন, সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. আশরাফুল আলম, বিএসবিআরএ সভাপতি মো. আবু তাহেরসহ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।
উল্লেখ্য, গত ৪ মার্চ সীতাকুন্ড উপজেলার কদমরসুল কেশবপুর এলাকায় সীমা অক্সিজেন প্ল্যান্টে বিস্ফোরণে ৭ জন নিহত হন। একই ঘটনায় আহত হন অন্তত ৩০ জন।