১ জুলাই থেকে ভ্যাট আইন কার্যকর

17

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল আবারও বলেছেন, আগামী ১ জুলাই থেকেই ভ্যাট আইন কার্যকর হবে। এটা নিয়ে ব্যবসায়ীদের সঙ্গে আমাদের কোনও গ্যাপ নেই। গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে অবস্থিত পরিকল্পনা কমিশনে এফবিসিসিআইয়ের নেতাদের সঙ্গে অনুষ্ঠিত বৈঠকে তিনি এ কথা বলেন।
বৈঠক শেষে আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, ‘এই আইন কার্যকরের বিষয়ে অর্থ মন্ত্রণালয় ও ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন দ্য ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (এফবিসিসিআই) মধ্যে যে দূরত্ব ছিল, তা ঘুঁচিয়ে নেওয়া হয়েছে। বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, কোনও পণ্যে ট্যাক্স বাড়ছে না, বরং কমতে পারে। এ ক্ষেত্রে অর্থ মন্ত্রণালয়কে সব ধরনের সহযোগিতা করবে এফবিসিসিআই’।
অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের ভ্যাট নিতে হবে, আবার কাউকে কষ্টও দেওয়া যাবে না। ভ্যাট আইন চলমান থাকবে। এটি নিয়ে সমস্যা থাকলে তা এক দিনে সমাধান করা যায় না; আইন চালু থাকবে। মাঝপথে যদি কোনও সমস্যা মনে হয়, তাহলে সমাধানের উদ্যোগ নেওয়া হবে’।
কোন পণ্যে কত ভ্যাট হার বসছে জানতে চাইলে অর্থমন্ত্রী ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘যেভাবে গণমাধ্যমে আসছে, বিষয়টা সে রকম না। ফেডারেশনের সঙ্গে আমরা বসেছি, কথা বলছি, বুঝতে পারলাম কোথাও একটা মিসআন্ডারস্ট্যান্ডিং হয়ে গেছে। আমরা লেখালেখি করছি, উনারাও লেখালেখি করছে। যা-ই হোক, আমরা যেটা করেছি সেটা হলো, আমরা যেখানে যেভাবে শুরু করেছিলাম, আমরা সেভাবেই করবো। উনারা আশ্বস্ত করেছেন, উনাদের কোনও আপত্তি নেই’।
এফবিসিসিআই সভাপতি শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন বলেন, ‘দেশের উন্নয়নে আমরা যে যার জায়গা থেকে কাজ করে যাচ্ছি। এখানে কারও সঙ্গে কারও প্রতিদ্বন্দ্বিতা নেই। অর্থমন্ত্রী আমাদের আশ্বস্ত করেছেন, ট্যাক্স সিস্টেম এমন হবে যে যিনি ট্যাক্স দেবেন তিনি ব্যথা পাবেন না, আবার করও দেবেন। কোনও স্থানে কর বাড়বে না’। খবর বাংলা ট্রিবিউনের
এর আগে প্রধান উদ্বেগের জায়গা ছিল কোন পণ্যে কত রেট হবে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘এটা অর্থমন্ত্রী পরিষ্কারভাবে বলেছেন, ওটা বাজেটের আগে যদি বলে দেন তাহলে অসুবিধা হবে। আপনাদের ওটা বিবেচনায় নিতে হবে’।