হরমুজে জাহাজের সুরক্ষায় শক্তি ব্যবহারে প্রস্তুত রাশিয়া : পুতিন

21

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিন বলেছেন, হরমুজ প্রণালীতে রুশ জাহাজের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে শক্তি ব্যবহারে প্রস্তুত রয়েছে মস্কো। বৃহস্পতিবার ইস্টার্ন অর্থনৈতিক ফোরামে দেওয়া ভাষণে তিনি একথা বলেন।ইরান ও ওমানে মধ্য দিয়ে পারস্য উপসাগরে যাওয়ার সরু পথ হরমুজ প্রণালী দিয়েই বিশ্বের সামুদ্রিক তেল বাণিজ্যের ৩০ থেকে ৩৫ শতাংশ সম্পন্ন হয়ে থাকে। প্রতিদিন এই পথ দিয়ে প্রায় এক কোটি ৭০ লাখ ব্যারেল তেল রফতানি করা হয়। এছাড়া পারস্য উপসাগরীয় অঞ্চলের যেকোনও ধরনের সামুদ্রিক যোগাযোগের জন্য পথটি অবশ্যই ব্যবহার করতে হবে। পথটির ওপর ইরাক, কুয়েত, বাহরাইন ও কাতারের সব বন্দর, আরব আমিরাতের বেশিরভাগ বন্দরসহ সৌদি আরবের কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বন্দর পুরোপুরি নির্ভরশীল।
পুতিন জানান, হরমুজ প্রণালী ঘিরে যা ঘটছে তা নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করছে রাশিয়া। একইসঙ্গে অঞ্চলটিতে জাহাজের অবাধ চলাচল ও সুরক্ষা নিশ্চিত ও উত্তেজনা হ্রাসে সমাধানের উপায় বের করার আহŸান জানান। রুশ প্রেসিডেন্ট জানান, একবছর আগে মস্কো হরমুজ প্রণালীর জন্য যুক্তরাষ্ট্রসহ সবগুলো দেশের অংশগ্রহণে একটি আন্তর্জাতিক কাঠামো গড়ে তোলার প্রস্তাব দিয়েছিল। হরমুজ প্রণালীতে ইরানের ক্রমবর্ধমান প্রভাব বিস্তারকে কেন্দ্র করে অনেকদিন ধরে ওই অঞ্চলে উত্তেজনা বিরাজ করছিল। জুলাইতে হরমুজ প্রণালী থেকে যুক্তরাজ্যের পতাকাবাহী একটি তেলবাহী জাহাজ আটক করে ইরানের নিরাপত্তারক্ষীরা।
ফলে এ অঞ্চল দিয়ে জাহাজ চলাচলের বিষয়ে উদ্বিগ্ন যুক্তরাজ্য চাইছে নিজেদের মতো করে একটি নিরাপত্তা বলয় গড়ে তুলতে। এই ঘটনার পর পারস্য উপসাগরীয় অঞ্চলে পণ্যবাহী জাহাজের নিরাপদ চলাচল নিশ্চিত করার লক্ষ্যে সমন্বিত নৌ-প্রহরার প্রস্তাব করে যুক্তরাজ্য। শর্ত সাপেক্ষে এ প্রহরায় যোগ দিতে পারে জার্মানিও। ইউরোপীয় নৌবহর গঠনের প্রস্তাবকে ‘শত্রুভাবাপন্ন’ ও ‘উসকানিমূলক’ বলে মন্তব্য করেছে ইরান।

ট্রাম্পকে রুশ হাইপারসনিক কেনার প্রস্তাব পুতিনের!

অস্ত্র বাণ্যিজ্যে বড় চমক; অবিশ্বাস্য! যুক্তরাষ্ট্রের অস্ত্রাগারের আরও উন্নয়ন আনতে ওয়াশিংটনকে রাশিয়ার হাইপারসনিক মিসাইল (ক্ষেপণাস্ত্র) কেনার প্রস্তাব দিয়েছে মস্কো। অবশ্য এই অস্ত্রে রাশিয়া এবং চীন থেকে পিছিয়ে থাকা যুক্তরাষ্ট্র নিজেদের চেষ্টায় হাইপারসনিক ক্ষেপণাস্ত্র প্রস্তুত করতে চাইছে। বৃহস্পতিবার (০৫ সেপ্টেম্বর) রাশিয়ার ভøাদিভস্তকে ইস্টার্ন ইকোনমিক ফোরামে (ইইএফ) বক্তব্য দিতে গিয়ে রুশ প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিন এমন বিস্ময়কর তথ্য দেন। বক্তব্যে পুতিন বলেন, আমি মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে বলেছিলাম, আপনি কী চান আমাদের হাইপারসনিক অস্ত্রশস্ত্র আপনার কাছে বিক্রি করি? আর এর মাধ্যমে আমরা সবকিছুর ভারসাম্য বজায় রাখবো। এছাড়া আমি তখনই এ কথা বলেছিলাম, যখন আমাকে জিজ্ঞেস করা হয়েছিল, নতুন রুশ অস্ত্র কীভাবে ‘অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ চুক্তিতে’ ফিট থাকতে পারে? তবে এই প্রস্তাব ডোনাল্ড ট্রাম্প বিবেচনা করেছেন কি-না, সেটা অস্পষ্টই রয়েছে গেছে।