হালদা রক্ষার সরকারি উদ্যোগ আরো সম্প্রসারণ জরুরি

91

দেশের একমাত্র রুই/কার্প জাতীয় মাছের প্রাকৃতিক প্রজননের উপনদী হালদা। কর্ণফুলীতে বিলীন হওয়া হালদা জাতীয় সম্পদ। নদী নদীতে বিলীন হলেও আমরা একে উপনদী না বলে নদীই বলে থাকি। সে যাই হোক হালদাকে রক্ষা করা সমগ্রজাতির দায়িত্ব। কেননা হালদা তার প্রাকৃতিক স্বাতন্ত্র্য বজায় রাখতে পারলে দেশে রুই জাতীয় ও কার্প জাতীয় মাছের চাষ বৃদ্ধি পাবে। কৃত্রিম পদ্ধতিতে ওই জাতীয় মাছের উৎপাদন করা গেলেও হালদার পোনা থেকে যে মাছ পাওয়া যায় তার সাথে স্বাদে ও বৃদ্ধিতে কৃত্রিম বৈজ্ঞানিক উপায়প্রাপ্ত মাছ তুলনায় আসে না। হালদা থেকে প্রাপ্ত পোনা মিঠা পানির পুকুরে দ্রুত বড় হয়। আর তার স্বাদ ও অন্যান্য মৎস্য পোনা থেকে উৎপন্ন মাছের তুলনায় বেশি। যে কারণে দেশের একমাত্র মৎস্য প্রজননের নদী হালদার প্রাকৃতিক পরিবেশ রক্ষা জাতীয় দায়িত্ব হয়ে দাঁড়িয়েছে। যান্ত্রিক সভ্যতার জাঁতাকলে পড়ে হালদা তার স্বাভাবিক রূপ ও বৈশিষ্ট্য হারাতে বসেছে। ফলে অনার্য্য ঐতিহ্যের হালদা অতীতের মতো মৎস্য ডিম/পোনা সরবরাহ করতে সক্ষম হচ্ছে না। চৈত্র-বৈশাখে হালদায় রুই ও কার্প জাতীয় মাছ ডিম ছাড়ে। প্রায় এক দশকেরও বেশি সময় ধরে আমরা লক্ষ করছি হালদাতে স্বাভাবিকভাবে মাছেরা ডিম ছাড়ছে না, ফলে হালদা কেন্দ্রিক মৎস্য পোনা উৎপাদন হ্রাস পেয়েছে। এর জন্য আমাদের যান্ত্রিক সভ্যতা অনেকাংশ দায়ী।
মানুষ উন্নয়নের স্বার্থে নানাভাবে হালদার প্রবাহ ধারাকে ক্ষতিগ্রস্ত করছে।
সরকারি সিদ্ধান্ত মোতাবেক হালদা উপনদীর ফটিকছড়ি ও রাউজান অংশে দীর্ঘদিন ধরে ইজারা হওয়া ১৭টি বালুমহাল বিলুপ্ত ঘোষণা করেছে। সরকারের এ উদ্যোগ প্রশংসার দাবি রাখে। কেননা এর ফলে কার্প জাতীয় মাছের ডিম ছাড়া বিঘিœত হবে না। তবে হালদার নীচে কর্ণফুলীর কিছু অংশেও এরকম সরকারি বিশেষ ব্যবস্থা প্রয়োজন। প্রকৃত পক্ষে হালদার গতি ধারা ও বৈশিষ্ট্য রক্ষার স্বার্থে প্রথমতঃ সংশ্লিষ্ট এলাকায় পাহাড় কাটা বন্ধ করা প্রয়োজন। কেননা পাহাড় কাটার ফলে পাহাড়ধস ও পাহাড়ি মাটি বালি হালদায় পড়ে হালদার নাব্যতায় বিঘœ ঘটায়। দ্বিতীয়তঃ হালদা আশপাশের কলকারখানার বর্জ্য যেন হালদার পানিতে মিশতে না পারে তার কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ প্রয়োজন। তৃতীয়তঃ ইঞ্জিলচালিত বোট, নৌকা, সাম্পান, ইস্টিমার হালদাতে চলাচল নিষেধ করাও জরুরি। যার ফলে মা মাছের নিরাপদ চলাচল নিশ্চিত হবে। চতুর্থতঃ হালদা-কর্ণফুলীর মোহনাকে যে কোন প্রকার উৎপাত থেকে রক্ষা করা প্রয়োজন। উপরোল্লিখিত বিষয়ে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করা গেলেই হালদা তার অতীত ও ঐতিহ্য ফিরে পাবে। আমরা মনে করি শুধু বালির মহাল বন্ধ নয়, প্রাকৃতিক প্রজননের এই জলধারাকে বিশুদ্ধ রাখা সমূহ ব্যবস্থাসহ হালদার ক্ষতি হয় এমন সব বিষয়ে সরকারকে আইন করে তা কার্যকর করতে হবে। আর তা করা গেলে হালদা প্রকৃত পক্ষে নিজস্ব বৈশিষ্ট্যসহ রক্ষিত হবে।