হৃদস্পন্দন নিয়ন্ত্রণ করে পান

24

অনেকেই খেয়ে উঠে পান মুখে পুরে ফেলেন। এতে নাকি তৃপ্তি মেলে ১০০ শতাংশ। কিন্তু জানেন কী? এই পান শুধু তৃপ্তিই দেয় না, বরং স্বাস্থ্যের পক্ষেও বেশ উপকারি এই পান। ১. পান পাচন শক্তি বাড়ায়। ২. হৃদস্পন্দন নিয়ন্ত্রণ করে পান। ৩. পান খেলে পেট পরিষ্কার হয়। ৪. সর্দি কাশি হলে পানের রসের সাথে মধু মিশিয়ে খেলে উপকার পাওয়া যায়। ৫. পানের সাথে গোলমরিচ, লবঙ্গ মিশিয়ে খেলে কাশি কমে যায়। ৬. মুখে ঘা হলে পানের মধ্যে কর্পুর দিয়ে চিবিয়ে খেয়ে বার বার পিক ফেললে লাভ পাওয়া যায়। ৭. পান খাওয়ার ফলে মুখে যে লালার সৃষ্টি হয় তা পাচন শক্তি বৃদ্ধি করে। ৮. গলার সমস্যায় পান খুব উপকারী। আওয়াজ পরিস্কার করতে পান সাহায্য করে। ৯. রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করতে পান সাহায্য করে। ১০. পান খেলে মুখের স্বাদ ফিরে আসে।
তবে পান খাওয়ার সময় যেসব বিষয় খেয়াল রাখবেন- ১. পানের সঙ্গে বেশি খয়ের খেলে ফুসফুসে ইনফেকশান হয়। ২. পানে বেশিমাত্রায় চুন খেলে দাঁতের ক্ষতি হয়। ৩. যাদের জ্বর এবং দাঁতের সমস্যায় ভোগেন তাদের পান খাওয়া বন্ধ করে দেওয়া উচিত। ৪. পান উষ্ণ এবং পিত্তকারক। শিশুরা এবং অন্তঃস্বত্ত¡া মহিলাদের পান খাওয়া উচিত নয়। ৫. পানের সঙ্গে জর্দা মিশিয়ে খেলে পানের সব গুণ নষ্ট হয়ে যায়। ৬. সব সময় খাওয়ার পরে পান খাওয়া উচিত। খালি পেটে পান খাওয়া উচিত নয়। ৭. তবে বেশি পান খেলে মুখ ও চোখের রোগ হতে পারে। পানের সঙ্গে বেশি সুপারি খাবেন না। সূত্র : ইন্টারনেট

ফেসবুক হ্যাক হওয়ার
সম্ভাব্য কারণ

স¤প্রতি ফেসবুক হ্যাক বা বøক হওয়ার কথা অহরহ শোনা যাচ্ছে। কোন কারণ ছাড়াই হারাতে হচ্ছে প্রিয় ফেসবুকের আইডিটি। অনেকে জানতে ও বুঝতেও পারছেন না কেন তাদের ফেসবুক হ্যাক হচ্ছে। তবে কিছু নিয়মকানুন মানলেই এই হ্যাক বা বøক এড়ানো সম্ভব। ফেসবুক স্ট্যাটাসে বা ম্যাসেজে আক্রমাত্মক কিছু লিখবেন না। আর ওই লেখা থেকে যদি প্রতিয়মান হয়, আপনি কাউকে হুমকি দিচ্ছেন তবে তিনি আপনার আইডি নিয়ে অভিযোগ করলেই ব্লক হয়ে যেতে পারে আইডি। এ কারণে কাউকে হুমকি দেয়া থেকে বিরত থাকুন। অনেকে বন্ধু তালিকা বাড়ানোর জন্য অনেককে রিকুয়েস্ট পাঠান। এ থেকে বিরত থাকুন কারণ রিকুয়েস্ট পাঠানো সীমা অতিক্রম করলে বন্ধ হয়ে বা যেতে পারে আপনার আইডি। তখন কিন্তু কেউ বাঁচাতে পারবে না আপনার আইডিকে। একই দিনে যদি ফেসবুক পেজ বা গ্রæপে একই ম্যাসেজ লিখে একাধিক বার ম্যাসেজ করা হয় তাহলে আপনার অ্যাকাউন্ট বøক হয়ে যেতে পারে । এ ক্ষেত্রে আপনি সেই সব ম্যাসেজ করার সময় কিছুটা পরিবর্তন করে করে ম্যাসেজ করুন । আপনি যদি আপনার নিজের ফেসবুক ওয়ালেও একই পোস্ট একাধিক বার দেন তাহলে সেটাকে ফেসবুক স্প্যাম ভেবে আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট বøক করে দিতে পারে তাই এটা থেকে বিরত থাকার চেষ্টা করুন। আপনি যদি প্রতিদিন একাধিক ফেসবুক ফ্যান পেজে লাইক করেন তাহলে আপনাকে প্রথমে সতর্কবার্তা দেবে।


আপনি যদি তাও একি ভাবে কাজটি চালিয়ে যান তাহলে অ্যাকাউন্ট ব্লক করে দিতে পারে। অশ্লীল ছবি ও ভিডিও প্রকাশ বা তাতে লাইক দেয়া থেকে বিরত থাকুন। পাশাপাশি কোন অশ্লীল ভিডিওতে কমেন্টসও করবেন না। তাহলেই নিরাপদ আপনার আইডি। তাই যথাসম্ভব ফেসবুকের ইমেল এবং মোবাইল নাম্বার গোপন রাখা সবচাইতে ভালো। সূত্র : ইন্টারনেট