হাইতির ভূমিকম্পে ১৭ জন নিহত আড়াই হাজার বাড়ি বিধ্বস্ত

8

ক্যারিবিয়ান দ্বীপপুঞ্জের দেশ হাইতিতে শনিবারের ভূমিকম্পে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১৭তে দাঁড়িয়েছে। এছাড়া এই ভূমিকম্পে দেশটির প্রায় আড়াই হাজার বাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে। দেশটিতে অনেক বাড়ি ঝুঁকিপূর্ণ হয় বাসিন্দাদের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। মঙ্গলবার দেশটির প্রধানমন্ত্রী খবরটি নিশ্চিত করেছেন। শনিবার রাতে হাইতির পোর্ত দে পাইক্স বন্দরের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে ৫ দশমিক ৯ মাত্রার ভূমিকম্প অনুভূত হয়। এতে প্রাথমিকভাবে ১১ জনের প্রাণহানির খবর নিশ্চিত করে কর্তৃপক্ষ।
ভূমিকম্পে একটি হাসপাতাল ও অডিটোরিয়াম ধসে পড়ে। সর্বশেষ ওই ঘটনায় আহত দুইজন মঙ্গলবার মারা যায়। এতে নিহতের সংখ্যা বেড়ে হয় ১৭। এই ভূমিকম্পে আরও ৩৩৩ জন আহত হন। হাইতির প্রধানমন্ত্রী জেন হেনরি সিয়েন্ট বলেছেন, এই ভূমি কম্পে ২২৮০ টি বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ও ১৬৮টি বাড়ি পুরোপুরি ধ্বংস হয়েছে। এই ভূমিকম্পে উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের একটি কারাগারও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ওই কারাগারে বন্দি দোসতি পিয়েরে বলেন, ভূমিকম্পে কারাগারের সব দেওয়ালই ফেটে গেছে। যেকোনও সময় তা ধসে পড়ে আমাদের সবার মৃত্যু হতে পারে। তিনিসহ অন্য কয়েদিরা তাদের অন্যত্র সরিয়ে নেওয়ার জন্য কর্তৃপক্ষের কাছে আহব্বান জানান।
হাইতির জাতীয় প্রশাসনিক পুলিশ প্রধান কার্ল হেনরি বাউচার বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেন, রাজধানীর কারা কর্তৃপক্ষ বিষয়টি নিয়ে কাজ করছে। কিন্তু কখন কয়েদিদের সরিয়ে নেওয়া হবে তা নিশ্চিত করতে পারেননি তিনি। দেশটির উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের পুলিশ প্রধান জ্যাকসন হিলারিয়ে বলেন, রবিবার কয়েদিরা সংঘবদ্ধভাবে দাঙ্গা করে সেখান থেকে পালানোর চেষ্টা করেছিল। কিন্তু দাঙ্গা পুলিশ তাদের নিয়ন্ত্রণ করেছে।
২০১০ সালে হাইতিতে ৭ মাত্রার ভূমিকম্পে কয়েক হাজার মানুষের প্রাণহানির পর থেকে শনিবারের ভূকম্পনটি ছিল সবচেয়ে শক্তিশালী।