গণভোটের ফলাফল স্থগিত রাখার প্রস্তাব কুর্দিস্তানের

.

25

সৃষ্ট সংকট সামাল দিতে স্বাধীনতার প্রশ্নে সম্প্রতি অনুষ্ঠিত গণভোটের ফলাফল স্থগিত রাখার এবং বাগদাদের সঙ্গে সংলাপ শুরু করার প্রস্তাব দিয়েছে ইরাকের কুর্দিস্তান আঞ্চলিক সরকার (কেআরজি)। বুধবার দিনের শুরুতে এক বিবৃতিতে এসব প্রস্তাব দেয় কেআরজি, জানিয়েছে বিবিসি ও বার্তা সংস্থা রয়টার্স। বিবৃতিতে তাৎক্ষণিকভাবে অস্ত্রবিরতি এবং ইরাকের উত্তরাঞ্চলে সব ধরনের সামরিক অভিযান স্থগিত রাখার ডাকও দেওয়া হয়। এতে ইরাকের সংবিধানের ভিত্তিতে ইরবিল ও বাগদাদের মধ্যে উন্মুক্ত সংলাপের প্রস্তাব দেওয়া হয়।

গত সপ্তাহে কুর্দিদের নিয়ন্ত্রণে থাকা তেলসমৃদ্ধ শহর কিরকুক ও               অন্যান্য এলাকার নিয়ন্ত্রণ ইরাকি সরকারি বাহিনী গ্রহণ করলে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। ইরাক থেকে বিছিন্ন হয়ে স্বাধীন কুর্দিস্তান রাষ্ট্র গঠনের প্রশ্নে অনুষ্ঠিত গণভোটের জেরে উত্তরাঞ্চলীয় কুর্দি নিয়ন্ত্রিত ওই এলাকাগুলোতে অভিযান চালায় ইরাকি সরকারি বাহিনী। কেআরজির বিবৃতিতে বলা হয়, “লড়াই অব্যাহত থাকলে কোনো পক্ষই জয়ী হবে না, কিন্তু এটি দেশকে বিকৃঙ্খলার পথে নিয়ে যাবে। ১৬ অক্টোবর থেকে ইরাকি বাহিনী ও পেশমেরগা বাহিনীর মধ্যে যে হামলা ও সংঘর্ষ শুরু হয়েছে তা ধারাবাহিক রক্তপাতের সূচনা করতে পারে।” স্বাধীনতার প্রশ্নে কুর্দিদের গণভোটকে অবৈধ মনে করে ইরাকি সরকার। সঙ্কট সমাধানে তারা সংলাপের প্রস্তাব দিয়েছিল। গতমাসে ইরাকের প্রধানমন্ত্রী হায়দার আল আবাদি দাবি করেছিলেন, কুর্দিস্তান আঞ্চলিক সরকারকে গণভোটের ফলাফল ‘বাতিল’ করতে হবে।

তিনি বলেছিলেন, ওই গণভোট ‘ইরাকিদের শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানের’ জন্য হুমকি এবং ‘ওই অঞ্চলের জন্য একটি বিপদ’। কেজিআর দাবি অনুযায়ী কাজ না করলে তিনি ওই এলাকায় ‘ইরাকের শাসন জারি’ করতে পারেন বলে হুমকি দিয়েছিলেন। উত্তর ইরাকের কুর্দি অধ্যুষিত অঞ্চলের গণভোটে কুর্দিরা তাদের এলাকার স্বাধীনতার পক্ষে ব্যাপক সমর্থন জানিয়েছিল।