স্থানীয় জনসাধারণের নির্বিঘ্নে চলাচল

হাটহাজারীতে প্রায় ১৬ বছর পর উদ্ধার হল সরকারি রাস্তা

হাটহাজারী প্রতিনিধি

15

চট্টগ্রাম-খাগড়াছড়ি মহাসড়কের হাটহাজারী পৌরসভার মিরের হাট এলাকায় অভিযান চালিয়ে চলাচলের রাস্তা দখল করে গড়ে তোলা কয়েকটি অবৈধ স্থাপনা গুঁড়িয়ে দিয়েছে উপজেলা প্রশাসন। প্রায় ১৬ বছর যাবৎ ভূমি খেকো বশির আহমেদ নামে পৌর সহায়ক এক সদস্য এ সরকারি রাস্তাটি দখলে রেখে এসব অবৈধ স্থাপনা তৈরি করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. রুহুল আমিন। গত ২০ ফেব্রূয়ারি উক্ত মহাসড়কের মিরের হাট বাজার সংলগ্ন সুন্দরি ছড়ার পাশে এ উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযানে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) সম্রাট খীসা, হাটহাজারী থানা পুলিশসহ পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীরা সদস্যরা অংশ নেন। এ সময় পৌর সহায়ক এ সদস্য ঘটনাস্থলে ছিল না বলে জানা গেছে। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে ইউএনও মো. রুহুল আমিন জানান, বিগত ২০০৪ সালে গ্রাামের মানুষের চলাচলের সরকারি রাস্তা দখল করে অবৈধ স্থাপনা তৈরি করেন পৌর সহায়ক সদস্য এক বশির আহমেদ মেম্বার। এ নিয়ে সেই সময় উচ্ছেদ মামলা দায়ের করা হয়। এরপর কয়েকবার অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে অভিযান পরিচালনার চেষ্টা করা হলেও বশির আহমেদের নানা অপকৌশলে তা সম্ভব হয়ে উঠেনি। তিনি আরও জানান, ইউএনও হিসেবে দায়িত্ব পাওয়ার পর গত বছর ২০১৯ তিনবার জায়গাটি পরিমাপ করি আমরা। পরিমাপের পর সরকারি রাস্তাা দখল করে গড়ে তোলা অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের আনুরোধ জানাই। তবে তিনি এ কাজে সহযোগিতা না করায় শনিবার অভিযান চালিয়ে অবৈধ স্থাপনাগুলো উচ্ছেদ করা হয়। এজন্য উপজেলা প্রশাসনকে দেখে নেবার হুমকিও দেন উক্ত ভূমিখেকো বশির আহমেদ। ইউএনও মো. রুহুল আমিন জানান, সুন্দরি ছড়া খালের পাশ দিয়ে তৈরি করা এ রাস্তা প্রস্থে ৮-১০ ফুট ছিল। বশির আহমেদ এর মধ্যে ৬ ফুট অবৈধভাবে দখলে নেন। উচ্ছেদ অভিযান চালিয়ে দৈর্ঘ্যে ৫০ ফুট এবং প্রস্থে ৬ ফুট রাস্তা দখলমুক্ত করা হয়েছে। এর ফলে স্থানীয় জনসাধারণ নির্বিঘেœ চলাচল করতে পারবেন এখন।