১৭ তলার বাণিজ্যিক ও অফিস ভবন করছে জেলা পরিষদ

এম এ হোসাইন

30

প্রায় ৭০ শতক জায়গার উপর বহুতল ভবন করতে যাচ্ছে চট্টগ্রাম জেলা পরিষদ। বিদ্যমান পুরাতন ভবনটি ভেঙে সেখানে ১৭ তলাবিশিষ্ট অফিস কাম বাণিজ্যিক ভবন নির্মাণ করা হবে। ইতোমধ্যে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় থেকে এ সংক্রান্ত অনুমতি পাওয়া গেছে। চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (সিডিএ)ও নকশা অনুমোদন দিয়েছে। ঈদের পরেই ভবন নির্মাণে ঠিকাদার নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হবে। চলতি বছরেই নির্মাণ কাজে হাত দেওয়ার পরিকল্পনা আছে।
আধুনিক স্থাপত্য শৈলীতে নতুন ভবন নির্মাণের পরিকল্পনা আছে জেলা পরিষদের। অনুমোদন পাওয়া ২ টি ব্যাজমেন্টসহ ভবনটি হবে ১৭ তলাবিশিষ্ট। ভবনের মোট আয়তন হবে প্রায় দেড় লক্ষ বর্গফুট। নতুন ভবনের কাজ শুরুর আগে ভাঙা হবে পুরাতন ভবন। পুরাতন ভবন ভাঙার জন্য মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন পাওয়া গেছে। তবে নতুন ভবন ভাঙার আগে স্থানান্তরিত করতে হবে অফিস। বর্তমান জেলা পরিষদের ভবনের সামনে রাস্তার বিপরীত পাশে থাকা জেলা পরিষদের নিজস্ব জায়গায় স্থানান্তর করা হবে অফিস। আগামী নভেম্বরের দিকে অফিস স্থানান্তর করেই নতুন ভবনের কাজে হাত দেওয়া হবে। নতুন ভবনের কাজ শেষ করতে চার বছর পর্যন্ত সময় লাগতে পারে। নতুন ভবন নির্মাণে ৪০ থেকে ৫০ কোটি টাকা ব্যয় হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
এ বিষয়ে কথা হলে জেলা পরিষদের সিনিয়র সহকারী প্রকৌশলী মো. আনিসুর রহমান বলেন, নতুন ভবন নির্মাণের যাবতীয় অনুমতি পাওয়া গেছে। সিডিএ থেকে প্ল্যানও পাস করা হয়েছে। প্রাক্কলন ব্যয় নির্ধারণ করে টেন্ডার আহবান করা হবে। ধারণা করছি, ৪০ থেকে ৫০ কোটি টাকা ব্যয় হতে পারে। তিনি বলেন, পুরাতন ভবন ভাঙার অনুমতিও পাওয়া গেছে। আগামী নভেম্বরের দিকে এটি ভাঙা হবে। নতুন ভবনে অফিস ও বাণিজ্যিক স্পেস থাকবে। অফিস, ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান, আধুনিক সুযোগ-সুবিধা সম্বলিত কনফারেন্স ভেন্যু, বড় অডিটোরিয়াম, কর্পোরেট অফিস সব কিছু থাকবে। এটি নির্মিত হলে জেলা পরিষদের আয়ও বাড়বে।১৮৮৭ সালের ৫ এপ্রিল সৃষ্ট চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের আয়তন ৫২৮২ দশমিক ৯২ বর্গ কিলোমিটার। বর্তমানে ১৪ টি উপজেলায় জেলা পরিষদের অধীনে বিভিন্ন ধরনের উন্নয়ন মূলক ও সেবামূলক কার্যক্রম পরিচালিত হয়ে আসছে।